২৪ মে ২০১৯

হিরো আলমের ঘোষণা

হিরো আলম - ছবি : সংগ্রহ

বিগত একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বগুড়া -৪ (কাহালু –নন্দীগ্রাম) আসনে নিজের জামানত হারানোর পর এবার বগুড়া-৬ (সদর) আসনের উপনির্বাচনে প্রার্থী হওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন অভিনেতা আশরাফুল আলম ওরফে হিরো আলম। সম্প্রতি যৌতুকের দাবিতে নিজ স্ত্রীকে মারপিটের মামলায় এক মাসের বেশি সময় কারাবাসের পর সম্প্রতি জামিনে মুক্তি পেয়েছেন তিনি। কারচুপির অভিযোগে ৩০ ডিসেম্বরের নির্বাচন বর্জনের ঘোষণা দিয়েছিলেন হিরো আলম। বগুড়া প্রেসক্লাবে উপস্থিত হয়ে শনিবার উপ নির্বাচনের ঘোষণা দেন তিনি।

বগুড়া জেলা নির্বাচন অফিস জানিয়েছে, ৩০ ডিসেম্বর একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বগুড়া-৬ আসন থেকে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। ৩০ এপ্রিলের মধ্যে শপথ না নেয়ায় এই আসনটি শূন্য ঘোষণা করা হয়। বগুড়া সদর আসন শূন্য ঘোষণা হওয়ায় আগামী ২৪ জুন এই আসনে উপ নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করেছে নির্বাচন কমিশন।

হিরো আলম সাংবাদিকদের জানান, বিএনপির চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়াকে সম্মান করে তিনি বগুড়া-৬ সদর আসনে বিগত নির্বাচনে প্রার্থী হননি। তাই তিনি প্রার্থী হয়েছিলেন বগুড়া-৪ আসনে। খালেদা জিয়া একটি দলের প্রধান, তাকে সম্মান করা তার কর্তব্য। হিরো আলম বলেন, তিনি বগুড়া সদর আসনের এরুলিয়া ইউনিয়নের এরুলিয়া গ্রামের ভোটার। কিন্তু এই আসনে বিএনপির চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়া বারবার বিপুল ভোটে নির্বাচিত হয়েছেন।

এবার জাতীয় পার্টি থেকে হিরো আলম মনোনয়ন চান। জাতীয় সাংস্কৃতিক পার্টি কেন্দ্রীয় কমিটির তিনি সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক। দল থেকে মনোনয়ন চাওয়া হয়েছে। দল যদি তাকে মনোনয়ন না দেয়, তাহলে তার প্রতীক সিংহ মার্কায় স্বতন্ত্র হয়ে নির্বাচনে অংশ গ্রহণ করবেন।

এর আগে হিরো আলম বগুড়ার-৪ (কাহালু-নন্দীগ্রাম) আসন থেকে সংসদ নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে সিংহ মার্কায় ভোটের মাঠে নমেন। সেই নির্বাচনে তিনি ৬৩৮ ভোট পেয়েছিলেন। এই আসন থেকে ভোটে নির্বাচিত হন বিএনপির প্রার্থী মোশারফ হোসেন।

এর আগে গত ৬ মার্চ স্ত্রীকে পেটানোর অভিযোগে হিরো আলমের শ্বশুর সাইফুল ইসলামের অভিযোগের পর বগুড়া সদর থানা পুলিশ তাকে গ্রেফতার করেছিল। সেই মামলায় পুলিশ তাকে জেল হাজতে প্রেরন করেছিল। পরে মামলাটি আপস হয়। ১৮ এপ্রিল তিনি জামিনে মুক্ত হন।

তিনি ১৯৮৫ সালের ২০ জানুয়ারি বগুড়া সদরের এরুলিয়ায় জন্মগ্রহণ করেন। তার নাম আশরাফুল আলম। কিন্তু বিনোদন জগতে এসে হয়ে যান হিরো আলম। তার পিতার নাম আব্দুর রাজ্জাক, মা আশরাফুন বেগম। প্রথম দিকে নিজ গ্রামে সিডি বিক্রির কাজ করতেন এবং পরে স্যাটেলাইট টিভি সংযোগের (ক্যাবল অপারেটর) ব্যবসায় নামেন। ক্যাবল সংযোগের ব্যবসা চলাকালে শখের বশে তিনি মিউজিক ভিডিও নির্মাণ করেন। ২০১৬ সালের দিকে এই মিউজিক ভিডিওগুলো ইউটিউব, ফেসবুকে আপলোড করার পর থেকে তার পরিচিতি ছড়িয়ে পড়ে। হিরো আলমের প্রথম বাংলা চলচ্চিত্র মার ছক্কাতে অভিনয় করেন।

 


আরো সংবাদ

Instagram Web Viewer
agario agario - agario