২০ আগস্ট ২০১৯

একসাথে এইচএসসি পরীক্ষা দিচ্ছেন মা-মেয়ে

চলতি বছর একসাথে এইচএসসি পরীক্ষা দিচ্ছেন মা মাসুমা খাতুন ও মেয়ে জান্নাতুল ফেরদৌস - নয়া দিগন্ত

লেখাপড়া করার এক অদম্য ইচ্ছে কুরে কুরে খেয়েছে মাসুমা খাতুনকে। কিন্তু সেই ইচ্ছে বুকের মধ্যে চাপা রেখেই বিয়ের পিঁড়িতে বসেছিলেন তিনি। ১৯৯৭ সালে দেয়ার কথা ছিল এসএসসি পরীক্ষা। কিন্তু পরীক্ষার আগেই পরিবার থেকে তার বিয়ে দেয়া হয়। এরপর আর পরীক্ষা দিতে পারেননি। এগোয়নি পড়াশোনা করা দীর্ঘ লালিত স্বপ্ন।

কিন্তু বুকের ভেতরের সেই ইচ্ছে তার সবসময়ই ছিল। আর তাই ইচ্ছা শক্তির ওপর ভর করে তিনি নতুন করে শুরু করেন লেখাপড়া। নিজের মেয়ের সাথে নবম শ্রেণীতে ভর্তি হয়েছিলেন। মেয়ের সাথেই একসাথে করেছেন এসএসসি পাশ। এবার সেই মেয়ের সঙ্গে একসঙ্গে এইচএসসি পরীক্ষা দিচ্ছেন তিনি।

সংগ্রামী এই মায়ের নাম মাসুমা খাতুন। তার বাড়ি নাটোরের বাগাতিপাড়ায়। তিনি বাগাতিপাড়া পৌর মহিলা বিএম কলেজ থেকে চলতি বছর কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের অধীনে বাগাতিপাড়া টেকনিক্যাল অ্যান্ড বিজনেস ম্যানেজমেন্ট ইন্সটিটিউট কেন্দ্রে পরীক্ষায় অংশ নেন। আর তার মেয়ে জান্নাতুল ফেরদৌস রাজশাহী সরকারি মহিলা কলেজ থেকে বিজ্ঞান বিভাগে রাজশাহী সিটি কলেজ কেন্দ্রে এইচএসসি পরীক্ষা দিচ্ছেন।

মাসুমা খাতুনের বাবার বাড়ি বাগাতিপাড়া উপজেলার বারইপাড়া গ্রামে। বিয়ে হয় বাগাতিপাড়া উপজেলা সদরে। স্বামী আব্দুল মজিদ আনসার ব্যাটালিয়নে সিপাহি (প্রশিক্ষক) পদে চাকরি করেন। তার কর্মস্থল গাজীপুরে। মাসুমা খাতুনের দুই সন্তান। বড় ছেলে বনি আমিন বাগাতিপাড়া সরকারি ডিগ্রী কলেজের স্নাতক শ্রেণীর ছাত্র।

মাসুমা খাতুন বলেন, ‘বিয়ের পর ১৮ বছর পেরিয়ে গেছে। পিঠাপিঠি দুই ছেলে-মেয়েকে মানুষ করতে গিয়ে নিজের পড়ার কথা ভাবারই সময় পাইনি। অবশেষে ছোট মেয়ে জান্নাতুল ফেরদৌসের সঙ্গে নবম শ্রেণীতে ভর্তি হয়ে নতুন করে পড়ালেখা শুরু করেছি। সমাজে আর দশটা মানুষের মতো নিজেকেও একজন শিক্ষিত মানুষ হিসেবে যাতে পরিচয় দিতে পারি, সে কারণেই এই বয়সে কষ্ট করে লেখাপড়া করছি।’

মাসুমা খাতুনের স্বামী আব্দুল মজিদ বলেন, ‘আমার জন্য একটু কষ্ট হলেও আমি তার ইচ্ছার মর্যাদা দিয়েছি। সে যতদূর পড়াশোনা করতে পারে, আমি চালিয়ে নেয়ার চেষ্টা করব।’

কেন্দ্র সচিব শরিফ উদ্দিন আহম্মদ বলেন, তার কেন্দ্রে উদ্যোমী মা মাসুমা খাতুন এইচএসসি পরীক্ষা দিচ্ছেন। তার মেয়েও চলতি বছর একই পরীক্ষায় অংশ নিয়েছে বলে তিনি জেনেছেন।

আরো পড়ুন : ৩৭ বছর বয়সে এইচএসসি পরীক্ষা দিচ্ছেন সেই মা
বাগাতিপাড়া (নাটোর) সংবাদদাতা, (০৩ এপ্রিল ২০১৯)

বয়সের বাধাকে উপেক্ষা করে নাটোরের বাগাতিপাড়ায় ছেলের সঙ্গে এসএসসি পরীক্ষায় উত্তীর্ন হওয়া আলোচিত সেই মা মলি রাণী ৩৭ বছর বয়সে এবার এইচএসসি পরীক্ষায় অংশ নিয়েছেন। কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের অধীনে বাগাতিপাড়া টেকনিক্যাল এন্ড বিজনেস ম্যানেজমেন্ট ইন্সটিটিউট কেন্দ্র্রে পরীক্ষায় অংশ নেন তিনি। আলোচিত মলি রাণী কুণ্ডু ওই কলেজের উদ্দ্যোক্তা উন্নয়ন ট্রেডের ছাত্রী।

এদিকে ছেলে মৃন্ময় কুমার কুণ্ডু মায়ের সঙ্গে এসএসসি পাশের পর নাটোর শহরের টিএমএসএস পলিটেকনিক্যাল ইন্সটিটিউটে টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে ভর্তি হয়ে পড়াশোনা করছেন। তিনি বর্তমানে চতুর্থ সেমিষ্টার ফাইনাল পরীক্ষার্থী।

এর আগে ২০১৭ সালের এসএসসি পরীক্ষায় অংশ নিয়ে ছেলের চেয়ে ভাল ফলাফল করেন মা মলি রাণী। ওই বছর এসএসসি পরীক্ষায় মা মলি রাণী পেয়েছিলেন জিপিএ ৪.৫৩ এবং ছেলে মৃন্ময় কুমার কুণ্ডু পায় জিপিএ ৪.৪৩। কারিগরি শিক্ষাবোর্ডের অধীনে মলি বাগাতিপাড়া বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের ড্রেস মেকিং এন্ড টেইলারিং ট্রেডের এবং ছেলে মৃন্ময় বাগাতিপাড়া মডেল পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের বিল্ডিং মেইনটেনেন্স ট্রেডের শিক্ষার্থী ছিলেন।

বয়সকে হার মানিয়ে পরীক্ষায় অংশ নিয়ে ভালো ফলাফল করার পর উদ্যোমী ওই নারী মলি রাণী কুণ্ডুকে নিয়ে দেশের বিভিন্ন গণমাধ্যমে খবর প্রকাশিত হয়। এরপরই আলোচনায় আসেন তিনি।

সে সময় মলি রাণীর সাফল্যে তৎকালীন এমপি এ্যাডভোকেট আবুল কালাম, ডিসি শাহিনা খাতুন, সদ্য প্রয়াত বইপ্রেমী পলান সরকার তার বাড়িতে ছুটে যান। আর তথ্য ও প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক মা ও ছেলেকে ডিসি অফিসে আনুষ্ঠানিকভাবে ল্যাপটপ উপহার দেন। উপজেলা প্রশাসন মা দিবসে সংবর্ধনা দেয় মা মলিকে। এরপর তিনি ভর্তি হন কলেজে। কলেজের অধ্যক্ষ শরীফ উদ্দিন আহম্মেদ বিনা খরচায় তার পড়ালেখার দায়িত্ব নেন।

মলি রাণী জানান, যখন তিনি নবম শ্রেণীর ছাত্রী, তখন তার বাবা বাগাতিপাড়া উপজেলার গালিমপুরের মিষ্টি ব্যবসায়ী দেবব্রত কুমার মিন্টুর সাথে বিয়ে দেন। তার বাবার বাড়ি নওগাঁ জেলার মান্দা উপজেলার প্রসাদপুর গ্রামে। বাবার নাম অসিত কুণ্ডু। এরপর আর পড়ালেখা করার সুযোগ হয়নি। সংসারের চাপে গৃহিনীই রয়ে যান। এরই মধ্যে দুটি সন্তানের মা হন তিনি।

তিনি আরো বলেন, বড় ছেলের নাম মৃন্ময় কুমার কুণ্ডু এবং ছোট ছেলের নাম পাপন কুণ্ডু। ছেলেদের পড়ালেখা করাতে গিয়ে তিনি অনুভব করেন তার নিজেরও পড়ালেখা জানা দরকার। সেই ভাবনা থেকেই স্কুলে ভর্তি হন তিনি।


আরো সংবাদ

প্রেমিকের বাড়িতে প্রেমিকার রহস্যজনক মৃত্যু প্রত্যাবাসনের তালিকাভুক্ত রোহিঙ্গাদের সাক্ষাৎকার শুরু দুদকের মামলায় তালতলীর সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান মিন্টু জেলহাজতে মিন্নির জামিন নিয়ে হাইকোর্টের রুল, মামলার তদন্ত কর্মকর্তাকে তলব সিন্ডিকেট করে চামড়ার টাকা লুটপাটে প্রভাবশালীরা জড়িত : গণতান্ত্রিক বাম ঐক্য ৫ দাবি পূরণ হলে মিয়ানমারে ফিরতে রাজি রোহিঙ্গারা কুমিল্লার মামলায় খালেদা জিয়ার জামিনের মেয়াদ বাড়লো এক বছর মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন ছাত্রদলের প্রার্থীরা দেশে ফিরে ডেঙ্গুতে মারা গেলেন ডা. রেহানা বেগম এই সরকার পুরোপুরি ব্যর্থ ও প্রতারক : মির্জা ফখরুল শেখ হাসিনার ট্রেনে হামলা : দণ্ডপ্রাপ্তদের আপিল শুনানির জন্য গ্রহণ

সকল

স্ত্রীর ছলচাতুরীতে ফতুর প্রবাসী স্বামী (৩৬৭২৪)পুলিশ হেফাজতে বাসর রাত কাটলেও ভেঙ্গে গেল বিয়ে (২৩৯০৭)ইমরানকে ‘পেছন থেকে ছুরি মেরেছেন’ মোদি (২১৩৩১)ভারতের পরমাণু অস্ত্রভাণ্ডার এখন ফ্যাসিস্ট মোদির হাতে : ইমরান খানের হুঁশিয়ারি (১৭৪৫৮)সন্ধ্যায় বাবার কিনে দেয়া মোটর সাইকেল সকালে কেড়ে নিল ছেলের প্রাণ (১৪৯৫২)নুরকে ‘খালেদা জিয়ার মতো পরিণতির’ হুমকি (১৩৯০০)স্বামীর সাথে ঘুরতে বেরিয়ে ধর্ষণের শিকার গৃহবধূ, ধর্ষক আটক (১২৫৭৯)সীমান্তে ফের পাল্টাপাল্টি গুলি, দুই ভারতীয় সেনাসহ নিহত ৪ (১১৩১৮)ব্যাগে টাকা আছে ভেবে শারমিনকে হত্যা করে রিকশা চালক রাজু উড়াও (১০৯৫০)গ্রীনল্যান্ড বিক্রির প্রস্তাব হাস্যকর : ড্যানিশ প্রধানমন্ত্রী (১০৫২৩)



bedava internet