১৩ নভেম্বর ২০১৮

সিরাজগঞ্জ সওজের সাড়ে ৩ কিলোমিটার সড়কে ভগ্নদশা

-

সিরাজগঞ্জের কাজিপুর উপজেলার পাইকপাড়া থেকে বগুড়ার ধুনট উপজেলার দিঘলকান্দি পর্যন্ত সাড়ে ৩ কিলোমিটার পাকা সড়ক এখন মরণফাঁদে পরিনত হয়েছে। এতে ওই সড়কে ভারী যানবাহন চলাচল বন্ধ হয়ে যাওয়ায় ধুনট উপজেলার দুটি ইউনিয়নের হাজারো মানুষকে চরম ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে। সিরাজগঞ্জ সড়ক ও জনপদ (সওজ) বিভাগ ওই সড়কটি নির্মান করলেও দীর্ঘ ৯ বছরেও কোন সংস্কার কাজ না করায় এমন অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে।
জানা গেছে, সিরাজগঞ্জ সড়ক ও জনপদ বিভাগ গত ৯ বছর আগে কাজিপুর উপজেলার পাইকপাড়া থেকে বগুড়ার ধুনট উপজেলার দিঘলকান্দি পর্যন্ত সাড়ে ৩ কিলোমিটার পাকা সড়ক নির্মান করে। তবে ওই সড়কটি প্রথমে ধুনট এলজিডির নির্মান করার কথা থাকলেও পরবর্তীতে সিরাজগঞ্জ সড়ক ও জনপদ বিভাগ কাজিপুর উপজেলার পাইকপাড়া থেকে কাজিপুরের ভানুডাঙ্গা পর্যন্ত হাইওয়ে সড়ক দেখিয়ে তাদের তত্বাবধায়নে সড়কটি নির্মান করে। তবে সড়কটির নির্মান কাজ ধুনটের দিঘলকান্দি পর্যন্তই সমাপ্ত হয়ে যায়।
ধুনট উপজেলার এলজিডির এক কর্মকর্তা জানান, সিরাজগঞ্জ সড়ক ও জনপদ বিভাগের সাড়ে ৩ কিলোমিটার পাকা সড়কের মধ্যে আধা কিলোমিটার কাজিপুর উপজেলার। কিন্তু ৩ কিলোমিটার সড়কই ধুনট উপজেলার মধ্যে। কিন্তু সিরাজগঞ্জ সওজের তৎকালীন কর্মকর্তাবৃন্দ ওই সড়কটি তাদের তত্বাবধায়নে নির্মান করে। একারনে সড়কটি ভেঙ্গে গেলেও ধুনট উপজেলা এলজিডি মেরামত করতে পারবে না। এমনকি ওই সড়কে কোন ধরনের বরাদ্দও দেওয়া সম্ভব নয়। চৌকিবাড়ী গ্রামের ধান ব্যবসায়ী সাইফুল ইসলাম, কৃষক ফজর আলী ও হোসেন আলী বলেন, পাইকপাড়া-দিঘলকান্দি সড়ক দিয়ে ধুনট উপজেলার চৌকিবাড়ী ও গোপালনগর ইউনিয়নের কয়েক হাজার লোকজন যাতায়াত করে। কিন্তু এসড়কটি দীর্ঘদিন যাবত মেরামত না করায় সাড়ে ৩ কিলোমিটার সড়কের বিভিন্ন স্থানে দুপাশ ভেঙ্গে গিয়ে ভারী যানবাহন চলাচল বন্ধ হয়ে গেছে। এছাড়া সড়কের বিভিন্নস্থানে কার্পেটিং উঠে গিয়ে মাটি বের হয়েছে। এতে ওই সড়কে কৃষি পণ্য পরিবহন সহ জনসাধারনের যাতায়াতে চরম দূর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। তবে মাঝেমধ্যে স্থানীয় লোকজন বালুর বস্তা ও ইটের গুড়ো ফেলে মেরামত করলেও তা বৃষ্টির পানিতে আবারও ধসে যায়। তাই এ সড়কটি দ্রুত মেরামত করতে এলাকাবাসী সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সু-দৃষ্টি কামনা করেছেন।

 

 


আরো সংবাদ