২১ জানুয়ারি ২০২০

সভ্যতা, সংস্কৃতি ও মূল্যবোধ

-

সঙ্ঘবদ্ধ জীবনের ক্রমোন্নতির স্তরকেই ‘সভ্যতা’ বা সিভিলাইজেশন বলা হয়। সভ্যতা, নগরায়ন, সামাজিক স্তরবিন্যাস, যোগাযোগ প্রণালী, স্বতন্ত্র পরিচয় এবং প্রাকৃতিক পরিবেশের ওপর নিয়ন্ত্রণের গুণাবলি দিয়ে বৈশিষ্ট্যমণ্ডিত। সভ্যতায় ক্রমবিবর্তনমূলক জীবনপ্রণালী এবং রাজতন্ত্র বা নির্বাচন প্রক্রিয়ার মাধ্যমে গঠিত সরকারপদ্ধতি; ভাষা, ধর্ম, শিক্ষা ও সংস্কৃতিও ক্রিয়াশীল। সুমেরীয় ও মিসরীয় থেকে শুরু করে বিশ্বের সব সভ্যতারই নিজস্ব লিখনপদ্ধতি ছিল। এই লিখনপদ্ধতির মাধ্যমেই জ্ঞানের আহরণ, সঙ্কলন ও সংরক্ষণ করা হতো। মূলত এসবই হচ্ছে সভ্যতার শেকড়; ভিত্তিমূল।
সাধারণভাবে কোনো জনগোষ্ঠীর বৈশিষ্ট্য ও জ্ঞানই হচ্ছে সংস্কৃতি। ভাষা, ধর্ম, খাদ্যাভ্যাস, সামাজিক আচার-আচরণ, সঙ্গীত, চিত্রকলা ও শিল্পকলাও সংস্কৃতির অন্তর্ভুক্ত। যুক্তরাষ্ট্রের ‘সেন্টার ফর অ্যাডভান্সড রিসার্চ অন ল্যাঙ্গুয়েজ অ্যাকুইজিশন’ সংস্কৃতির একটি অতি চমকপ্রদ সংজ্ঞা দিয়েছে। এ সংজ্ঞায় বলা হয়েছে, ‘সামাজিক আচরণ, মিথস্ক্রিয়ার ধরন, জ্ঞানীয় গঠন এবং সামাজিকীকরণের মধ্য দিয়ে যে উপলব্ধি অর্জিত হয় তা-ই সংস্কৃতি।’
সভ্যতা ও সংস্কৃতির মধ্যে একটা অলিখিত সখ্য রয়েছে। ব্রিটিশ সমাজবিজ্ঞানী ম্যাকাইভারের মতে, ‘আমরা যা করি তাই আমাদের সংস্কৃতি, আর আমাদের যা আছে তাই আমাদের সভ্যতা। মূলত সংস্কৃতি হলো মানুষের স্বাভাবিক জীবনপ্রণালী এবং সভ্যতা হলো সে জীবনপ্রণালীর বাহ্যিক রূপ। আর সভ্যতা বিকাশের পূর্বশর্ত হলো সংস্কৃতি। সংস্কৃতির জন্ম ও টিকে থাকার মাধ্যমে একটি সভ্যতা পূর্ণতা লাভ করে এবং বিকশিত হয়।........’।
মানবজীবনের ক্রমবিবর্তন যখন ইতিবাচক ধারায় সূচিত হয় তখনই তা সভ্যতা হয়ে ওঠে। আর এর বিপরীত দিকটাই হচ্ছে সভ্যতার সঙ্কট। যার বাস্তব প্রমাণ সাম্প্রতিক বিশ্ব। কারণ, ইদানীং যাদের সভ্যতার প্রতিভূ বলে মনে করা হয় তারাই এখন এর প্রতিপক্ষ হয়ে দাঁড়িয়েছে। ফলে মানবসভ্যতা স্বকীয়তা হারাতে বসেছে। বিশে^র শক্তিধর রাষ্ট্রগুলোও পৃথিবীর সুস্থ, স্বাভাবিক, প্রগতিশীলতা অব্যাহত রাখার ক্ষেত্রে খুব একটা সাফল্য দেখাতে পারছে না। যুক্তরাষ্ট্র, কানাডা, ইতালি, ব্রিটেন, ফ্রান্স, জার্মানি ও জাপান জি-সেভেন নামে যা করছে তা মানবসভ্যতার গলার কাঁটা হয়ে দেখা দিয়েছে। ন্যাটো বাহিনী ব্যবহৃত হচ্ছে মধ্যপ্রাচ্যের গণহত্যা ও আগ্রাসী যুদ্ধের কাজে। বিশ্বের ক্ষমতাহীন রাষ্ট্রগুলোও উন্নত বিশ্বব্যবস্থা ও রাষ্ট্রব্যবস্থার পক্ষে ইতিবাচক নয় বরং অনাকাক্সিক্ষত লেজুড়বৃত্তির বৃত্তেই আটকা পড়েছে। সমাজপতি, দার্শনিক, বুদ্ধিজীবী, সুশীলসমাজ, বৈজ্ঞানিক ও চিন্তাবিদরা এ ক্ষেত্রে সঠিক ভূমিকা পালন করতে পারছেন না। ফলে মানবসভ্যতা এখন খাদের কিনারে এসে দাঁড়িয়েছে।
আর এই অনাক্সিক্ষত প্রবণতা থেকে আমরাও মুক্ত নই বরং ক্ষেত্র বিশেষে আমাদের অবস্থা আরো শোচনীয়। আমাদের রাষ্ট্রাচারের ক্রমবিবর্তন ইতিবাচক হিসেবে প্রচার পেলেও সার্বিক পরিস্থিতি মোটেই ইতিবাচক নয়। আর এর নেতিবাচক প্রভাব পড়েছে আমাদের সমাজ, সংস্কৃতি সর্বোপরি জাতীয় জীবনে। ফলে আমাদের ‘সংস্কৃতি’ এখন ‘অপসংস্কৃতি’তে রূপান্তরিত হয়েছে। রাজনৈতিক বিরোধ ও সমস্যার রাজনৈতিক সংস্কৃতি দিয়ে সমাধান করা হচ্ছে না। বরং শাসকগোষ্ঠী তথাকথিত সংস্কৃতি এবং নানা অপবিশেষণের ব্যবহার করে রাজনৈতিক প্রতিপক্ষদের মোকাবেলা করার অঘোষিত যুদ্ধ চালিয়ে যাচ্ছে। আর এ ক্ষেত্রে সভ্যতা, ভব্যতা, সংস্কৃতি ও মূল্যবোধের তোয়াক্কা করা হচ্ছে না। মূলত মাত্রাতিরিক্ত অবক্ষয় ও মূল্যবোধের অনুপস্থিতির কারণেই দেশে ধর্ষণের সংস্কৃতি, হত্যা, সন্ত্রাস ও নৈরাজ্যের সংস্কৃতি, প্রশ্নপত্র ফাঁসের সংস্কৃতি, সিন্ডিকেট সংস্কৃতি, জুলুম-জবরদস্তির সংস্কৃতি, মিথ্যাচারের সংস্কৃতি, বিচারহীনতার সংস্কৃতি, ঘুষ-দুর্নীতির সংস্কৃতি, ভোট চুরির সংস্কৃতি, স্বেচ্ছাচারিতার সংস্কৃতি, নারী নির্যাতনের সংস্কৃতি আমাদের জাতীয় জীবনের অবিচ্ছেদ্য অংশ হয়ে গেছে।
মূলত সভ্যতার ক্রমবিকাশ এমন সব কাজের মধ্য দিয়ে হয়, যেগুলো ইতর প্রাণীর মধ্যে দেখা যায় না। যেমন আগুনের ব্যবহার, পানির ব্যবহার। মানুষ জলবায়ু ও প্রকৃতিকে নিজের স্বার্থে কাজে লাগাতে সফলতা দেখিয়েছে। মানুষ পরিবার, প্রতিষ্ঠান, সংগঠন ও রাষ্ট্র গঠন করে। তারা বিশ্বব্যবস্থা গড়ে তুলেছে। রাষ্ট্রের আছে প্রশাসনব্যবস্থা, বিচারব্যবস্থা, শিক্ষাব্যবস্থা। মানুষের আছে প্রগতিশীল জ্ঞান-বিজ্ঞান, শিল্প-সাহিত্য; সর্বোপরি রাজনীতি ও অর্থনীতি। এসবেরই মধ্যে আছে নৈতিক চেতনা, ভালো-মন্দ, সুন্দর-কুৎসিত ও ন্যায়-অন্যায়ের উপলব্ধি। মানুষের বিবেক আছে। বিবেক আর সত্য, ন্যায় ও সুন্দর হলো সভ্যতার মর্মগত অবলম্বন। কিন্তু এসব ক্ষেত্রে আমাদের বিচ্যুতি রীতিমতো উদ্বেগজনক পর্যায়েই পৌঁছেছে।
সভ্যতার ক্রমবিবর্তনের সূচনা মানুষের হাত ধরে হলেও তা কলঙ্কিত হচ্ছে আবার মানুষের কর্মের মাধ্যমেই। সে ধারাবাহিকতায় বিংশ শতাব্দীর শুরু থেকেই সারা বিশ্বেই অনাকাক্সিক্ষতভাবেই যুদ্ধবিগ্রহ বেড়ে গেছে। আন্তর্জাতিক সম্পর্ক ও বিশ্বব্যবস্থার কল্যাণকামিতারও ঘটেছে বড় ধরনের বিচ্যুতি। আগুন-পানি ও প্রকৃতির ব্যবহার, বৃহৎ শক্তিগুলো এমনভাবে করে চলছে যে প্রকৃতি মানুষের প্রতিকূল হয়ে পড়েছে। বৈশ্বিক উষ্ণতা এখন ক্রমবর্ধমান। সমুদ্রে পানির উচ্চতা আশঙ্কাজনকভাবে বাড়ছে। ফলে অদূর ভবিষ্যতে পৃথিবীর স্থলভাগের এক-তৃতীয়াংশ পানির নিচে তলিয়ে যাওয়ার আশঙ্কাও দেখা দিয়েছে। পরিবার, প্রতিষ্ঠান, সংগঠন, রাষ্ট্রব্যবস্থার বিচ্যুতি ঘটছে প্রতিনিয়ত। কায়েমি স্বার্থে প্রশাসন, বিচারব্যবস্থা, শিক্ষাব্যবস্থার ইতিবাচক বৈশিষ্টগুলো নষ্ট করে ফেলা হচ্ছে। জ্ঞান-বিজ্ঞান ও শিল্প-সাহিত্যের অপব্যবহার বর্বরতা ও ধ্বংসের পালেই হাওয়া দিচ্ছে। রাজনীতি, অর্থনীতি ও সমাজনীতি ব্যবহৃত হচ্ছে শ্রেণী, গোষ্ঠী ও ব্যক্তি স্বার্থে। সাধারণ মানুষ সবরকম অন্যায়-অবিচার, জুলুম-জবরদস্তি ও মিথ্যাচারকে মেনে নিয়েছে বা নিতে বাধ্য হচ্ছে। সঙ্গত কারণেই সমাজ-রাষ্ট্রে যারা কর্তৃত্ব করছে তারা অন্ধকারের শক্তি হিসেবে বিবেচিত হতে শুরু করেছে।
পৃথিবীর বিভিন্ন জাতির অন্ধকার যুগের অবস্থায় ভিন্নতা রয়েছে। প্রত্যেক জাতির ইতিহাস এক ও অভিন্নও নয়। তবে কিছু বিষয়ে সব জাতির মধ্যে মিলও রয়েছে। তাই সভ্যতার সঙ্কট মোকাবেলায় বহুজাতিক ঐক্যের আবশ্যকতার বিষয়টিও অনস্বীকার্য। তবে সে ক্ষেত্রে কোনো জাতিরই নিজস্ব সঙ্কটকে পাশ কাটানোর সুযোগ নেই বা আন্তর্জাতিক কোনো শক্তির ওপর নির্ভরশীল থাকাও উচিত নয়। সে ক্ষেত্রে নিজ নিজ সমস্যা নিজ উদ্যোগেই সমাধান করে নেয়া উচিত। কিন্তু দুঃখজনক হলেও সত্য, বর্তমান বিশ^ব্যবস্থায় যে অবস্থা চলছে তাতে বিশ্বব্যাংক ও তার সহযোগী শক্তিগুলোকে দেখা যাচ্ছে বৈশ্বিক সরকারের ভূমিকা পালন করছে। এ ক্ষেত্রে জাতিসঙ্ঘের ভূমিকাও প্রশ্নাতীত থাকেনি। চীন ও রাশিয়া কখনো কখনো ভেটো ক্ষমতা প্রয়োগ করে ইতিবাচক কিছু করার চেষ্টা করছে। তবে তা পর্যাপ্ত মনে করার সুযোগ নেই।
সভ্যতার সঙ্কট ও বৈশ্বিক রাজনীতির কুপ্রভাব থেকে আমরাও মুক্ত নই। আমাদের দেশের রাজনীতি ও রাজনৈতিক দলের ইতিবাচক পরিসরে গড়ে ওঠার যে সম্ভাবনা ছিল তাও আমরা ইতোমধ্যে হাতছাড়া করে ফেলেছি। সাম্প্রতিক বছরগুলোতে আমাদের দেশে শুরু হয়েছে বিরাজনীতিকীকরণ ও বিরাষ্ট্রকরণের কার্যক্রম। দেশকে কার্যকর রাষ্ট্র হিসেবে গড়ে তোলার প্রচেষ্টা থেকে আমরা যোজন যোজন দূরেই অবস্থান করছি। রাজনৈতিক শক্তিগুলো রাজনীতিকে করে ফেলেছে বৃহৎ শক্তিবর্গের স্থানীয় দূতাবাস অভিমুখী, যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের স্টেট ডিপার্টমেন্টের নির্দিষ্ট ডেস্ক অভিমুখী। দেশের শিক্ষাব্যবস্থাকে গণমুখী করে গড়ে তোলা হয়নি। বিচারব্যবস্থার বিচ্যুতিও জনদুর্ভোগের কারণ হওয়ার অভিযোগও বেশ জোরালো। গণপ্রশাসন ঘুষ-দুর্নীতি ও লাগামহীন স্বেচ্ছাচারে নিজেদের স্বকীয়তা হারিয়েছে। গণতন্ত্র, সমাজতন্ত্র, জাতীয়তাবাদ, ধর্মনিরপেক্ষতাবাদ, রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম এসব কথা সংবিধানে লেখা আছে ঠিকই, কিন্তু বাস্তবে তার প্রতিফলনটা খুবই গৌণ। অবস্থাটা ‘কাজীর গরু কিতাবে আছে, গোয়ালে নেই’ ঠিক এমনই।
’৮০-এর দশকের শুরু থেকে ক্রমাগত বলা হচ্ছে অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচনের কথা। এর মধ্যে সুষ্ঠু নির্বাচনের জন্য অন্তর্বর্তীকালীন নির্দলীয় সরকার গেছে, গেছে জরুরি অবস্থাও। কিন্তু সার্বিক অবস্থার ক্রমাবনতিই হয়েছে বলতে হবে। রাষ্ট্রীয় ও সামাজিক সব প্রতিষ্ঠান স্বকীয়তা হারিয়েছে। দেশের গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠানগুলোই এখন গণতন্ত্রের প্রতিপক্ষ হয়ে দাঁড়িয়েছে। দেশ ও জাতি আধুনিক রাষ্ট্র গড়ে তোলার উপযোগী রাজনৈতিক শক্তির শূন্যতা বোধ করছে। রাষ্ট্রাচারের বিচ্যুতি ও অবক্ষয়ের জয়জয়কারের কারণেই পরিবারব্যবস্থা দারুণভাবে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে। লাগামহীন বিয়েবিচ্ছেদ, পরকীয়া, স্বামী-স্ত্রীতে কলহ-সন্দেহ ও অবিশ্বাস, স্বামীর হাতে স্ত্রী হত্যা, স্ত্রীর হাতে স্বামী হত্যা এখন নিত্যদিনের ব্যাপার হয়ে দাঁড়িয়েছে, যা মূল্যবোধহীন কথিত সভ্যতার বিষবৃক্ষের ফল হিসেবেই স্বীকৃত।
মূলত মূল্যবোধহীন সভ্যতা ও সংস্কৃতির নামে অপসংস্কৃতিই মানবসভ্যতা ধ্বংসের মুখোমুখি দাঁড় করিয়েছে। বিশ্বে যতগুলো ফলপ্রসূ সভ্যতা ও বিপ্লব এসেছে তার সবই আদর্শ ও মূল্যবোধকে আঁকড়ে ধরেই। ইতিহাস পর্যালোচনায় দেখা যায়, অষ্টাদশ শতকে ফরাসিদের মধ্যে যে দু’টি বৈশিষ্ট্য লক্ষ করা যেত, তা হলোÑ মূল্যবোধ ও ন্যায্যতা। ফলে তারা একটি সফল ও সার্থক বিপ্লব সাধনে সমর্থ হয়েছিল। সমসাময়িক ভারতীয় উপমহাদেশের অবস্থা ফরাসিদের সাথে তুলনীয় না হলেও সে সময় ভারতবর্ষে যে মূল্যবোধের চর্চা ছিল না, তা বলা যাবে না। তবে এক রূঢ় বাস্তবতায় মূল্যবোধ ও নায্যতার ক্ষেত্রে আমাদের দেশের অবস্থা একেবারে প্রান্তিকতায় এসে ঠেকেছে। যা স্বাধীন-সার্বভৌম রাষ্ট্র ও সভ্য সমাজের চরিত্র এবং বৈশিষ্ট্যকেই দুর্বল ও প্রশ্নবিদ্ধ করেছে।
বস্তুত, মূল্যবোধ স্বয়ংক্রিয়ভাবে জাগ্রত হয় না বরং রাষ্ট্রীয়, সামাজিক ও পারিবারিক পরিসরে এ জন্য অনুকূল পরিবেশ সৃষ্টি করা আবশ্যকতা দেখা দেয়। এ ক্ষেত্রে নৈতিক শিক্ষার বিষয়টি খুবই গুরুত্বপূর্ণ। যেহেতু আধুনিক রাষ্ট্রব্যবস্থায় রাষ্ট্রই নাগরিকের সব কিছুই দেখভাল করে, তাই মূল্যবোধের লালন ও চর্চার পরিবেশ সৃষ্টির দায়িত্বও রাষ্ট্রের। তাই নাগরিকদের জন্য রাষ্ট্রের প্রথম কর্তব্য হবে নৈতিক শিক্ষা, মূলবোধের চর্চা ও সুস্থ ধারার সংস্কৃতি উৎসাহিত করা এবং সার্বিক পৃষ্ঠপোষকতা দেয়া। তাহলেই সভ্যতার উৎকর্ষতাকে ইতিবাচক ধারায় ফিরে আনা সম্ভব।
এ ক্ষেত্রে সুশিক্ষাই কাক্সিক্ষত ও প্রত্যাশিত। কেউ যখন সুশিক্ষিত হয়ে ওঠে তখন তার মধ্যে স্বয়ংক্রিয়ভাবেই নৈতিকতা ও মূল্যবোধের সৃষ্টি হয়; ব্যক্তি হয়ে ওঠে সংস্কৃতিবান। তিনি অবক্ষয়মুক্ত থাকার চেষ্টা করেন। আর তা ফুলে-ফলে সুশোভিত করার জন্য প্রয়োজন হয় পরিবার, সমাজ ও রাষ্ট্রের অনুকূল পরিবেশ বা পৃষ্ঠপোষকতা। সুশিক্ষিত তিনিই যিনি তার শিক্ষাকে সৎ আর ন্যায়ের পথে নিয়োজিত করেন। যৌক্তিক বিষয়াদিকে যৌক্তিক বোঝার পর নিজ স্বার্থের দিকে নজর না দিয়ে, অযৌক্তিকতাকে দূরে ঠেলে দিয়ে সুন্দরকে প্রতিষ্ঠিত করার ব্রত গ্রহণ করেন।
সভ্যতা, সংস্কৃতি ও মূল্যবোধের চর্চার সাথে রাজনীতির নিবিরতম সম্পর্ক রয়েছে। কারণ, রাজনীতির পরিসর খুবই বৃহৎ। রাজনীতি দেশ ও জনগণের আমূল কল্যাণের জন্য আবর্তিত হয়। এতে মূল্যবোধ আর ন্যায্যতার ভিত্তি মজবুত না থাকলে কল্যাণের পরিবর্তে অকল্যাণই হয় বেশি। রাজনীতিকদের যদি মূল্যবোধের স্তর নি¤œমানের হয় তবে তা আর রাজনীতি থাকে না বরং অপরাজনীতি হিসেবে আখ্যা পায়। এর কুপ্রভাবে হাজারো মূল্যবোধ নষ্ট হয়। ব্যক্তির মূল্যবোধ নষ্ট হলে ক্ষতি শুধু একজনের কিন্তু শাসক শ্রেণীর মূল্যবোধ নিয়ে প্রশ্ন উঠলে পুরো রাষ্ট্রযন্ত্রেই এর নেতিবাচক প্রভাব পড়ে।
মূলত সভ্যতার সঙ্কট, সাংস্কৃতিক বিচ্যুতি ও অবক্ষয়ের মূলে রয়েছে ধর্মবিমুখতা, ধর্মের অপব্যবহার ও ধর্মান্ধতা, ধর্মীয় সঙ্কীর্ণতা, অসহিষ্ণুতা, পারস্পরিক শ্রদ্ধাবোধের অভাব এবং সর্বগ্রাসী অবক্ষয়ের মতো আরো কিছু বিষয়। ধর্মের যথাযথ চর্চা ও অনুশীলন কখনোই ধর্মান্ধতা শেখায় না বরং ধর্মীয় আদর্শের মাধ্যমেই ধর্মান্ধতার অভিশাপ মুক্ত হওয়া সম্ভব। ধর্মই মানুষের জীবনপ্রণালী অন্যান্য ইতর প্রাণী থেকে আলাদা করেছে; মানুষকে সভ্য, সংবেদনশীল ও পরিশীলিত করেছে। সম্পূর্ণ অযৌক্তিকভাবে আমরা ধর্মকে মনে করি এগিয়ে চলার পথের প্রধান অন্তরায়। কিন্তু বাস্তবতা সে ধারণার অনুকূলে কথা বলে না।
মূলত প্রতিটি সভ্যতাই গড়ে উঠেছিল কোনো-না-কোনো ধর্মকে আশ্রয় করে। পৃথিবীর ইতিহাসে এমন একটি সভ্যতা খুঁজে পাওয়া যাবে না, যেটি ধর্মকে বিসর্জন দিয়ে গড়ে উঠেছে। তাই একটি নৈতিক মূল্যবোধসম্পন্ন জাতি সৃষ্টি ও অবক্ষয়হীন সমাজ বিনির্মাণ করতে হলে নাগরিকদের মধ্যে জবাবদিহির অনুভূতি সৃষ্টি, ধর্মীয় মূল্যবোধের সম্প্রসারণ, মূল্যবোধের লালন ও অনুশীলনের কোনো বিকল্প নেই। মনীষী সাইয়্যেদ কুতুবের ভাষায়, ‘যে সমাজে মানবীয় মূল্যবোধ ও নৈতিকতার প্রাধান্য থাকে সে সমাজই সভ্য সমাজ।’ মূলত মূল্যবোধের চর্চার মাধ্যমে মানবসভ্যতাকে গতিশীল ও সুস্থ ধারার সংস্কৃতি চর্চা সম্ভব। অন্যথায় সভ্যতার সঙ্কট ও সঙ্ঘাত মোকাবেলা করা সম্ভব হবে না; বরং সভ্যতার অধঃপতনই অনিবার্য হয়ে উঠবে। হ
ংসসলড়ু@মসধরষ.পড়স

 


আরো সংবাদ

সোয়া তিন লাখ মেট্রিক টন পেঁয়াজ আমদানি করা হয়েছে : বাণিজ্যমন্ত্রী মসজিদে মাইক ব্যবহারের অনুমতি দিল না ভারতের আদালত সিএএ-এনআরসি ইস্যুতে বিজেপি জোট ছাড়ল দুই দল আয়না পড়ায় চোর শনাক্ত! এসএসসি পরীক্ষার্থীকে মারধর গৃহবধূ ধর্ষণের ঘটনায় এসআই খায়রুলের সম্পৃক্ততা নেই : পিবিআই স্কটল্যান্ডের বিপক্ষে বাংলাদেশের দুর্দান্ত জয় হরমুজ প্রণালীতে যুদ্ধজাহাজ পাঠাচ্ছে দ. কোরিয়া মায়ের পা ধুয়ে সম্মান জানালো শিক্ষার্থীরা ২৪ ঘণ্টায় নতুন ৪ ডেঙ্গু রোগী শনাক্ত : স্বাস্থ্য অধিদপ্তর ‘করোনা’ ভাইরাস ঠেকাতে চট্টগ্রাম বিমানবন্দরে চীনা যাত্রীদের স্ক্রিনিং স্পিকারের সাথে নেপালের রাষ্ট্রদূতের সাক্ষাৎ

সকল




krunker gebze evden eve nakliyat