২১ ফেব্রুয়ারি ২০১৯

স্মরণ : আসাদুজ্জামান খান

-

জন্ম কিশোরগঞ্জে, ১৯১৬ সালে। প্রখ্যাত আইনজীবী ও রাজনীতিবিদ। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বিএ অনার্স (ইতিহাস), এম এ (ইতিহাস) এবং ল পাস। ১৯৩৮-১৯৩৯ সালে সলিমুল্লাহ মুসলিম হল ছাত্র সংসদের সহসভাপতি। ১৯৪১ সালে বেঙ্গল সিভিল সার্ভিসে (জুনিয়র) যোগদান। ১৯৪৫ সালে যোগ দেন জুডিশিয়াল সার্ভিসে। প্রায় ছয় বছর মুনসেফ পদে দায়িত্ব পালনের পর ১৯৫১-তে চাকরি থেকে পদত্যাগ করেন। ১৯৫২-তে আইনের পার্ট-টাইম লেকচারার হিসেবে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে এবং একই সাথে ঢাকা জেলা আদালতে আইন ব্যবসায় যোগদান করেন। কালক্রমে ঢাকা হাইকোর্টের একজন শীর্ষস্থানীয় আইনজীবী হিসেবে প্রতিষ্ঠা লাভ করেন। ১৯৬৫ সালের ১৬ মে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে কিশোরগঞ্জের হোসেনপুর এলাকা থেকে তদানীন্তন পূর্ব পাকিস্তান প্রাদেশিক পরিষদের সদস্য নির্বাচিত হন। একই বছর ১১ জুন পরিষদে স্বতন্ত্র দল গঠন করে এর নেতৃত্ব গ্রহণ করেন। ১৯৬৭ সালের ১২ অক্টোবর পরিষদের বিরোধী দলের নেতা নির্বাচিত হন। ১৯৬৯ সালের ২৪ মার্চ সংসদ বাতিল না হওয়া পর্যন্ত এ পদে দায়িত্ব পালন করেছিলেন। অতঃপর আওয়ামী লীগে যোগ দেন। ১৯৭০ সালের ৭ ডিসেম্বর এ দলের প্রার্থী হিসেবে ময়মনসিংহ-১৫ আসন থেকে তৎকালীন পাকিস্তান জাতীয় পরিষদের সদস্য নির্বাচিত হন। ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধকালে মুজিবনগর গমন করেন এবং বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে সক্রিয় ভূমিকা পালন করেন। ১৯৭২ সালে সংবিধান প্রণয়ন কমিটির সদস্য হিসেবে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশের সংবিধান (১৯৭২) রচনায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখেন। ১৯৭৩ সালের ৭ মার্চ ময়মনসিংহ-২৬ আসন থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। ১৯৭৫ সালের ২৬ জানুয়ারি শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বাধীন মন্ত্রিপরিষদে পাটমন্ত্রী নিযুক্ত হন। একই বছর ২৪ ফেব্রুয়ারি কৃষক শ্রমিক আওয়ামী লীগ গঠিত হলে এর কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য নিযুক্ত হন। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট রাষ্ট্রপতি শেখ মুজিব সামরিক বাহিনীর কিছু সদস্যের হাতে নিহত হওয়ার পর খোন্দকার মোশতাক আহমদ রাষ্ট্রপতি হলে বন্দর, জাহাজ চলাচল ও অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন দফতরের মন্ত্রী নিযুক্ত হন। নভেম্বর মাসের প্রথম দিকেই মন্ত্রিসভা বাতিল হয়ে যায়। ১৯৭৯ সালের ১৮ ফেব্রুয়ারি ময়মনসিংহ-১৮ আসন থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়ে ২৯ মার্চ আওয়ামী লীগের সংসদীয় দলের নেতা এবং সেই সাথে সংসদে বিরোধী দলের নেতা নির্বাচিত হন। ১৯৮২ সালের ২৪ মার্চ পর্যন্ত উভয় পদে দায়িত্ব পালন করেন। অভিজ্ঞ ও বিচক্ষণ পার্লামেন্টারিয়ান ছিলেন। ষাটের দশকে আমাদের স্বাধিকার আন্দোলনে তার অবদান উল্লেখযোগ্য। মৃত্যু, ঢাকা, ২১.১.১৯৯২ সালে। হ


আরো সংবাদ

Hacklink

ofis taşıma Instagram Web Viewer

canli radyo dinle

Yabanci Dil Seslendirme