১৪ নভেম্বর ২০১৯

বিদেশি শিল্পীর বিজ্ঞাপনে অতিরিক্ত কর দিতে হবে : তথ্যমন্ত্রী

ভারতী মডেলরা এখন বাংলাদেশী পণ্যের মডেল হন - ছবি : সংগৃহীত

বিদেশি শিল্পীর বিজ্ঞাপনে অতিরিক্ত কর দিতে হবে জানিয়ে তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, দেশে-বিদেশি শিল্পী দিয়ে বিজ্ঞাপন নির্মাণের ক্ষেত্রে একটি নিয়ম প্রবর্তনের উদ্যোগ নেয়া হবে। বৃহস্পতিবার সচিবালয়ে দেশের ক্যাবল টেলিভিশন নেটওয়ার্ককে ডিজিটাল পদ্ধতির আওতাভুক্ত করার বিষয়ে এক মতবিনিময় সভায় তিনি এ কথা বলেন।

মন্ত্রী বলেন,‘আমাদের দেশের ছেলেমেয়েরা অনেক সুন্দর ও স্মার্ট এবং তারা অনেকেই বিশ্বমানের পর্যায়ে পড়ে। কিন্তু দেখা যায় তাদের দিয়ে বিজ্ঞাপন তৈরি না করে বিদেশের দ্বিতীয় সারির শিল্পী দিয়ে বিজ্ঞাপন বানানো হচ্ছে, যা সমীচীন নয়।’

দেশে যখন শুধু বিটিভি ছিল তখন বিদেশি শিল্পী দিয়ে বানানো বিজ্ঞাপন প্রচারে অতিরিক্ত কর দিতে হতো জানিয়ে তিনি বলেন, ‘সেই নিয়মটি পুনঃপ্রবর্তনের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। উন্মুক্ত অর্থনীতির বাজারে যে কেউ হলিউড বা বাইরের যেকোনো শিল্পী দিয়ে বিজ্ঞাপন বানাতে পরেন। কিন্তু সে জন্য বেশি কর দিতে হবে। এ ক্ষেত্রে আমরা একটি নিয়ম প্রবর্তনের উদ্যোগ গ্রহণ করব। ইতিমধ্যে সংশ্লিষ্টদের চিঠি দিয়েছি। সবার সাথে আলোচনা করেই সিদ্ধান্ত নেব।।’

দেশি-বিদেশি সব অবৈধ ডাইরেক্ট টু হোম (ডিটিএইচ) সংযোগ ১৫ ডিসেম্বরের মধ্যে বন্ধ করতে হবে এবং তা করা না হলে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানান তথ্যমন্ত্রী।

‘দেশের দুটি কোম্পানিকে ডিটিএইচের লাইসেন্স দেয়া হয়েছে। তবে বিদেশি ডিটিএইচ প্রযুক্তি ব্যবহারের কোনো অনুমোদন সরকার দেয়নি। কিন্তু অনেক জায়গায় দেখা যাচ্ছে বিদেশি ডিটিএইচ ব্যবহার করা হচ্ছে, যেগুলো সম্পূর্ণ অবৈধ। আগামী ১৫ ডিসেম্বরের মধ্যে এসব অবৈধ সংযোগ সরিয়ে নিতে হবে। এরপর আমরা ব্যবস্থা নেব। অভিযানে যাদের কাছে ডিটিএইচ পাওয়া যাবে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে,’ বলেন তিনি।

জরিমানার বিষয়ে মন্ত্রী জানান, কোনো ব্যক্তি অপরাধ করলে সর্বোচ্চ দুই বছরের কারাদণ্ড এবং সর্বোচ্চ এক লাখ থেকে সর্বনিম্ন ৫০ হাজার টাকা অর্থদণ্ড করা হবে। আর দ্বিতীয়বার এ অপরাধ করলে তিন বছরের কারাদণ্ড এবং এক থেকে দুই লাখ টাকা জরিমানার বিধান আছে।

ডাবিং করে প্রচারিত বিদেশি সিরিয়াল সেন্সর করা নিয়ে তিনি বলেন, ‘যারা প্রদর্শন করছেন তারা অনুমোদনের আবেদন করেছেন। যেহেতু এসব সিরিয়ালের কিছু দর্শক রয়েছে তাই সেগুলো চালানোর অনুমোদন দিচ্ছি। তবে ভবিষ্যতে যেন এসব সিরিয়াল সেন্সর বোর্ড হয়ে আসে সে জন্য কমিটি হচ্ছে।’

টিভিতে চ্যানেলগুলোর সিরিয়াল প্রসঙ্গে হাছান মাহমুদ বলেন, ‘আগে চ্যানেলগুলোর সিরিয়াল মানা হচ্ছিল না। পরে আমরা কেবল অপারেটরদের নির্দেশনা দিয়েছি বাংলা চ্যানেলগুলো শুরুর দিকে রাখার জন্য। এ জন্য ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করা হয়। এখন ৯৮ ভাগ ক্ষেত্রে সিরিয়াল মানা হচ্ছে। কোথাও না মানলে ব্যবস্থা নেয়া হবে।’ সূত্র : ইউএনবি


আরো সংবাদ