১৯ নভেম্বর ২০১৯

প্রত্যক্ষদর্শী ছাত্রের বর্ণনায় আবরার হত্যাকাণ্ড

-

বাংলাদেশ প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) ইলেকট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেকট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং (ইইই) বিভাগের ছাত্র আবরার ফাহাদের পাশের রুমের একজন ছাত্র অনেকটা ভয়ে গতকাল দুপুরের পর আবরার মারা যাওয়ার আগের সময়ের বর্ণনা দিয়ে বলেছেন, আবরারকে যখন ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা ডেকে নিয়ে যায় তখন থেকেই তার রুমমেটসহ অনেকেই আতঙ্কে ছিলেন। তারা যে তাকে ডেকে নিয়ে পিটিয়ে মেরে ফেলবে এমন ধারণা তাদের ছিল না। রাত যখন ২টা বাজে তখন আমাদের একজন সহপাঠী দেখেন আবরারকে তোশকের মধ্যে পেঁচিয়ে নেতারা সিঁড়ির মধ্যে ফেলে গেছেন। তখনো আবরার জীবিত ছিল। ওই সময়ও তাকে দ্রুত হাসপাতালে নিয়ে চিকিৎসা দেয়া হতো তাহলেও মনে হয় আবরার বেঁচে যেতো। এর আগে নিহতের মামা এ প্রতিবেদককে বলেন, আবরারের মা রোববার রাত ৩টার পর আমাকে ফোন দিয়ে বলেন, হলে আবরারের কী কেনো সমস্যা হয়েছে। এরপরই তিনি একটি মোবাইল নাম্বার দিয়ে আমাকে যোগাযোগ করতে বললেন। এরপরই আমি সকাল ৬টার দিকে এসে জানতে পারি আবরার রাতেই মারা গেছে।

আবরারকে হত্যাকরা রুমে নিয়মিত মদের আসর : বুয়েট শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদকে যে রুমে ডেকে নিয়ে মারধর করা হয় সে রুমে নিয়মিত মদের আসর বসত বলে একাধিক শিক্ষার্থী জানান। জানা যায়, ওই রুমে থাকতেন বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের আইনবিষয়ক উপসম্পাদক ও সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের ছাত্র অমিত সাহা, উপদফতর সম্পাদক ও কেমিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের ছাত্র মুজতাবা রাফিদ, সমাজসেবাবিষয়ক উপ সম্পাদক ও বায়োঃমেডিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের ছাত্র ইফতি মোশাররফ সকাল এবং প্রত্যয় মুবিন। রোববার সকালে কক্ষটিতে পুলিশ অভিযান চালালে সেখান থেকে কয়েকটি মদের বোতল, চাইনিজ ছুরি এবং পাঁচ-ছয়টি ক্রিকেট খেলার স্ট্যাম্প উদ্ধার করা হয়। এর মধ্যে কিছু স্ট্যাম্প ভাঙা ছিল। হলের একাধিক শিক্ষার্থী জানান, ওই রুমে সবসময় মদপান চলত। রুমে যারা থাকত তারা রাতে মদ খেয়ে বিভিন্ন সময় চিৎকার-চেচামেচি করত। কেউ প্রতিবাদ করতে গেলে গালিও শুনতে হত। আশপাশের রুমে যারা থাকে তারা ভালোভাবে ঘুমাতে পারত না।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে এক ছাত্রলীগ নেতা জানান, এটি ছাত্রলীগের রাজনৈতিক কক্ষ হিসেবে ব্যবহার করা হতো। এমনকি তারা কাউকে তুলে নিয়ে এসে এই কক্ষে নির্যাতনও করত। তারা টর্চারসেল হিসেবে এই রুমটি ব্যবহার করত।

জড়িতদের বহিষ্কার করবে ছাত্রলীগ : আবরার হত্যা ঘটনায় যারা জড়িত তাদেরকে সংগঠন থেকে বহিষ্কার করা হবে বলে জানিয়েছেন ছাত্রলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আল নাহিয়ান খান জয়। গতকাল দুপুরে ঢাবির মধুর ক্যান্টিনে এক সংবাদ সম্মেলন করে এ কথা বলেন তিনি। সংবাদ সম্মেলনে হত্যার ঘটনায় দুই সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। তদন্ত কমিটির সদস্যরা হলেন- কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সভাপতি ইয়াজ আল রিয়াদ ও ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সাংস্কৃতিক সম্পাদক আসিফ তালুকদার। তদন্ত কমিটিকে ২৪ ঘণ্টার মধ্যে সুপারিশসহ তদন্ত প্রতিবেদন কেন্দ্রীয় দফতর সেলে জমা দেয়ার জন্য বলা হয়েছে। ছাত্রলীগ সভাপতি আল নাহিয়ান খান জয় বলেন, ছাত্রলীগ কখনো হত্যার রাজনীতিতে বিশ্বাস ও সমর্থন করে না। যারা এ ঘটনায় জড়িত তাদেরকে অবশ্যই বহিষ্কার করা হবে এবং প্রশাসন যাতে সুষ্ঠুভাবে তদন্ত করতে পারে সে সহযোগিতা করা হবে। তিনি ফাহাদের পরিবার ও সহপাঠীদের প্রতি সমবেদনাও জানান।

 


আরো সংবাদ