২৪ আগস্ট ২০১৯

যমুনার পানি বিপদসীমার ৯৯সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত

যমুনার পানি বিপদসীমার ৯৯সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত - নয়া দিগন্ত

২৪ ঘন্টায় ৮ সেন্টিমিটার বেড়ে শুক্রবার সিরাজগঞ্জ পয়েন্টে যমুনা নদীর পানি বিপদ সীমার ৯৯ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে বইছে। পানি বৃদ্ধির কারণে জেলার সার্বিক বন্যা পরিস্থিতির আরো অবনতি হয়েছে।

সরেজমিনে, সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলার খোকসাবাড়ি বাঁধের পূবপাশে কয়েকটি গ্রামের বাড়িঘর তলিয়ে গেছে। ঘরের চল বরাবর পানি ছুইছুই করছে। গবাদি পশু নিয়ে মানুষ উচু বাঁধে আশ্রয় নিয়েছে। খোকসাবাড়ি ইউনিয়নের খলিশাকুড়া গ্রামের মোয়াজ্জেম হোসেনের বাড়ির ঘরের চাল পর্যন্ত পানি। বাঁধে আশ্রয় নেয়া তার স্ত্রী চায়না খাতুন অভিযোগ করে বলেন, আমি ত্রান পাইনি। একই গ্রামের আলমের স্ত্রী এসমত আরা, আবু সাইদের মেয়ে সোনিয়া খাতুন, মৃত শুকুর আলীর স্ত্রী তারা বানু, মৃত জাবেদ আলী সেখের স্ত্রী অমেলা বেগম, মৃত কাশেম আলীর ছেলে আশরাফ আলী, জঙ্গের আলীর স্ত্রী সুখি বেগম, রফিকুলের স্ত্রী জাহান আরা, আব্দুল কুদ্দসের স্ত্রী আয়শা খাতুন, মৃত শুকুর আলীর স্ত্রী জহুরা বেগম ত্রান না পাওয়ার অভিযোগ করেন। ত্রান বিতরণে স্বজনপ্রীতির অভিযোগ করেন তারা। তবে খোকসাবাড়ি ইউনিয়নের বন্যার্তদের জন্য গত দুই দিনে দুই মেট্রিক টন চাল বিতরণ করা হয়েছে।

প্রতিটি ওয়ার্ডে মাত্র ১৩ জনকে সহায়তা দেয়া সম্ভব হয়েছে বলে ৩ নং ওয়ার্ডের মেম্বর শাহাদত হোসেন এবং ২ নং ওয়ার্ডের মেম্বর আব্দুল মান্নান জানিয়েছেন। তবে চাহিদার তুলনায় ত্রান অপ্রতুল। পর্যাপ্ত ত্রান সামগ্রী, আরো নলকুপ ও টয়লেট বরাদ্দের দাবি জানান তারা। খোকসাবাড়ি ইউপি চেয়ারম্যান রাশিদুল হাসান রশিদ জানিয়েছেন, ত্রান দেয়া শুরু হয়েছে, আরো ত্রান দেয়া হবে। রেড ক্রিসেন্ট শুকনো খাবার বিতরণ করেছে। গবাদি পশুর খাদ্য বিতরনের জন্য তালিকা তৈরি হচ্ছে। আশ্রয় শিবিরে বিশুদ্ধ পানির জন্য নলকুপ ও টয়লেট স্থাপন করা হয়েছে। শুক্রবার সদর আসনের এমপি ডা: হাবিবে মিল্লাত মুন্না বন্যা কবলিত এলাকা পরিদর্শন করে বন্যার্তদের সব ধরনের সহায়তার আশ্বাস দিয়েছেন।

যমুনা নদীতে যে পরিমান পানি বেড়েছে;কোনো রকমে বাঁধ ফেইল করলে সিরাজগঞ্জ শহরসহ পুরো জেলা বন্যা কবলিত হয়ে পড়বে। তাই বাঁধ যাতে লিকেজ কিংবা ফেইল না করে সে জন্য পানি উন্নয়ন বোর্ড সতর্ক পাহারা বসিয়েছে বলে জানিয়েছে। ইতোমেধ্যে পাউবোর লোকজন বালির বস্তা ব্যবহার করে বাঁধ উচু করেছে। বাঁধের স্লাইডিং ও লিকেজিং মেরামত অব্যাহত রয়েছে।

সিরাজগঞ্জ জেলা ত্রাণ ও পুনর্বাসন অফিস জানিয়েছে, সিরাজগঞ্জ সদর, কাজিপুর, বেলকুচি, চৌহালী ও শাহজাদপুর উপজেলার ২৫ হাজার পরিবার বন্যায় ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। পানিবন্দি হয়েছে প্রায় দুই লাখ মানুষ। জেলা কৃষি অফিস জানিয়েছে জেলায় প্রায় সাড়ে ছয় হাজার হেক্টর জমির পাট, রোপা আমন,আউশ ও সবজির ক্ষেত তলিয়ে গেছে। বন্যার্তদের জন্য ২৫৫ মোট্রক টন চাল ও নগদ পাঁচ লাখ টাকা বরাদ্দ দিয়েছে জেলা প্রশাসন।


আরো সংবাদ




mp3 indir bedava internet