২২ আগস্ট ২০১৯
রাষ্ট্রপক্ষের আবেদনের নিষ্পত্তি

বিএনপির শীর্ষ নেতাদের জামিন বহাল

বিএনপির শীর্ষ নেতাদের জামিন বহালই থাকলো - ফাইল ছবি

বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ ১৪ শীর্ষ নেতার বিরুদ্ধে নাশকতার অভিযোগে দায়ের করা একাধিক মামলায় হাইকোর্টের দেয়া জামিন স্থগিত চেয়ে রাষ্ট্রপক্ষের আবেদনের নিষ্পত্তি করেছেন আপিল বিভাগ। বৃহস্পতিবার প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের নেতৃত্বাধীন আপিল বিভাগের বেঞ্চ কিছু অবজারভেশনসহ রাষ্ট্রপক্ষের আবেদন নিষ্পত্তি করে এই আদেশ দেন। এ বিষয়ে পরে লিখিত আদেশ দেবেন বলে আপিল বিভাগ জানিয়েছেন।

এই আদেশের ফলে হাইকোর্ট বিএনপি নেতাদের যে আগাম জামিন দিয়েছেন তা নাকচ হয়নি এবং তাদের আগাম জামিন বহাল রয়েছে। এছাড়া আপিল বিভাগ তার লিখিত আদেশে আগাম জামিনের বিষয়ে গাইড লাইন দেবেন বলে খন্দকার মাহবুব হোসেন জানিয়েছেন।

বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর ছাড়া বিএনপির অন্য নেতারা হলেন- বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ, ড. আবদুল মঈন খান, মির্জা আব্বাস, আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী, নজরুল ইসলাম খান, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, দলের ভাইস চেয়ারম্যান খন্দকার মাহবুব হোসেন ও বরকত উল্লাহ বুলু, দলের সাংগঠনিক সম্পাদক রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলু, বানিজ্যবিষয়ক সম্পাদক সালাউদ্দিন আহমেদ, ড্যাব নেতা এ জেড এমন জাহিদ হোসেন। এ ছাড়া একই মামলায় আসামি সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা ব্যারিস্টার মইনুল হোসেন এবং গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী।

আদালতে বিএনপি নেতাদের পক্ষে শুনানি করে প্রবীণ আইনজীবী খন্দকার মাহবুব হোসেন। সঙ্গে ছিলেন আইনজীবী মাসুদ রানা। আর রাষ্ট্রপক্ষে শুনানি করেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম।

আপিল বিভাগের আদেশের পর খন্দকার মাহবুব হোসেন বলেন, আপিল বিভাগের আদেশে বিএনপি নেতাদের আগাম জামিনের বিরুদ্ধে সরকার পক্ষের আপিল নাকচ করে আদালত আবেদন নিষ্পত্তি করেছেন।

খন্দকার মাহবুব হোসেন আরো বলেন, আগাম জামিনের ব্যাপারে এ আপিল বিভাগের একটি সিদ্ধান্ত রয়েছে। যে সিদ্ধান্ত রয়েছে তা পরিবর্তন চেয়ে আমরা একটি নীতি নির্ধারণ করে দিতে বলেছি। আমরা পরিবর্তন চেয়ে একটি পলিসি নির্ধারণ করে দিতে বলেছি। কারণ সাবেক বিচারপতি এএইচএম শামসুদ্দিন চৌধুরী যে সিদ্ধান্ত দিয়েছেন তাতে হাইকোর্টের ক্ষমতা খর্ব করা হয়েছে। হাইকোর্টের ক্ষমতা খর্ব না করে জনস্বার্থে ওই সিদ্ধান্তের পরিবর্তন হওয়া দরকার। এ বিষয়ে আপিল বিভাগের একটি গাইডলাইন প্রয়োজন। তিনি বলেন, আগের গাইডলাইনের কারণে আগাম জামিন সীমিত হয়ে গেছে। আপিল বিভাগের লিখিত আদেশ পেলে এ বিষয়ে কোনো নির্দেশনা দেয়া হয়েছে কি না তা বোঝা যাবে।

৬৬ ডিএলআর-এর যে সিদ্ধান্ত চার সপ্তাহের বেশি জামিন দেয়া যাবে না। সেখানে উক্ত আসামিদের চার সপ্তাহের বেশি জামিন দেয়া হয়। তিনি বলেন, তখন নির্বাচনকালীন সময় অস্বাভাবিক পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়। ঢালাওভাবে পুলিশ মামলা দেয়। এতে মৃত ব্যক্তি বিদেশে অবস্থানরত ব্যক্তিকেও আসামি করা হয়। সে ক্ষেত্রে হাইকোর্ট বিশেষ বিশেষ ক্ষেত্রে চার সপ্তাহের বেশি জামিন দিতে পারেন। তিনি আরো বলেন, ৬৬ ডিএলআরের এই সিদ্ধান্ত ৫১ ডিএলআরের ওয়াহাব শাহের মামলার পরিপন্থী।

গত অক্টোবর মাসে রাজধানীর হাতিরঝিল ও খিলগাঁও থানায় করা নাশকতার দুই মামলায় হাইকোর্টে জামিন পান বিএনপি নেতারা। গত ১ অক্টোবর হাতিরঝিল থানায় মির্জা ফখরুলসহ বিএনপির ৫৫ জনের নাম উল্লেখ করে মামলা করে পুলিশ। এছাড় খিলগাঁও থানায় বিএনপি নেতাদের বিরুদ্ধে অপর একটি নাশকতার মামলা দায়ের করা হয়।


আরো সংবাদ

৭৫-এর পরিকল্পনাকারীদের বিচারে জাতীয় কমিশন গঠনের দাবি রাজধানীতে জেএমবির চার সদস্য গ্রেফতার ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলায় জড়িতদের শাস্তি নিশ্চিত করা হবে : প্রধানমন্ত্রী মিয়ানমারে ফিরে না গেলে রোহিঙ্গাদের ভাসানচরে পাঠানো হবে : পররাষ্ট্রমন্ত্রী সংসদ সচিবালয়ের আবাসন সমস্যা দূর করতে আরো ৫০০ ফ্যাট কুড়িগ্রামে ব্রহ্মপুত্র নদে ভেলায় সবজি চাষ বর্জ্য ব্যবস্থাপনা খাতে বিনিয়োগ করার আহ্বান অবশেষে রোহিঙ্গারা ফিরছেন আজ থেকে মিয়ানমারে রোহিঙ্গা পরিস্থিতি আরো অবনতির আশঙ্কা ১৫ আগস্ট আর ২১ আগস্টের হত্যাকাণ্ড একই সূত্রে গাঁথা : কাদের কাশ্মির নিয়ে আন্তর্জাতিক আদালতে যাবে পাকিস্তান

সকল




mp3 indir bedava internet