২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯

সাজা দিলে দিয়ে দেন, আমি আর আসব না : খালেদা জিয়া

আদালতে বেগম খালেদা জিয়া - সংগৃহীত

আদালতে নাইকো দুর্নীতি মামলার শুনানিতে এসে অসন্তোষ প্রকাশ করেছেন বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া। পুরান ঢাকার সাবেক কেন্দ্রীয় কারাগারে স্থাপিত বিশেষ জজ আদালতে এসে খালেদা জিয়া শুনানির সময় বিচারককে এই অসন্তোষের কথা জানান।

আদালতের স্থান নিয়ে অসন্তোষ প্রকাশ করে এ সময় খালেদা জিয়া বিচারকের উদ্দেশে বলেন, এখানে আইনজীবীদর গেট থেকে ফিরিয়ে দেয়া হয়। আমার আইনজীবীরা বসতে পারেন না। আপনারা সাজা দিলে দিয়ে দেন। যা সাজা দেয়ার দিয়ে দেবেন, তাও আমি এ আদালতে আসব না।

এর আগে বৃহস্পতিবার বেলা সোয়া ১২টার দিকে হুইল চেয়ারে করে সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে আদালতে হাজির করা হয়। এসময় তার পরনে ছিল সাদা শাড়ি ও গোলাপী ওড়না।

সাবেক কেন্দ্রীয় কারাগারের একটি কক্ষে আদালত স্থাপন করার বিষয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেন বেগম খালেদা জিয়া।

খালেদা জিয়া বলেন, এতো ছোট জায়গায় মামলা চলতে পারে না। এখানে আমাদের কোনো আইনজীবী বসতে পারেন না। এখানে মামলা চললে আমি আর আদালতে আসব না। ঢাকার ৯নং বিশেষ জজ শেখ হাফিজুর রহমানের উদ্দেশে তিনি এসব কথা বলেন।

এর আগে হুইল চেয়ারে করে আদালতে হাজির করার সময় ভোগান্তির শিকার হন খালেদা জিয়া। এ সময় তিনি বলেন, রাস্তা ছেড়ে দেন। এত লোক কেন? জজের সামনে এত লোক তো থাকার কথা নয়। এত লোকই যদি থাকে তাহলে আদালতের জায়গা এত ছোট কেন?

এরপর বিচারক এজলাসে উঠতে কিছুটা সময় লাগায় খালেদা জিয়ার আইনজীবী ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদসহ সিনিয়র আইনজীবীরা খালেদা জিয়ার মামলা নিয়ে কথা বলেন।

খালেদা জিয়া বিচারকের উদ্দেশ্যে বলেন, আমার লোকজন আসতে পারে না। এর আগেও আমি বলেছি এ কথা। কিন্তু কোনো ব্যবস্থা নেয়া হয়নি।

জবাবে আদালত বলেন, আগামী কোর্টে পর্যাপ্ত ব্যবস্থা করা হবে। তখন খালেদা জিয়া আবারও বিচারককে বলেন, ব্যবস্থাই শুধু করার কথা বলা হয় কিন্তু করা হয় না। এর উত্তরে বিচারক বলেন, আমি নতুন এসেছি। এখানে আজ আমার প্রথম কোর্ট। আমি কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা বলে ব্যবস্থা নেব।

এরপর আদালতে শুনানি শুরু হয়। শুনানিতে এফবিআইয়ের প্রতিবেদন ও আসামীপক্ষের দরখাস্ত আদালতে নথিভুক্ত করা হয়। নতুন বিচারক আসায় রাষ্ট্রপক্ষের চার্জ শুনানি নতুন করে শুরু হয়।

নাইকো দুর্নীতি মামলায় অভিযুক্ত অন্য আসামিরা হলেন— সাবেক জ্বালানি প্রতিমন্ত্রী একেএম মোশাররফ হোসেন, সাবেক মুখ্য সচিব কামাল উদ্দিন সিদ্দিকী, জ্বালানি ও খনিজসম্পদ মন্ত্রণালয়ের সাবেক ভারপ্রাপ্ত সচিব খন্দকার শহীদুল ইসলাম, সাবেক সিনিয়র সহকারী সচিব সিএম ইউসুফ হোসাইন, বাপেক্সের সাবেক মহাব্যবস্থাপক মীর ময়নুল হক, সাবেক সচিব মোঃ শফিউর রহমান, ব্যবসায়ী গিয়াস উদ্দিন আল মামুন, ঢাকা ক্লাবের সাবেক সভাপতি সেলিম ভূঁইয়া ও নাইকোর দক্ষিণ এশিয়া বিষয়ক ভাইস প্রেসিডেন্ট কাশেম শরীফ।

উল্লেখ্য, নাইকো দুর্নীতি মামলায় আজকের শুনানী শেষে আগামী ১৩ জানুয়ারী পর্যন্ত মামলার শুনানী মুলতবি করা হয়।


আরো সংবাদ