১৫ নভেম্বর ২০১৮

নৌকার জন্য ট্রেনে যাত্রা

ওবায়দুল কাদেরের নেতৃত্বে ট্রেনে উত্তরবঙ্গের উদ্দেশ্যে রওনা হয়েছে আওয়ামী লীগের প্রতিনিধিদল। - ছবি: সংগৃহীত

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের নেতৃত্বে ট্রেনে উত্তরবঙ্গের উদ্দেশ্যে রওনা হয়েছে আওয়ামী লীগের প্রতিনিধিদল।

শনিবার সকালে নির্বাচনী ট্রেন যাত্রার শুরুতে কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশনে উদ্বাধনী বক্তব্যে সেতুমন্ত্রী বলেন, সরকারের উন্নয়ন কাজ তৃণমূলে পৌঁছে দিতে এবং দলকে শক্তিশালী করতেই উত্তরাঞ্চলে আওয়ামী লীগের ট্রেন সফর। ভবিষ্যতে নৌ ও সড়ক পথেও সফর করা হবে বলে জানান মন্ত্রী।

আওয়ামী লীগের এই সফর উপলক্ষে ঢাকা থেকে নীলফামারীগামী ‘নীলসাগর এক্সপ্রেস’ ট্রেনের একটি বগি রিজার্ভ করা হয়েছে। আওয়ামী লীগের এই ট্রেন যাত্রায় ১০ জন কেন্দ্রীয় নেতা ও ২৬ জন গণমাধ্যমকর্মী দলটির সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের সফর সঙ্গী হিসেবে আছেন।

ওবায়দুল কাদের বলেন, তৃণমূলের মানুষ যাতে বিএনপি জামায়াতের গুজবের রাজনীতির নিয়ে সচেতন হয়, সে বিষয়ে দলের এই সাংগঠিক কার্যক্রম গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে। সফরে উত্তরের বিভিন্ন স্টেশনে ১১টিরও বেশি পথসভা করার কথা রয়েছে।

ওবায়দুল কাদের বলেন, এটা আমাদের নির্বাচনী যাত্রা। আগামীতেও এই যাত্রা অব্যাহত থাকবে। এই ট্রেন যাত্রার মধ্য দিয়ে উত্তরবঙ্গের জেলাগুলোতে নির্বাচনী সফর করবে আওয়ামী লীগ। আগামী ১৩ সেপ্টেম্বর লঞ্চযোগে নির্বাচনী সফর করব আমরা। এরপর সড়ক পথে চট্টগ্রাম, ময়মনসিংহ, কিশোরগঞ্জ যাব।

তিনি আরো বলেন, কিছুদিন আগে আমরা রাজশাহীতে নির্বাচনী সফর করে এসেছি। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উন্নয়ন বার্তা তৃণমূলে পৌঁছে দেয়ার জন্যই আমাদের এই সফর। এর মাধ্যমে আমরা তৃণমূলের কিছু বার্তা দিতে চাই।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, সামনের নির্বাচন প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ হবে। প্রস্তুতি সেভাবেই নিতে হবে। অভ্যন্তরীণ কোনো সমস্যা থাকলে তা নিরসন করা হবে। আমাদের এই যাত্রা তৃণমূল নেতাকর্মীদের চাঙ্গা করবে।

উত্তরবঙ্গের এই ট্রেন যাত্রার সার্বিক ব্যবস্থাপনার দায়িত্বে আছেন আওয়ামী লীগের রাজশাহী বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত সাংগঠনিক সম্পাদক খালিদ মাহমুদ চৌধুরী। সফর নিয়ে তিনি বলেন, ঢাকা থেকে নীলফামারী যাওয়ার পথে টাঙ্গাইল, পাবনার ঈশ্বরদী, নাটোর, বগুড়ার শান্তাহার, জয়পুরহাট, আক্কেলপুর, দিনাজপুরের বিরামপুর, ফুলবাড়ী, পার্বতীপুর ও নীলফামারীর সৈয়দপুর স্টেশনে পথসভা করা হবে।

সফররত আওয়ামী লীগ নেতারা জানান, স্বাভাবিক সময়ে ট্রেনের যাত্রাবিরতি তিন থেকে চার মিনিট হলেও পথসভা উপলক্ষে নীলসাগর এক্সপ্রেসের যাত্রাবিরতি হবে ১০ মিনিট। এই বিরতির ফাঁকেই উপস্থিত স্থানীয় নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্যে নির্বাচনী বক্তব্য রাখবেন ওবায়দুল কাদের।

আওয়ামী লীগের নির্বাচনী এই ট্রেন সফরে অন্যান্য নেতাদের মধ্যে আছেন দলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির নানক, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ, দলের সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেন, বি. এম মোজাম্মেল হক, আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন, খালিদ মাহমুদ চৌধুরী, সাংস্কৃতিক সম্পাদক অসীম কুমার উকিল, উপ দপ্তর সম্পাদিক বিপ্লব বড়ুয়া প্রমুখ।

 

আরো পড়ুন: খালেদা জিয়ার আদালত স্থানান্তর : রিজভীর নেতৃত্বে মিছিল

নিজস্ব প্রতিবেদক, ০৮ সেপ্টেম্বর ২০১৮

দলের চেয়ারপারসন কারাবন্দী বেগম খালেদা জিয়ার বিচারাধীন মামলার আদালত কারাগারে স্থানান্তরের প্রতিবাদ এবং তার মুক্তির দাবিতে ঢাকাসহ সারা দেশে শনিবার প্রতিবাদ সমাবেশ পালনের কর্মসূচী ঘোষণা দেয় বিএনপি।

তারই অংশ হিসেবে শনিবার সকাল পৌনে ৮ টার দিকে ঢাকায় জাতীয় প্রেসক্লাবের বিপরীতে তোপখানা রোডে এক প্রতিবাদ বিক্ষোভ মিছিল বের হয়। মিছিলে নেতৃত্ব দেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। এতে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপির যুগ্ম-সম্পাদক আরিফুর রহমান নাদিমসহ বিএনপি এবং অঙ্গ সহযোগী সংগঠনের নেতা-কর্মীরা অংশ গ্রহণ করে। মিছিলটি বিএমএ ভবনের সামনে থেকে শুরু হয়ে পুরানা পল্টন মোড়ের দিকে এগিয়ে যায়।

গত বুধবার দলের সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী এ কর্মসূচি ঘোষণা দিয়েছিলেন। ঢাকাসহ সারা দেশে মহানগর জেলা সদরে এ কর্মসূচি পালন করা হবে।

খালেদা জিয়ার মুক্তি ও সুচিকিৎসার দাবিতে আরো দুই দিনের কর্মসূচি রয়েছে বিএনপির। এ দুই দিনের কর্মসূচি হচ্ছে- সোমবার (১০ সেপ্টেম্বর) বেলা ১১টা থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে মানববন্ধন এবং ১২ সেপ্টেম্বর (বুধবার) দুই ঘণ্টার প্রতীকী অনশন। ঢাকায় রমনা ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন প্রাঙ্গন অথবা গুলিস্তানের মহানগর নাট্যমঞ্চে সকাল ১০টা থেকে ১২টা পর্যন্ত প্রতীকী অনশনের জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে আবেদন করেছে বিএনপি।

উল্লেখ্য, গত ৮ ফেব্রুয়ারি এক মামলায় সাজাপ্রাপ্ত হয়ে কারাগারে বন্দী রয়েছেন খালেদা জিয়া। তার মুক্তি দাবিতে ছয় মাসেরও বেশি সময় ধরে বিভিন্ন শান্তিপূর্ণ কর্মসূচী পালন করে আসছে বিএনপি সহ বিভিন্ন অঙ্গ সংগঠন। এরআগে গত ২১ এবং ২৪ আগস্ট রাজধানীর শ্যামলী এবং বনানীতে বিক্ষোভ মিছিলে নেতৃত্ব দেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। এসময় অন্য নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

দেখুন:

আরো সংবাদ