১৪ নভেম্বর ২০১৮

আড়াইহাজারে গণধর্ষণের শিকার শিশু

ধর্ষণ
আড়াইহাজারে গণধর্ষণের শিকার শিশু - ছবি: সংগৃহীত

নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজারে ১৩ বছরের এক শিশু গণধর্ষণের শিকার হয়েছে।

সোমবার রাতে উপজেলার সদর পৌরসভার দাসপাড়া গ্রামে এই ঘটনা ঘটে। এই ঘটনায় ধর্ষিতর খালা বাদী হয়ে ৩ লম্পটকে আসামি করে থানায় মামলা দায়ের করেছেন।

আড়াইহাজার থানার ওসি (তদন্ত) শফিকুল ইসলাম জানান, নির্যাতিতা শিশুটি গত এক বছর ধরে তার খালার বাড়ি দাসপাড়া (খোচপাড়া) গ্রামে বসবাস করে আসছিল। ঘটনার দিন রাত ৮টায় দাসপাড়া গ্রামের লিটন মিয়ার ছেলে সাব্বির (১৮) তাকে বাড়ি থেকে ডেকে রাস্তায় নেয়ার চেষ্টা করে। তখন শিশুটি অস্বীকার করলে তাকে মুখে চেপে ধরে সাব্বির উঁৎপেতে থাকা আনোয়ারের ছেলে শাহআলম (১৮) ও মোসলেহ উদ্দিনের ছেলে রানাসহ (২০) অজ্ঞাত আরো ২/৩ জনের সহায়তায় দাসপাড়ার একটি বাগে নিয়ে যায়। সেখানে শিশুটিকে মুখ চেপে ধরে প্রথমে সাব্বির ধর্ষণ করে। পরে পালাক্রমে আরো চারজন ধর্ষণ করে। লম্পটরা ধর্ষণ শেষে শিশুটিকে ফেলে দিয়ে চলে যায়। পরে ধর্ষিতার ডাক-চিৎকারে আশপাশের লোকজন এসে তাকে উদ্ধার করে।

এ ব্যাপারে ওসি তদন্ত আরো জানান, থানায় মামলা হয়েছে। আসামিদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে। ধর্ষিতাকে ডাক্তারী পরীক্ষা করার জন্য আজ মঙ্গলবার নারায়ণগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। শিশুটির বাবা বেঁচে নেই। আর মা জর্দানে থাকে বলে জানা গেছে।

আরো পড়ুন :
মাদারীপুরে তৃতীয় শ্রেণীর ছাত্রীকে পুকুরে ধর্ষণ : ধর্ষক আটক
মাদারীপুর সংবাদদাতা, ০৫ জুলাই ২০১৮
পুকুরে গোসল করার সময় ভয় দেখিয়ে তৃতীয় শ্রেণীর এক স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণ করার অভিযোগে মো: তুষার শিকদার নামে একজনকে আটক করেছে মাদারীপুর সদর থানা পুলিশ।

মাদারীপুর সদর উপজেলার মস্তফাপুর ইউনিয়নের চতুরপাড়া গ্রামে বুধবার দুপুরে এ ঘটনা ঘটে। উক্ত ঘটনায় সদর মডেল থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দিয়েছে ওই শিশুটির পরিবার। ঘটনাটি ধামাচাপা দেয়ার জন্য শিশুটির পরিবারকে চাপ প্রয়োগ করছে স্থানীয় প্রভাবশালীরা।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, চতুরপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের তৃতীয় শ্রেণীতে স্কুলপড়ুয়া শিশুটি (৮) প্রতিদিনের মতো বুধবার দুপুরের পরে আহম্মদ হাওলাদারের পুকুরে গোসল করতে গেলে, পাশের বাড়ির সেলিম শিকদারের ছেলে তুষার শিকদার গোসল করতে এসে ভয় দেখিয়ে জোর করে ওই শিশুটিকে ধর্ষণ করতে থাকে। শিশুটির চিৎকার শুনে তার চাচাতো ভাই হাফিজুল দৌড়ে এলে ধর্ষক তুষার শিকদার পালিয়ে যায়।

পরে আসেপাশের লোকজন ছুটে এসে মুমূর্ষু অবস্থায় শিশুটিকে উদ্ধার করে মাদারীপুর সদর হাসপাতালে ভর্তি করে। শিশুটির অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় কর্তব্যরত ডাক্তার উন্নত চিকিৎসার জন্য ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠান। খবর পেয়ে মাদারীপুর সদর মডেল থানার পুলিশ অভিযান চালিয়ে ধর্ষক তুষার শিকদারকে আটক করে।

মেয়েটির বাবা-মা বলেন, আমরা থানায় অভিযোগ দিয়েছি। আমাদের মেয়ের সাথে যে এ ঘটনা ঘটিয়েছে তার কঠোর শাস্তি চাই।

এ ব্যাপারে মাদারীপুর সদর মডেল থানার ওসি (অপারেশন) ইশতিয়াক আশফাক রাসেল বলেন, প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে ওই শিশুটিকে ধর্ষণ করা হয়েছে। উক্ত ঘটনার অভিযোগে আমরা তুষার শিকদারকে আটক করেছি। তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

৭০ বছরের বিধবা বৃদ্ধাকে ধর্ষণ করে পলাতক
বালিয়াকান্দি (রাজবাড়ী) সংবাদদাতা, ০২ জুন ২০১৮
গভীর রাতে নিজ ঘরে ঘুমন্ত ৭০ বছরের এক বিধবাকে জোরপূর্বক ধর্ষণ করেছে ৩৫ বছর বয়সী এক তরুণ। ওই বিধবা বর্তমানে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। চাঞ্চল্যেকর এ ঘটনা ঘটেছে শনিবার গভীর রাতে রাজবাড়ী জেলার বালিয়াকান্দি উপজেলার পাইককান্দি গ্রামে।

বালিয়াকান্দি ইউনিয়নের ইউপি সদস্য মোঃ আকরাম হোসেন খাঁন জানান, শনিবার রাত ২টার দিকে ওই বৃদ্ধা ঘরে ঘুমিয়ে থাকা অবস্থায় প্রতিবেশী মালেক মৃধার ছেলে পরান মৃধা (৩৫) ঘরে ঢুকে মুখ বেঁধে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে পালিয়ে যায়। পরে তার চিৎকারে প্রতিবেশীরা এগিয়ে এসে রক্তাক্ত অবস্থায় উদ্ধার করে। তাকে প্রথমে বালিয়াকান্দি পরে রাজবাড়ী সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। ধর্ষক পরানের বিরুদ্ধে বহু বিবাহ ও চুরির অভিযোগ রয়েছে। ধর্ষণের পরই পালিয়ে গেছেন পরান।

বালিয়াকান্দি উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ এস এম আব্দুল্লাহ আল মুরাদ জানান, বৃদ্ধাকে ধর্ষণ করা হয়েছে। তাকে বালিয়াকান্দি হাসপাতালে আনলে মেডিকেল পরীক্ষাসহ উন্নত চিকিৎসার জন্য রাজবাড়ীতে পাঠানো হয়েছে।

বালিয়াকান্দি থানার অফিসার ইনচার্জ হাসিনা বেগম জানান, সংবাদ পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ গিয়ে কাউকে পায়নি। অভিযোগ পেলেই ব্যবস্থা নেয়া হবে।

দেখুন:

আরো সংবাদ