২৩ জুলাই ২০১৮

খালেদা জিয়ার আইনজীবী কার্লাইলকে ঢুকতে দিলো না ভারত

খালেদা
লর্ড কার্লাইল - ছবি : বিবিসি

বাংলাদেশের বিরোধীদল বিএনপি নেত্রী খালেদা জিয়ার ব্রিটিশ আইনজীবী লর্ড কার্লাইলকে দিল্লী বিমানবন্দর থেকে ফেরত পাঠানো হয়েছে বলে জানা গেছে।

দিল্লী থেকে বিবিসি বাংলার সংবাদদাতা শুভজ্যোতি ঘোষ আইনজীবী লর্ড কার্লাইলের মিডিয়া টিমের সূত্রে জানতে পেরেছেন যে, মি. কার্লাইল বুধবার গভীর রাতে দিল্লী বিমানবন্দরে এসে পৌঁছান।

তখন ইমিগ্রেশন কর্মকর্তারা তাকে জানায় যে, ভারত সরকার তার ভিসা প্রত্যাহার করেছে। এরপর তাকে দিল্লীর বিমানবন্দর থেকেই লন্ডনের ফিরতি ফ্লাইটে তুলে দেয়া হয়।

এ ব্যাপারে ভারতীয় কর্তৃপক্ষ থেকে আনুষ্ঠানিক কোন বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

বৃহস্পতিবার দিল্লীতে একটি পাঁচতারা হোটেলে এক সংবাদ সম্মেলনে তার সাংবাদিকদের মুখোমুখি হওয়ার কথা ছিল।

কিন্তু এখন লর্ড কার্লাইলের সেই সংবাদ সম্মেলন বাতিল করা হয়েছে বলে তার মিডিয়া টিম থেকে জানানো হয়েছে।

বিবিসি বাংলার শুভজ্যোতি ঘোষ জানিয়েছেন, খালেদা জিয়ার ব্রিটিশ এই আইনজীবী লর্ড কার্লাইল এর দিল্লী সফর নিয়ে বাংলাদেশ সরকার ভারতের কাছে তীব্র আপত্তি জানিয়ে আসছিল।

দিল্লী ফরেন করেসপন্ডেন্টস ক্লাব তার শুক্রবারের নির্ধারিত সংবাদ সম্মেলন বাতিল দেয়ার পরও তিনি দিল্লীতে একটি পাঁচতারা হোটেলে সংবাদ সম্মেলন করতে চেয়েছিলেন।

বাংলাদেশে কারাবন্দী বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে মামলা কেন 'সাজানো' এবং 'রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত', সেটাই কার্লাইলের সংবাদ সম্মেলনে ব্যাখ্যা করার কথা ছিল বলে তাঁর মিডিয়া টিম থেকে জানানো হয়েছিল।

শেষ পর্যন্ত লর্ড কার্লাইল ভারতে ঢুকতে পারলেন না। সূত্র: বিবিসি 

আরো পড়ুন :

'লর্ড কার্লাইলকে আসতে দিচ্ছে না সরকার'
নিজস্ব প্রতিবেদক, ০৮ মে ২০১৮
দলের চেয়ারপারসন কারাবন্দী বেগম খালেদা জিয়ার মামলার লিগ্যাল টিমের পরামর্শক ব্রিটিশ আইনজীবী লর্ড কার্লাইভকে সরকার বাংলাদেশে আসতে দিচ্ছে না বলে অভিযোগ করেছে বিএনপি। মঙ্গলবার দুপুরে এক সংবাদ সম্মেলনে দলের সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী এই অভিযোগ করেন।

তিনি বলেন, বেগম খালেদা জিয়ার লিগ্যাল টিমের নতুন সদস্য ব্রিটিশ আইনজীবী লর্ড কার্লাইভকে বাংলাদেশে আসতে বাধা দেয়া হয়েছে। ৮ মে‘র সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগের শুনানিতে দেশনেত্রীর ডিফেন্স টিমের অংশগ্রহণ করতে তিনি গত কয়েক সপ্তাহ আগে লন্ডনে বাংলাদেশ হাইকমিশনে ভিসার জন্য আবেদন করেছিলেন। কিন্তু তাকে হাইকমিশন ‘হ্যাঁ’ও বলেননি, ‘নাও’ বলেনি। এটাতে স্পষ্ট যে সরকার প্রত্যক্ষভাবে বেআইনিভাবে আইনজীবী লর্ড কার্লাইভকে বাংলাদেশে ঢুকতে বাধা দিচ্ছে। বেগম খালেদা জিয়া যে শক্তিশালী লিগ্যাল টিম আছে তা যাতে আরো শক্তি না হয়। সেটাকে বাধাগ্রস্ত করতেই তাকে বেআইনিভাবে ভিসা দেয়া হয়নি বলে আমরা মনে করি।

রিজভী লর্ড কার্লাইভ আল জাজিরায় দেয়া সাক্ষাৎকারের বক্তব্য তুলে ধরে রিজভী বলেন, আজকে লর্ড কার্লাইভকে ভিসা দেয়া হলো না। অথচ ১/১১-এর সময়ে আজকের প্রধানমন্ত্রী যখন জেলে ছিলেন তখন তিনি কানাডার একজন আইনজীবী প্রফেসর প্যায়াম একাদাম ও ব্রিটেনের একজন আইনজীবী চেরী ব্লেয়ারকে নিয়োগ দিয়ে বাংলাদেশে নিয়ে এসেছিলেন এবং তারা সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য রেখেছিলেন এই যে বর্তমান সরকারের দ্বিচারিতা এটা এই সরকারের প্রধান বৈশিষ্ট। আমরা যে বার বার বলে এসেছি, প্রধানমন্ত্রী প্রতিহিংসার বশবর্তী হয়ে দেশনেত্রীর বিরুদ্ধে এই মামলা করা হয়েছে এবং তাকে সাজা দেয়া হয়েছে। লর্ড কার্লাইভ সম্প্রতি আল-জাজিরা টেলিভিশনে যে সাক্ষাৎকার দিয়েছেন তাতে তার বক্তব্যে এটা স্পষ্ট হয়েছে। কারণ ব্রিটিশ এই আইনজীবী বলেছেন যে, মামলার ডকুমেন্ট পর্যালোচনা করে বেগম খালেদা জিয়াকে বাংলাদেশের নিম্ন আদালত যে অভিযোগে সোপর্দ করা হয়েছে, যে বিষয়ে তাকে অভিযুক্ত করার কিছু নেই। সাজা দেয়া দূরে থাক।

উল্লেখ্য, গত ৮ ফেব্রুয়ার জিয়া এতিমখানা ট্রাস্ট মামলায় ৫ বছরের সাজায় পুরনো ঢাকার কেন্দ্রীয় কারাগারে যাবার পর বিএনপির পক্ষ থেকে ব্রিটিশ আইনজীবী লর্ড কার্লাইভকে খালেদা জিয়ার মামলার লিগ্যাল টিমের পরামর্শ নিয়োগ দেয়।

সুপ্রিম কোর্টের আপিল খালেদা জিয়ার জামিনে ন্যায়বিচার পাবে বলে প্রত্যাশা করেছেন রুহুল কবির রিজভী।

তিনি বলেন, সর্বোচ্চ আদালতে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার জামিনের শুনানি চলছে। আমরা আশা করবো যে, বিচার বিভাগ সাংবিধানিকভাবে সম্পূর্ণ স্বাধীন। সেখান থেকে আমরা ন্যায় বিচার পাবো।
নয়া পল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এই সংবাদ সম্মেলনে দলের কেন্দ্রীয় নেতা আবদুস সালাম আজাদ, মাশুকুর রহমান মাশুক, তাইফুল ইসলাম টিপু, বেলাল আহমেদ প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

খালেদা জিয়ার গাড়িবহরে হামলায় লর্ড কার্লাইলের উদ্বেগ
নয়া দিগন্ত ডেস্ক, ২৪ এপ্রিল ২০১৫
বিএনপি চেয়ারপারসন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়ার গাড়িবহরে হামলার ঘটনায় গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন ব্রিটিশ লর্ড সভার সদস্য লর্ড কার্লাইল। গতকাল তার দফতর থেকে দেয়া এক বিবৃতিতে এ কথা বলা হয়েছে।

বিবৃতিতে লর্ড কার্লাইল বলেন, আসন্ন ঢাকা সিটি করপোরেশন নির্বাচনে বিএনপি সমর্থিত প্রার্থীদের পক্ষে প্রচারণা চালানোর সময় গত বুধবার তার গাড়িবহরে হামলা চালানো হয়। মিডিয়ায় প্রকাশিত ও প্রচারিত সচিত্র প্রতিবেদনে সুস্পষ্টভাবে বলা হয়েছে, আওয়ামী লীগ সমর্থকেরাই এই হামলা চালিয়েছে। প্রকাশিত ছবিতে ও টিভি ফুটেজে দেখা যাচ্ছে, হামলার সময় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা সেখানে উপস্থিত থাকলেও তারা বেগম খালেদা জিয়ার গাড়িবহরকে প্রয়োজনীয় নিরাপত্তা দেয়ায় বিরত ছিলেন।

বিবৃতিতে তিনি আরো বলেন, এ ধরনের সহিংস হামলা গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়ার সম্পূর্ণ বিপরীত। ব্রিটেন বাংলাদেশের বৃহৎ উন্নয়ন অংশীদার। সে হিসেবে দেশটিতে এ ধরনের দুর্ভাগ্যজনক ঘটনার প্রতি নজর রাখার এবং বাংলাদেশে চলমান রাজনৈতিক সঙ্কটের সমাধানে জরুরিভাবে ব্যবস্থা নিতে আমি ব্রিটিশ সরকারের প্রতি দৃঢ়ভাবে আহবান জানাই। ওই বর্বরোচিত হামলার সাথে জড়িতদের বিচারের আওতায় আনার জন্য একই সাথে আমি বাংলাদেশ সরকারের প্রতি আহবান জানাই।


আরো সংবাদ