২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮

একই পরিবারের ১১ জনের রহস্যজনক মৃত্যু

ভারত
একই বাড়ি থেকে ১১ জনের লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। - ছবি: সংগৃহীত

ভারতে রাজধানী দিল্লির বুরারির একটি বাড়ি থেকে আজ রোববার সকালে একই পরিবারের ১১ জনের লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। মৃতদের মধ্যে ৭ জন মহিলা ও ৪ জন পুরুষ। 

পুলিশ জানিয়েছে, রোববার সকালে সন্ত নগরের ২ নম্বর গলির বাড়িতে ১১ জনের লাশ উদ্ধার করা হয়। তাদের প্রত্যেকের দেহ ঝুলন্ত অবস্থায় ছিল। ১১ জনই এক পরিবারের সদস্য বলে জানা গেছে। একই ঘরের ওভারহেড তার থেকে তারা প্রত্যেকেই ঝুলছিলেন এবং প্রত্যেকের চোখ ও মুখ কাপড়ে বাঁধা ছিল। মৃতদের পরিবারে একটি দোকান ও আসবাবপত্রের ব্যবসা ছিল।

কীভাবে তারা মারা গেলেন তা এখনো পরিষ্কার নয়। এক সঙ্গে ১১ জনের মৃত্যুতে শোকের ছায়া নেমেছে। তবে, প্রাথমিকভাবে মনে করা হচ্ছে, এটা গণ আত্মহত্যার ঘটনা। দেহগুলো ময়নাতদন্তে পাঠানো হয়েছে বলে পুলিশ জানিয়েছে।

সূত্র: টাইমস অব ইন্ডিয়া, এনডিটিভি

আরো পড়ুন :
ঝাড়খণ্ডে হাঁড়িয়া পান করে ৩ মহিলাসহ ৬ জনের মৃত্যু
হাঁড়িয়া পান করে তিন নারীসহ ছয়জনের মৃত্যু হল। অসুস্থ হয়ে পড়েছেন আটজন। তাদের হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। শনিবার ভারতের ঝাড়খণ্ডের সিমডেগা জেলায় এ ঘটনা ঘটে।

সিমডেগার ডেপুটি কমিশনার জটাশঙ্কর চৌধুরী জানিয়েছেন, কেরিয়া ঘট্টারি গ্রামে ফুলজেন্সিয়া ভেঙ্গরা নামে এক মহিলার বাড়িতে ওই হাঁড়িয়া তৈরি হয়। সেটা পান করেই ছয়জনের মৃত্যু হয়েছে এবং আটজন অসুস্থ হয়ে পড়েছেন। অসুস্থ ব্যক্তিদের প্রথমে স্থানীয় হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখান থেকে তিনজনকে রাঁচির রাজেন্দ্র ইনস্টিটিউট অফ মেডিক্যাল সায়েন্সেসে রেফার করা হয়েছে। দু’জনকে ওড়িশার রৌরকেল্লার একটি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। লাশগুলো ময়নাতদন্তের জন্য সর্দার হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। এই ঘটনার তদন্ত চলছে। সূত্র: এবিপি আনন্দ। 

উইকিপিডিয়া সূত্রে জানা গেছে, হাঁড়িয়া হলো ভাত থেকে তৈরি বিয়ার জাতীয় এক ধরনের মদ। হাঁড়িয়া হল ভাত থেকে তৈরি এক প্রকার বিয়ার জাতীয় মদ, যা ভারতের বিহার, ঝাড়খন্ড, উড়িষ্যা, মধ্যপ্রদেশ ও ছত্রিশগড়ে প্রস্তত করা হয়। সিদ্ধ ভাত এবং হরীতকী একসাথে গাজিয়ে এটি তৈরি করা হয়। হাঁড়িয়া সম্পূর্ণ তৈরি হতে এক সপ্তাহ সময় লাগে। হাঁড়িয়া ঠান্ডা করে পরিবেশন করা হয়। এতে এলকোহলের পরিমাণ অন্যান্য দেশিয় মদ বা সুরার থেকে কম।


আরো সংবাদ

সকল