২০ নভেম্বর ২০১৮

আট বছরের সঙ্গীকে কেন এতো নৃশংসভাবে হত্যা করলো সিংহী?

সিংহীর তিন শাবকের বাবা ছিল পুরুষ সিংহটি - সংগৃহীত

যুক্তরাষ্ট্রের একটি চিড়িয়াখানায় আট বছর ধরে একই খাঁচায় থাকার পর একটি সিংহী তার সঙ্গী পুরুষ সিংহকে হত্যা করেছে। এই সিংহীর তিন শাবকের বাবা ছিল পুরুষ সিংহটি।

যুক্তরাষ্ট্রের ইন্ডিয়ানাপোলিস চিড়িয়াখানায় ১২ বছর বয়সী জুরি নামের সিংহী এবং ১০ বছর বয়সী নায়াক নামের পুরুষ সিংহ আট বছর ধরে একসাথে ছিল। তারা তিনটি শাবকের জন্ম দেয় ২০১৫ সালে।

চিড়িয়াখানার কর্মীরা ঘটনার কারণ সম্পর্কে এখনও কিছু ধারণা করতে পারছেন না। তারা কারণ অনুসন্ধান করার কথা বলছেন।

কর্মকর্তারা বলেছেন, সিংহীটি তার চোয়াল দিয়ে সঙ্গী পুরুষ সিংহের ঘাড় চেপে ধরে রেখে মৃত্যু নিশ্চিত করেছে বলে তাদের মনে হয়েছে।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ফেসবুকে দেয়া এক বার্তায় চিড়িয়াখানার কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, সব বিষয় পর্যালোচনা করে তারা কারণ খুঁজে বের করার চেষ্টা চালাবে।

ফেসবুকে কতৃপক্ষ আরো লিখেছে, আফ্রিকান সিংহ নায়ক ছিল অসাধারণ একটা সিংহ এবং তারা তাকে আর পাবে না।

চিড়িয়াখানাটির একজন কর্মকর্তা জানিয়েছেন, হঠাৎ করেই এই দুই সিংহের খাঁচায় অস্বাভাবিক গর্জন শুনতে পেয়ে তারা কর্মীরা সেখানে ছুটে যান। তারা ঘটনাস্থলে পৌঁছে দেখেন, সিংহী জুরি সঙ্গী পুরুষ সিংহ নায়াকের ঘাড় শক্ত করে ধরে রেখেছে। তারা অনেক চেষ্টা করেও সিংহ দু'টিকে আলাদা করতে পারেননি।

কর্তৃপক্ষ বলেছে, এই দু'জনের মধ্যে তারা কখনও আক্রমণাত্বক স্বভাব তারা দেখেনি। ঘটনার ব্যাপারে তাদের শোক যেনো কাটছে না।

চিড়িয়াখানাটির কিউরেটর ডেভিড হাগান সংবাদ সংস্থা রয়টার্সকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে বলেছেন, চিড়িয়াখানায় যেসব প্রাণী বাস করছে, প্রত্যেকের সাথে তাদের গভীর সম্পর্ক গড়ে ওঠে। ফলে এই ঘটনাটি অনেকটা পরিবারের কোনো সদস্যকে হারানোর মতো শোকে তারা রয়েছেন।

ঘটনার সময় শাবক তিনটি খাঁচার বাইরে অন্য জায়গায় ছিল।

কর্তৃপক্ষের বিবৃতিতে বলা হয়েছে, চিড়িয়াখানায় সিংহদের যেভাবে রাখা হয়, এখনই তাতে কোনো পরিবর্তন আনা হচ্ছে না।

সাফারি পার্কে সিংহীরা প্রায়ই সিংহদের তাড়া করে থাকে, কিন্তু এই জুটির ক্ষেত্রে হঠাৎ কি হলো, সেটা কর্তৃপক্ষ বুঝতে পারছে না।

ঘাড়ের জখমের কারণে দমবন্ধ হয়ে সিংহটির মৃত্যু হয়েছে বলে ময়নাতদন্ত প্রতিবেদনে দেখা গেছে।

 

সন্তানকে বাঁচাতে বন্য কুকুরদের সাথে একাই লড়াই করলো মা সিংহ

ডেইলি মেইল

মা, সন্তানের জন্য নিজের জীবন পর্যন্ত দিতে পারেন। পাশাপাশি সন্তানকে বাঁচাতে লড়াই চালিয়ে যেতে পারেন শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত। তেমনটাই করলো এক সাহসী মা সিংহ। সন্তানদের বাঁচাতে একাই যুদ্ধ চালিয়ে গেল সে।

হ্যাঁ, যুদ্ধই বলা চলে। যেভাবে বন্য কুকুরদের দলের সাথে লড়াই করেছে সে, তাতে হতভম্ব না হয়ে পারা যায় না।

ঘটনাটি ঘটেছে আফ্রিকার বতসোয়ানার মোরেমি গেম রিজার্ভে। অন্য দিনের মতো সেখানে গাড়ি নিয়ে সবকিছু পর্যবেক্ষণ করছিরেন শালিন ফারনান্দো। হঠাৎ তিনি দেখতে পান, এক মা সিংহকে ঘিরে আছে এক দল বন্য কুকুর। তাদের চোখ সিংহীর সন্তানদের ওপর। লোলুপ দৃষ্টি সিংহ শাবকদের ছিড়ে কুড়ে খাওয়ার।

কিন্তু সেই দৃষ্টি মা সিংহীকে দুবর্ল নয়, বরঞ্চ সাহস বাড়িয়ে দেয়। সন্তানদের বাঁচাতে সর্বশক্তি সঞ্চয় করতে থাকে। ধীরে ধীরে বন্য কুকুরগুলো মা সিংহকে ঘিরে ধরে। তেড়ে যায় সিংহী। যুদ্ধের মাঠে তাণ্ডব চালায় একাই। ঘুরে ঘুরে বন্য কুকুরদের শায়েস্তা করতে থাকে। ততক্ষণে সিংহ শাবক দেয় ছুট। আর মা একাই লড়াই চালিয়ে যায়।

এক পর্যায়ে কামড় বসায় এক কুকুরের ঘাড়ে। আছড়ে পাছড়ে নিস্তেজ করে ছাড়ে। তখনো বাকি কুকুরগুলো ঘিরে আছে, একের পর আক্রমণ করছে। কিন্তু সিংহী তাতেও দমে যাচ্ছে না। যুদ্ধক্ষেত্রে লড়াই করেই যাচ্ছে।

এভাবে প্রায় আধা ঘণ্টা চলে যুদ্ধ। ফারনান্দো পুরো ঘটনার সাক্ষী ছিলেন।

তার ভাষ্য, 'আমি পুরো ঘটনা দেখে যার পর নাই আশ্চর্য হয়েছি। কিভাবে মা সিংহ একাই লড়াই করে যাচ্ছে।'

তবে দুঃখের কথা হলো, বন্য কুকুরদের হাত থেকে সব সন্তানদের বাঁচাতে পারেনি মা। তবে শেষ পর্যন্ত লড়াই করে গেছে।

ফারনান্দো জানান, এই ঘটনার পরদিন বেঁচে যাওয়া সিংহ শাবকটিকে শিকার করতে ঘুর ঘুর করছিল লড়াইয়ে আহত বন্য কুকুরের দল।

দেখুন:

আরো সংবাদ