২১ আগস্ট ২০১৮

গালিভার নামের টাট্টু ঘোড়ার কাণ্ড (ভিডিও)

বিশ্বের সবচেয়ে ছোট ঘোড়া - সংগৃহীত

বিশ্বের সবচেয়ে ছোট ঘোড়ার দেখা মিলেছে রাশিয়ার সেন্ট পিটার্সবার্গ-এর এক ঘোড়া প্রদর্শনীতে। এই টাট্টু ঘোড়াটির নাম গালিভার। গালিভারের উচ্চতা খুর থেকে কাঁধ পর্যন্ত ১৯.২৯ ইঞ্চি বা ৪৯ সেন্টিমিটার।

রাশিয়ার সেন্ট পিটার্সবার্গে এক্সপোফরম কনভেনশন অ্যান্ড এক্সপোবিশন সেন্টারে ২০তম হিপোস্ফেরার আন্তর্জাতিক ইকুয়েট্রেনিয়ান প্রদর্শনীতে এ 'আশ্চার্যজনক' প্রাণীটির দেখা মিলে।

নিউ জিল্যান্ড হেরাল্ড পত্রিকার বরাতে জানা যায়, আমেরিকান এই ক্ষুদ্র ঘোড়াটি ২০১৭ সালের জুন মাসে উত্তর রাশিয়ার হিডালগো পোনি ফার্ম এ যখন জন্ম নেয় তখন একে দেখে মনে হয়েছিল কোন বিড়ালের বাচ্চা জন্ম নিয়েছে।

এলিনা চিস্তাকোভা বলেন, জন্মের সময় গালিভারের উচ্চতা ছিল ১২ ইঞ্চি(৩০ সেমি.) আর ওজন ছিল মাত্র তিন কেজি। তার জন্মটাই ছিল একটি মিরাকল।

তিনি বলেন, গালিভারকে দেখতে বড় বিড়ালের মতো লাগছিল। আমি এমন একটি প্রাণী পেয়ে খুবই খুশি ছিলাম।

গালিভার নামটি গালিভার’স ট্রাভেল উপন্যাস থেকে নেয়া।

সাস্প্রতিক এক প্রদর্শনীতে তাকে একটি কুকুরের সাথে খেলতে দেখা যায়।

সাধারণত আমেরিকান ক্ষুদ্র ঘোড়াগুলো উচ্চতায় ৩৪ সেমি (৮৬.৪ সেমি) হয়ে থাকে।এক বছর বয়সী গালিভার তার স্বাভাবিক বৃদ্ধির অর্ধেক হতে পেরেছে।

গালিভারের সবচেয়ে ছোট পুরুষ ঘোড়া হিসেবে গিনেজ ওয়াল্ড রেকর্ডে নাম উঠানোর সুযোগ রয়েছে। ২০১৬ সাল থেকে সবচেয়ে ছোট ঘটকী হিসেবে রেকর্ড গড়েছে থাম্বলিনা। যার উচ্চতা ১৭.৫ ইঞ্চি বা ৪৪.৫ সেন্টিমিটার।

 

আরো পড়ুন : সন্তানকে বাঁচাতে বন্য কুকুরদের সাথে একাই লড়াই করলো মা সিংহ

মা, সন্তানের জন্য নিজের জীবন পর্যন্ত দিতে পারেন। পাশাপাশি সন্তানকে বাঁচাতে লড়াই চালিয়ে যেতে পারেন শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত। তেমনটাই করলো এক সাহসী মা সিংহ। সন্তানদের বাঁচাতে একাই যুদ্ধ চালিয়ে গেল সে।

হ্যাঁ, যুদ্ধই বলা চলে। যেভাবে বন্য কুকুরদের দলের সাথে লড়াই করেছে সে, তাতে হতভম্ব না হয়ে পারা যায় না।

ঘটনাটি ঘটেছে আফ্রিকার বতসোয়ানার মোরেমি গেম রিজার্ভে। অন্য দিনের মতো সেখানে গাড়ি নিয়ে সবকিছু পর্যবেক্ষণ করছিরেন শালিন ফারনান্দো। হঠাৎ তিনি দেখতে পান, এক মা সিংহকে ঘিরে আছে এক দল বন্য কুকুর। তাদের চোখ সিংহীর সন্তানদের ওপর। লোলুপ দৃষ্টি সিংহ শাবকদের ছিড়ে কুড়ে খাওয়ার।

কিন্তু সেই দৃষ্টি মা সিংহীকে দুবর্ল নয়, বরঞ্চ সাহস বাড়িয়ে দেয়। সন্তানদের বাঁচাতে সর্বশক্তি সঞ্চয় করতে থাকে। ধীরে ধীরে বন্য কুকুরগুলো মা সিংহকে ঘিরে ধরে। তেড়ে যায় সিংহী। যুদ্ধের মাঠে তাণ্ডব চালায় একাই। ঘুরে ঘুরে বন্য কুকুরদের শায়েস্তা করতে থাকে। ততক্ষণে সিংহ শাবক দেয় ছুট। আর মা একাই লড়াই চালিয়ে যায়।

এক পর্যায়ে কামড় বসায় এক কুকুরের ঘাড়ে। আছড়ে পাছড়ে নিস্তেজ করে ছাড়ে। তখনো বাকি কুকুরগুলো ঘিরে আছে, একের পর আক্রমণ করছে। কিন্তু সিংহী তাতেও দমে যাচ্ছে না। যুদ্ধক্ষেত্রে লড়াই করেই যাচ্ছে।

এভাবে প্রায় আধা ঘণ্টা চলে যুদ্ধ। ফারনান্দো পুরো ঘটনার সাক্ষী ছিলেন।

তার ভাষ্য, 'আমি পুরো ঘটনা দেখে যার পর নাই আশ্চর্য হয়েছি। কিভাবে মা সিংহ একাই লড়াই করে যাচ্ছে।'

তবে দুঃখের কথা হলো, বন্য কুকুরদের হাত থেকে সব সন্তানদের বাঁচাতে পারেনি মা। তবে শেষ পর্যন্ত লড়াই করে গেছে।

ফারনান্দো জানান, এই ঘটনার পরদিন বেঁচে যাওয়া সিংহ শাবকটিকে শিকার করতে ঘুর ঘুর করছিল লড়াইয়ে আহত বন্য কুকুরের দল।

দেখুন:

আরো সংবাদ