২০ সেপ্টেম্বর ২০১৮

শিক্ষকদের জন্য পৃথক বেতন কাঠামোর পরিকল্পনা

-

মেধাবী শিক্ষার্থীদের শিক্ষকতা পেশায় আকৃষ্ট করতে জাতীয় শিক্ষানীতি-২০১০-এর আলোকে শিক্ষকদের জন্য পৃথক বেতন কাঠামো প্রণয়নের পরিকল্পনা রয়েছে জানিয়ে শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ বলেছেন, এ লক্ষ্যে সরকার ইতোমধ্যেই আর্থিক সুবিধা বৃদ্ধিসহ বিভিন্ন ধরনের সুযোগ-সুবিধা দিচ্ছে।

গতকাল বৃহস্পতিবার সরকার দলীয় সংসদ সদস্য নুরুন্নবী চৌধুরী শাওনের এক প্রশ্নের জবাবে শিক্ষামন্ত্রী এ কথা বলেন। পৃথক প্রশ্নের জবাবে শিক্ষামন্ত্রী জানান, নির্দিষ্ট নীতিমালার অনুসরণে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্তির বিষয়ে কার্যক্রম চলছে।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, মেধাবীদের শিক্ষকতা পেশায় আকৃষ্ট করতে দেশে বিশেষায়িত বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপনে বিশেষ নজর দেয়া হয়েছে। ইতোমধ্যে গাজীপুরে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ডিজিটাল ইউনিভার্সিটি নামে একটি বিশেষায়িত বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপনের লক্ষ্যে জাতীয় সংসদে আইন পাস হয়েছে। বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষকরা বর্তমানে শতকরা ১০০ ভাগ বেতন পাচ্ছেন। বেসরকারি কলেজ ও স্কুলের শিক্ষকদের মতো মাদ্রাসা শিক্ষকদের বেতন স্কেল ও মর্যাদায় সমতা আনা হয়েছে।

এদিকে স্কুল-কলেজ এমপিভুক্তিকরণ প্রসঙ্গে একাধিক সংসদ সদস্যের প্রশ্নের জবাব দিতে গিয়ে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, গত ৫ বছরে সারা দেশে নতুনভাবে কোনো বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান (স্কুল ও কলেজ) এমপিওভুক্ত করা হয়নি। বর্তমান সরকার দায়িত্ব গ্রহণের পর পরই শিক্ষার গুণগত মানোন্নয়নের লক্ষ্যে সারাদেশে ১ হাজার ৬২৪টি বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকে এমপিওভুক্ত করা হয়েছে। অবশিষ্ট নন-এমপিও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান সুনির্দিষ্ট নীতিমালার ভিত্তিতে এমপিওভুক্ত করার লক্ষ্যে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনার আলোকে ইতোমধ্যে বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান (স্কুল ও কলেজ) এর জনবল কাঠামো ও এমপিও নীতিমালা ২০১৮ জারি করা হয়েছে। উল্লিখিত নীতিমালার অনুসরণে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্তির বিষয়ে কার্যক্রম চলছে।

সংসদ সদস্য সামশুল হক চৌধুরীর প্রশ্নের জবাবে শিক্ষামন্ত্রী জানান, প্রত্যেক সংসদ সদস্যদের কাছ থেকে গৃহীত ২০টি করে মাধ্যমিক বিদ্যালয় ভবনের সম্প্রসারণের লক্ষ্যে ১০ হাজার ৬৯৪ কোটি ব্যয়ে প্রকল্পভুক্ত ৩ হাজার শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে নতুন ভবন নির্মাণ করা হবে। এ লক্ষ্যে মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগ হতে প্রশাসনিক অনুমোদন জারি করা হয়েছে।

 


আরো সংবাদ