film izle
esans aroma Umraniye evden eve nakliyat gebze evden eve nakliyat Entrumpelung wien Installateur Notdienst Wien
১৯ ফেব্রুয়ারি ২০২০
বার্লিন সম্মেলন

লিবিয়ায় সামরিক সাহায্য বন্ধে সম্মত বিশ্ব নেতারা

গৃহযুদ্ধ বন্ধে বহির্বিশ্বের অবৈধ হস্তক্ষেপ না করার ঘোষণা ; গৃহীত প্রস্তাবের বাস্তবায়ন নিয়ে ইতোমধ্যেই প্রশ্ন উঠেছে
ফটোসেশনে লিবিয়া শান্তি সম্মেলনে আগত বিশ্ব নেতৃবৃন্দ : এএফপি -

কোনোভাবেই লিবিয়াসহ উত্তর আফ্রিকার দেশগুলোকে অস্ত্র এবং সামরিক সাহায্য দেয়া হবে না। জার্মানির বার্লিনে লিবিয়া সঙ্কট সমাধানে আয়োজিত বিশেষ সম্মেলনে এমন একটি ঐতিহাসিক প্রস্তাবে সম্মত হয়েছেন বিশ্ব নেতৃবৃন্দ। বিশ্ব শান্তির কথা মাথায় রেখে জরুরি এ সিদ্ধান্তে পৌঁছল বিশ্বের ১৬টি দেশ এবং কয়েকটি সংস্থা।
জার্মানির উদ্যোগে গত রোববার বার্লিনে আয়োজন করা হয় ‘লিবিয়া সম্মেলন’। যেখানে বিশ্বের গুরুত্বপূর্ণ নেতারা একমত হয়েছেন যে, উত্তর আফ্রিকার যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশ লিবিয়ায় অস্ত্র বা সেনা পাঠানো থেকে নিজেদের নিয়ন্ত্রণ করবে দেশগুলো। পাশাপাশি লিবিয়ায় দু’পক্ষের গৃহযুদ্ধ বন্ধে অবৈধ হস্তক্ষেপ না করার ঘোষণাও দিয়েছেন বিশ্বনেতারা।
সম্মেলনে তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়েব এরদোগান, রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভøাদিমির পুতিন, মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও, ইতালির প্রধানমন্ত্রী জিউসেপ্প কন্টি, ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট এমানুয়েল ম্যাক্রোঁ, ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন ও জাতিসঙ্ঘের মহাসচিব অ্যান্তোনিও গুতেরেস যোগ দিয়েছেন। তা ছাড়া ব্রিটেন, ফ্রান্স, চীন, সংযুক্ত আরব আমিরাত, কঙ্গো প্রজাতন্ত্র, ইতালি, মিসর, আলজেরিয়ার পাশাপাশি জাতিসঙ্ঘ, ইউরোপীয় ইউনিয়ন, আফ্রিকান ইউনিয়ন এবং আরব লিগের প্রতিনিধিরা এই সম্মেলনে প্রতিনিধিত্ব করেন।
লিবিয়ার ক্ষমতাশালী জেনারেল খলিফা হাফতার ও জাতিসঙ্ঘ সমর্থিত গভমেন্ট অব ন্যাশনাল অ্যাকর্ড (জিএনএ) এ দু’পক্ষই সম্মেলনে উপস্থিত থাকলেও প্রতিনিধিরা একে অপরের সাথে দেখা করেননি। গত কয়েক বছর ধরেই অভ্যন্তরীণ সঙ্ঘাতে জর্জরিত লিবিয়াসহ উত্তর আফ্রিকার বেশ কিছু দেশ। বারবার অভিযোগ ওঠে, ওই সব সংঘর্ষ থেকে মুনাফা করার চেষ্টা করে ইউরোপের কোনো কোনো দেশ এবং সংস্থা। অভিযোগ রয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের বিরুদ্ধেও। বলা হয়, এই সব দেশ এবং সংস্থা অস্ত্র এবং অন্যান্য সামরিক সাহায্য করে বিবাদমান পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ অব্যাহত রাখে। বার্লিনে লিবিয়া সম্মেলনে এই বিষয়টিকে সামনে রেখেই দীর্ঘ আলোচনা হয়। শেষ পর্যন্ত জার্মান চ্যান্সেলর অ্যাঞ্জেলা মারকেল যে প্রস্তাব পাঠ করেন, তাতে স্পষ্ট করে বলে দেয়া হলো, কোনোভাবেই যাতে অস্ত্র দিয়ে ওই সব দেশকে সাহায্য করা না হয়, তার দিকে কড়া নজর রাখা হবে।
অস্ত্র ভারসাম্য নীতি কিংবা অস্ত্র বিক্রির ক্ষেত্রে নিয়ন্ত্রণ এর আগেও বহুবার বিভিন্ন সম্মেলনে আলোচিত হয়েছে। জাতিসঙ্ঘ একাধিকবার এ সব বিষয়ে প্রস্তাব পাশ করেছে। কিন্তু বাস্তবে তার প্রতিফলন সবসময় ঘটেনি। কারণ অস্ত্র অত্যন্ত লাভজনক একটি ব্যবসা। সমীক্ষা বলছে, গত বছরেও বিশ্বজুড়ে অস্ত্রের বাজার বড় হয়েছে। যুক্তরাষ্ট্র এবং ইউরোপের বিভিন্ন দেশের অস্ত্র বিক্রি করে লাভ বেড়েছে। কয়েকগুণ বেড়েছে অস্ত্র প্রস্তুতকারক সংস্থাগুলোর মুনাফা। এমন পরিস্থিতিতে জার্মানির সম্মেলনে যে প্রস্তাব গ্রহণ করা হলো বাস্তবে তার প্রতিফলন ঘটবে কি না- তা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে বিভিন্ন মহলে। এমনকি ওই সম্মেলনেও এ প্রশ্ন উঠেছে। সম্মেলনে যোগ দেয়া দেশগুলো দাবি করেছে, অস্ত্র নিয়ন্ত্রণে যাতে কড়া নজরদারি হয় সে বিষয়েও আলাদা করে সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।
অ্যাঞ্জেলা জানিয়েছেন, আলাদা আলাদা করে দু’পক্ষের সাথেই তাদের আলোচনা হয়েছে। শান্তি স্থাপনে তারা সহমত পোষণ করেছেন। যুদ্ধ নয়; আলোচনার মাধ্যমেই যে সমাধান সূত্রে পৌঁছতে হবে, সে কথা বুঝিয়ে দেয়া হয়েছে দুই পক্ষকেই।
ইউরোপীয় ইউনিয়ন এবং জাতিসঙ্ঘ- দু’টি সংস্থাই লিবিয়া সম্মেলন ফলপ্রসূ হয়েছে বলে মন্তব্য করেছে। ইউরোপীয় ইউনিয়নের প্রধান উরসুলা ফন ডেয়ার লাইয়েন টুইট করে বলেছেন, লিবিয়া সঙ্কট মেটানোর জন্য জার্মানি এবং জাতিসঙ্ঘ যে উদ্যোগ নিয়েছে ইইউ তাকে স্বাগত জানাচ্ছে। সম্মেলনে যে প্রস্তাব পাশ হয়েছে, তা যাতে কার্যকরী হয়, তার সব ব্যবস্থা করবে ইইউ। যুক্তরাষ্ট্রও এই সম্মেলনকে স্বাগত জানিয়েছে।
সম্মেলন শেষে জাতিসঙ্ঘ মহাসচিব অ্যান্তোনিও গুতেরেস বলেন, লিবিয়ার শান্তিপূর্ণ সমাধানে বিশ্বনেতারা ‘পুরোপুরি প্রতিশ্রুতিবদ্ধ’। ওই সময় লিবিয়ায় চলমান গৃহযুদ্ধের অবসানে বিদেশী হস্তক্ষেপ বন্ধের কথা জানান রাশিয়া ও তুরস্কের প্রতিনিধিরা।

 


আরো সংবাদ

মহান একুশে উপলক্ষে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে যাতায়াতের রুট ম্যাপ রাষ্ট্রপতির ভাষণের ওপর ধন্যবাদ প্রস্তাব গ্রহণের মধ্য দিয়ে সংসদ অধিবেশন সমাপ্ত মুজিববর্ষ নিয়ে অতি উৎসাহী না হতে দলীয় এমপিদের নির্দেশনা প্রধানমন্ত্রীর আ’লীগের স্থানীয় সরকার মনোনয়ন বোর্ডের সভা আজ চাঁদাবাজির প্রতিবাদে বুড়িগঙ্গারনৌকা মাঝিদের মানববন্ধন আজ থেকে সোনার দাম আবার বেড়েছে ভরি ৬১৫২৭ টাকা আজ থেকে ঢাকার ১৬ ওয়ার্ডের সবাইকে খাওয়ানো হবে কলেরার টিকা ঘুষ দাবিকে কেন্দ্র করে টঙ্গী ভূমি অফিসে তুলকালাম কোম্পানি (সংশোধন) বিল পাস সংসদে সিটি ইউনিভার্সিটির ভিসিকে তলব আর্থিক স্বচ্ছতা নিশ্চিত বিশ্ববিদ্যালয়ে স্থায়ী পিডি নিয়োগ চায় ইউজিসি

সকল