১৭ অক্টোবর ২০১৯

রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবর্তনে আরো অর্থ ব্যয়ের আহ্বান মিয়ানমারের

-

মিয়ানমারে সেনাবাহিনীর মানবাধিকার লঙ্ঘনের অভিযোগ তদন্তের পরিবর্তে বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়া রোহিঙ্গা শরণার্থীদের প্রত্যাবর্তনে অধিক অর্থ ব্যয় করার জন্য জাতিসঙ্ঘের কাছে আহ্বান জানিয়েছে মিয়ানমার সরকার। বুধবার এমন আহ্বান জানান জাতিসঙ্ঘে নিযুক্ত মিয়ানমারের উপ স্থায়ী প্রতিনিধি হমওয়ে হমওয়ে খিনে।
তিনি মিয়ানমারে আন্তর্জাতিক ফ্যাক্ট ফাইন্ডিং মিশনসহ সাতটি সংস্থার তদন্তকাজে ৩ কোটি ৫০ লাখ ডলার খরচের প্রসঙ্গ তুলে ধরেন। হমওয়ে হমওয়ে খিনে বলেন, মিয়ানমারের সম্মতি ও সহযোগিতা ছাড়া কোনো তদন্তই বাস্তব ফল বয়ে আনবে না। এক্ষেত্রে তিনি বলেন, শুধু ২০২০ সালের জন্য এ খাতে প্রস্তাবিত বাজেট হলো এক কোটি ৫০ লাখ ডলার। এর মধ্যে শতকরা প্রায় ২৬ ভাগ জাতিসঙ্ঘ ব্যয় করবে আইনগত বিষয়ে। তার ভাষায়, আমরা জানি না এসব তদন্ত শেষ হতে আর কত বছর সময় লাগবে।
গত মাসে ফ্যাক্ট ফাইন্ডিং মিশন তার ডকুমেন্টগুলো হস্তান্তর করেছে মিয়ানমারের ইন্ডিপেন্ডেন্ট ইনভেস্টিগেটিভ মেকানিজমের (আইআইএম) হাতে। আইআইএম রাখাইনে রোহিঙ্গা মুসলিমদের বিরুদ্ধে সেনাবাহিনীর মানবাধিকার লঙ্ঘনের অভিযোগের আরো তদন্ত অব্যাহত রাখবে। আইআইএম বলেছে, যারা অপরাধ করেছে তাদের বিচারের আওতায় আনা নিশ্চিত করতে কাজ করবে তারা। রাখাইনে গুরুত্বর অপরাধের জন্য দায়ী ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে ফৌজদারি মামলার জন্য উচ্চ মানের প্রমাণ প্রয়োজন। তারা তা অর্জনের জন্য সংগ্রাম করছে এবং তথ্য বিশ্লেষণ করবে।
হমওয়ে হমওয়ে খিনে বলেছেন, আমরা আন্তর্জাতিক ও জাতিসঙ্ঘের তদন্তকে ভয় করি না। তিনি দাবি করেন, মিয়ানমারের বিরুদ্ধে বহুবিধ অবিচার করা হচ্ছে এবং অনাকাক্সিক্ষত রাজনৈতিক চাপ দেয়া হচ্ছে ভিত্তিহীন অভিযোগে। তিনি বলেন, এ অবস্থায় ওইসব অভিযোগ প্রত্যাখ্যান করা ছাড়া আমাদের সামনে কোনো বিকল্প নেই।
উল্লেখ্য, ২০১৭ সালের ২ আগস্ট রাখাইন রাজ্যের রোহিঙ্গাদের ওপর সেনাবাহিনী নৃশংস অভিযান চালায়। এতে বাধ্য হয়ে কমপক্ষে ৭ লাখ ৪০ হাজার রোহিঙ্গা মুসলিম পালিয়ে এসে বাংলাদেশে আশ্রয় নিতে বাধ্য হন। এরপরে ওই বছরের নভেম্বরে দুই দেশের মধ্যে একটি প্রত্যাবর্তন বিষয়ক চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়। তবে এখনো প্রত্যাবর্তন শুরু হয়নি।


আরো সংবাদ

টংগিবাড়ীতে ইলিশ কেনায় সাবেক চেয়ারম্যানসহ ২৮ ক্রেতাকে দণ্ড উপেক্ষিত শ্রম আইন; বঞ্চিত কর্মকর্তা কর্মচারীরা রাজশাহীর টিপু সুলতানের বিরুদ্ধে রায় যে কোনো দিন জেমি ডে’র হাত ধরে ফুটবলে বাংলাদেশের উত্থান হেমা মালিনি যে কারণে ধর্মান্তরিত হয়ে ৪ সন্তানের জনককে বিয়ে করেছিলেন কাশ্মির সাবেক মুখ্যমন্ত্রী ফারুক আবদুল্লার মেয়ে এবং বোনকে ছেড়ে দিল ভারত বিশ্বকাপে সহ-আয়োজক হতে চায় বাংলাদেশ টেকনাফে মাদক মামলার ২ আসামি ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত সৎ মায়ের বিরুদ্ধে শিশু স্কুলছাত্রকে হত্যার অভিযোগ সিরিয়ায় যুদ্ধবিরতির মার্কিন আহ্বান তুরস্কের প্রত্যাখ্যান বাবরি মসজিদ মামলার শুনানি শেষ, রায় ১৭ নভেম্বর

সকল

ট্রাম্পের 'অতুলনীয় জ্ঞানের' সিদ্ধান্তে বদলে গেল সিরিয়া যুদ্ধের চিত্র (৩২১৮৮)ভারতের সাথে তোষামোদির সম্পর্ক চাচ্ছে না বিএনপি (১৮৪৫৫)মেডিকেলে চান্স পেলো রাজমিস্ত্রির মেয়ে জাকিয়া সুলতানা (১৪৯৪৬)তুরস্ককে নিজ ভূখণ্ডের জন্য লড়াই করতে দিন : ট্রাম্প (১৪৭০৩)আবরারকে টর্চার সেলে ডেকে নিয়েছিল নাজমুস সাদাত : নির্যাতনের ভয়ঙ্কর বর্ণনা (১৩৮১৫)পাকিস্তানকে পানি দেব না : মোদি (১১২৭৪)১১৭ দেশের মধ্যে ১০২ : ক্ষুধা সূচকে বাংলাদেশ-পাকিস্তানের চেয়ে পিছিয়ে ভারত (৮৯৭০)তুহিনকে বাবার কোলে পরিবারের সদস্যরা হত্যা করেছে : পুলিশ (৮৮৮৫)বাঁচার লড়াই করছে ভারতে জীবন্ত কবর দেয়া মেয়ে শিশুটি (৮৬৮৭)এক ভাই মেডিকেলে আরেক ভাই ঢাবিতে (৮৫২৩)



astropay bozdurmak istiyorum
portugal golden visa