১৬ অক্টোবর ২০১৯

সৌদিতে হামলার পর তেলের বাজার চড়া

-

সৌদি আরবের দু’টি তেল শিল্প ক্ষেত্রে বড় ধরনের হামলার পর জ্বালানি তেলের বাজারদর বাড়তে শুরু করেছে। শনিবারের ওই ড্রোন হামলায় বৈশ্বিক জ্বালানি তেলের সরবরাহ পাঁচ শতাংশেরও বেশি হ্রাস পেয়েছে বলে জানিয়েছে বিবিসি।
ইয়েমেনের হাউছি বিদ্রোহীরা দায় স্বীকার করলেও যুক্তরাষ্ট্র ওই হামলার জন্য ইরানকে অভিযুক্ত করেছে। তেহরান এ অভিযোগ অস্বীকার করেছে। পর্যবেক্ষকরা সৌদি আরবের তেল শিল্প ক্ষেত্রে হামলার পর থেকেই জ্বালানি তেলের দাম বেড়ে যেতে পারে বলে আশঙ্কা করছিলেন।
গতকাল সোমবার ব্রেন্ট অপরিশোধিত তেলের দাম ১০ শতাংশ বেড়ে ব্যারেলপ্রতি ৬৬ দশমিক ২৮ ডলারে পৌঁছেছে; অন্য দিকে এশিয়ায় ওয়েস্ট টেক্সাস ইন্টারমিডিয়েট ব্যারেলপ্রতি তেল লেনদেন হয়েছে আগের চেয়ে ৮ দশমিক ৯ শতাংশ বেশি দরে, ৫৯ দশমিক ৭৫ ডলারে। শুরুর দিকে আরো চড়া থাকলেও মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প বাজারে মার্কিন মজুদ থেকে তেল ছাড়ার অনুমোদন দেয়ার পর দর খানিকটা নেমে আসে বলে বিবিসি জানিয়েছে।
শনিবার সৌদি আরবের তেল শিল্পের একেবারে কেন্দ্রস্থলে ওই ড্রোন হামলায় ক্ষতিগ্রস্ত প্ল্যান্টের মধ্যে বিশ্বের সবচেয়ে বড় জ্বালানি তেল শোধনাগারও আছে।
প্ল্যান্ট দু’টির কার্যক্রম স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরে আসতে কয়েক সপ্তাহ পর্যন্ত লেগে যেতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে। হামলার ফলে সৌদি আরামকোর দৈনিক তেল উৎপাদন ৫৭ লাখ ব্যারেল হ্রাস পাবে বলে সৌদি আরবের রাষ্ট্রীয় এ তেল কোম্পানি জানিয়েছে। সৌদি তেল শিল্প ক্ষেত্রে হামলার ‘রাজনৈতিক ও ভূ-রাজনৈতিক প্রভাবের’ প্রতিক্রিয়ায় বাজারে তেলের দাম বাড়ছে বলে ওয়ান্দা নামে একটি বাজার বিশ্লেষক প্রতিষ্ঠানের সিনিয়র বিশ্লষক জেফ্রি হ্যালি জানিয়েছেন। ‘সবচেয়ে বড় বিষয় হচ্ছে, সৌদি আরবের এসব স্থাপনা হামলার হাত থেকে কতটুকু নিরাপদ?’ বলেছেন তিনি।


আরো সংবাদ




astropay bozdurmak istiyorum