২২ জুলাই ২০১৯
লিবিয়ায় হাফতারের ঘাঁটিতে ফরাসি ক্ষেপণাস্ত্র

প্যারিসের বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক অস্ত্র আইন লঙ্ঘনের অভিযোগ

-

লিবিয়ার জেনারেল খলিফা হাফতারের অনুসারী সেনাদের একটি ঘাঁটিতে ফ্রান্সের চারটি ট্যাঙ্কবিধ্বংসী ক্ষেপণাস্ত্র পাওয়ার পর প্যারিসের বিরুদ্ধে জাতিসঙ্ঘের আন্তর্জাতিক অস্ত্র আইন লঙ্ঘনের অভিযোগ উঠেছে। যদিও ফ্রান্স অস্ত্র আইন লঙ্ঘনের অভিযোগ অস্বীকার করেছে। দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে বলা হয়, যুক্তরাষ্ট্রের তৈরি জাভেলিন ক্ষেপণাস্ত্রগুলো ‘ব্যবহার অনুপযোগী’।
তারা কখনোই কোনো দলকে সেগুলো দিতে চায়নি এবং সেগুলো ধ্বংস করার কথা ছিল। লিবিয়ার রাজধানী ত্রিপোলির দক্ষিণের একটি ক্যাম্পে ওই ক্ষেপণাস্ত্রগুলো পাওয়া যায়। জেনারেল হাফতার বাহিনী আন্তর্জাতিক বিশ্ব সমর্থিত লিবিয়া সরকারের কাছ থেকে রাজধানী ত্রিপোলির দখল নিতে লড়াই করছে। গত এপ্রিলে হাফতার বাহিনীর অভিযান শুরুর পর লড়াইয়ে এখন পর্যন্ত শত শত মানুষ নিহত হয়েছে।
হাফতার বাহিনীকে আটকাতে ত্রিপোলির প্রধানমন্ত্রী ফায়েজ আল সেরাজের অনুগত বাহিনীগুলো প্রাণপণ লড়াই করছে। জুনে এরকম একটি লড়াইয়ে সেরাজি বাহিনী বিদ্রোহী হাফতার বাহিনীর একটি ঘাঁটির দখল নিলে সেখানে ওই ক্ষেপণাস্ত্রগুলো পাওয়া যায়। তার পরই ওয়াশিংটনে এ বিষয়ে তদন্ত শুরু হয়। বুধবার এক বিবৃতিতে ফ্রান্স ক্ষেপণাস্ত্রগুলো তাদের বলে স্বীকার করেছে। তবে দেশটি বলেছে, ওই ক্ষেপণাস্ত্রগুলো ‘নষ্ট, ব্যবহার অনুপযোগী’ এবং ‘ধ্বংস করার জন্য সাময়িকভাবে সেগুলোকে অস্ত্র গুদামে রাখা হয়েছিল’। ফ্রান্সের বিরুদ্ধে হাফতার বাহিনীকে সমর্থন ও সহায়তা করার অভিযোগ নতুন নয়। এর আগেও দেশটির বিরুদ্ধে একাধিকবার একই অভিযোগ উঠেছে। যদিও তারা বারবারই ওই অভিযোগ অস্বীকার করে বলেছে, জাতিসঙ্ঘের অস্ত্র আইন মেনে তারা কোনো সশস্ত্র দলকে কোনো অস্ত্র সরবরাহ করে না।
২০১১ সালে লিবিয়ার শাসক মুয়াম্মার গাদ্দাফিকে ক্ষমতা থেকে উচ্ছেদ করার পর থেকেই দেশটিতে অস্থিরতা বিরাজ করছে। কার্যত দেশটি দু’টি ভাগে ভাগ হয়ে আছে। একপক্ষ ত্রিপোলিভিত্তিক আন্তর্জাতিভাবে স্বীকৃত সরকার দেশটির পশ্চিম অংশ নিয়ন্ত্রণ করছে, অন্য দিকে সমান্তরাল আরেকটি প্রশাসন খলিফা হাফতারের জোটভুক্ত হয়ে পূর্বাঞ্চল নিয়ন্ত্রণ করছে। মিসর ও সংযুক্ত আরব আমিরাতের সমর্থন নিয়ে জেনারেল হাফতার উত্তর আফ্রিকার রাজনীতির অন্যতম খেলোয়াড়ে পরিণত হয়েছেন।


আরো সংবাদ

gebze evden eve nakliyat instagram takipçi hilesi