২০ মে ২০১৯

সামরিক বাহিনীকে ট্রাম্পের হুঁশিয়ারি

মাদুরোকে ছাড় নইলে সব হারাবা
-

ভেনিজুয়েলার সমাজতান্ত্রিক প্রেসিডেন্ট নিকোলাস মাদুরোকে সামরিক বাহিনীর যারা সমর্থন দিচ্ছেন তারা তাদের জীবন ও ভবিষ্যৎ ঝুঁঁকিতে ফেলছেন বলে হুঁশিয়ার করে দিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। ভেনিজুয়েলায় মানবিক ত্রাণ প্রবেশে আনুমোদন করতে দেশটির সেনাবাহিনীটির প্রতিও আহ্বান জানিয়েছেন তিনি।
সোমবার ফ্লোরিডার মিয়ামিতে এক সমাবেশে এসব কথা বলেন ট্রাম্প। সমাবেশে উপস্থিত লোকজনের বেশির ভাগই ছিল ভেনিজুয়েলা ও কিউবা থেকে যুক্তরাষ্ট্রে আসা অভিবাসী। তিনি বলেন,ভেনিজুয়েলার সামরিক বাহিনী যদি মাদুরোকে সমর্থন দেয়া অব্যাহত রাখে তাহলে তারা ‘সবকিছু হারাবে’। ট্রাম্প বলেন, তোমাদের সামনে কোনো নিরাপদ ভবিষ্যৎ নেই, বের হওয়ার সহজ কোনো দরজা নেই এবং কোনো পথও নেই। তোমরা সবই হারাবে। সোমবার রাতে দেয়া এক প্রতিক্রিয়ায় ট্রাম্পের ভাষণকে ‘নাৎসি ধরনের’ বলে অভিহিত করেছেন মাদুরো। তিনি বলেছেন, ট্রাম্পের আচরণ দেখলে মনে হয় তিনি ‘ভেনিজুয়েলার মালিক’ এবং এর ‘নাগরিকরা তার দাস’।
ট্রাম্প সমাবেশে আরো বলেছেন, ভেনিজুয়েলায় ক্ষমতার শান্তিপূর্ণ হস্তান্তর চাই আমরা, কিন্তু আমাদের সামনে সব বিকল্পই খোলা আছে। এই উক্তির মাধ্যমে ট্রাম্প ‘সামরিক বিকল্প তৈরি আছে’, ফের এমন ইঙ্গিত দিলেও এ ধরনের কোনো পদক্ষেপ নেয়া হবে না বলে মনে করছেন ল্যাটিন আমেরিকা বিষয়ে বেশির ভাগ বিশেষজ্ঞ।
চলতি মাসে হোয়াইট হাউজের এক ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা রয়টার্সকে জানিয়েছেন, ভেনিজুয়েলার সামরিক বাহিনীর সদস্যদের সাথে যুক্তরাষ্ট্রের সরাসরি যোগাযোগ হয়েছে এবং তাদের প্রতি মাদুরোর সঙ্গ ছাড়ার আহ্বান জানানো হয়েছে। ভেনিজুয়েলার সামরিক বাহিনীর অনেকেই মাদুরোর বিরুদ্ধে যাবে বলে ট্রাম্পের সহযোগীরা মনে করেছেন। কিন্তু বাস্তবে এ পর্যন্ত অল্প কিছু সামরিক কর্মকর্তাই শুধু মাদুরোর বিরুদ্ধে গেছেন।
নিজেকে ভেনিজুয়েলার ‘অন্তর্বর্তী প্রেসিডেন্ট’ ঘোষণাকারী বিরোধীদলীয় নেতা হুয়ান গুইদোর প্রতি দৃঢ় সমর্থন দিয়ে যাচ্ছেন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প। যুক্তরাষ্ট্রের পাশাপাশি ল্যাটিন আমেরিকার অনেকগুলো দেশ ও অধিকাংশ পশ্চিমা দেশ ভেনিজুয়েলার ‘অন্তর্বর্তী প্রেসিডেন্ট’ হিসেবে গুইদোকে স্বীকৃতি দিয়েছে। কিন্তু মাদুরো রাশিয়া ও চীনের সমর্থনের পাশাপাশি ভেনিজুয়েলার নিরাপত্তা বাহিনীগুলোসহ রাষ্ট্রীয় সংস্থাগুলোর সমর্থন ধরে রেখেছেন।

 


আরো সংবাদ