২১ নভেম্বর ২০১৮

এক ইনস্ট্রাগামে ১০ লাখ ডলার!

এক ইনস্ট্রাগামে ১০ লাখ ডলার! - ছবি : সংগৃহীত

বর্তমান সময়ে সোশ্যাল মিডিয়ার বাইরে রয়েছেন এমন মানুষ সহজে খুঁজে পাওয়া যায় না। সাধারণ মানুষ থেকে শুরু করে বিশ্বের তাবড় তাবড় সেলিব্রিটি টুইটার, ফেসবুক, ইনস্টাগ্রামে আসক্ত। কিন্তু জানেন কী এই সোশ্যাল মিডিয়া থেকে অর্থ উপার্জন করা সম্ভব। অন্তত সেলিব্রিটিরা এক–একটি পোস্ট করার জন্য নির্দিষ্ট পরিমাণ অর্থ পেয়ে থাকেন। তালিকায় নাম রয়েছে ভারত অধিনায়ক বিরাট কোহলি থেকে শুরু করে পর্তুগিজ মহাতারকা ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো, সেলেনা গোমেজ, বিয়ন্সে, কাইলি জেনারদের। আর তাদের প্রাপ্ত টাকার অঙ্কটা শুনলে চমকে যাবেন আপনিও। সম্প্রতি একটি সংস্থা ইনস্টাগ্রামে পোস্ট করার পর ঠিক কত টাকা পান সেলিব্রিটিরা, তার একটি তালিকা তৈরি করেছে।

• তালিকায় শুরুতেই নাম রয়েছে কাইলি জেনারের। মাত্র ২০ বছর বয়সের কাইলি জন্মসূত্রে কিম কার্দেশিয়ানের সৎ বোন। সম্প্রতি তিনি শিরোনামে উঠে এসেছেন। আমেরিকায় কমবয়সি ধনী ব্যক্তিদের তালিকায় শীর্ষস্থানে থাকা ফেসবুক সিইও মার্ক জাকারবার্গকে আরেকটু হলেও স্থানচ্যুত করে দিচ্ছিলেন তিনি। একটি ইনস্টাগ্রাম পোস্টের জন্য ১০ লাখ ডলার নিয়ে থাকেন কাইলি।

• গত বছর এই তালিকায় শীর্ষস্থানে থাকা সেলেনা গোমেজ এবার রয়েছেন দ্বিতীয় স্থানে। প্রত্যেকটি পোস্টের জন্য তিনি ৮ লাখ ডলার (ভারতীয় মুদ্রায় ৫.‌৪৪ কোটি‌) নেন।

• এই তালিকায় তৃতীয়, চতুর্থ এবং পঞ্চম স্থানে রয়েছেন যথাক্রমে ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো, কিম কার্দেশিয়ান এবং বিয়ন্সে। ষষ্ঠ এবং সপ্তম স্থানে রয়েছেন ডোয়েন জনসন ও জাস্টিন বিবার।

• তালিকায় ভারত অধিনায়ক বিরাট কোহলি রয়েছে ১৭ নম্বর স্থানে। ইনস্টাগ্রামে একটি পোস্ট করার জন্য তিনি পান ১ লাখ ২০ হাজার ডলার। তবে শুধুমাত্র খেলোয়াড়দের মধ্যে‌ তিনি রয়েছেন নবম স্থানে।‌‌

আরো পড়ুন :
ফেসবুকের শেয়ারে ধস
সময়টা ভালো যাচ্ছে না ফেসবুকের সিইও মার্ক জাকারবার্গের। এমনিতেই তথ্য-চুরির ঘটনা প্রকাশ্যে আসার পর ফেসবুকের ভাবমূর্তি নষ্ট হয়েছে। এবার তার সঙ্গে যোগ হলো বড়সড় লোকসানের খাঁড়া। শেয়ার বাজারে ধসের জেরে মাত্র কয়েক মিনিটের মধ্যে ১৫ বিলিয়ন মার্কিন ডলার লোকসান হলো জাকারবার্গের।

বুধবার হঠাৎই শেয়ার বাজারে মারাত্মকভাবে নিম্নমুখী হয়ে পড়ে ফেসবুকের শেয়ার। ওয়াল স্ট্রিটে বাজার বন্ধের সময় ২১ শতাংশ পড়ে যায় ফেসবুকের শেয়ারের দর। যার জেরে প্রায় ১৫ বিলিয়ন মার্কিন ডলার লোকসান হয়েছে ফেসবুকের। ফেসবুকের লোকসানের জেরে বিপুল লোকসানের মুখে পড়তে হচ্ছে বিনিয়োগকারীদেরও। চলতি আর্থিক বছরের দ্বিতীয় কোয়ার্টারে আশানুরূপ লাভ দেখাতে পারেনি জাকারবার্গের সংস্থা। এর জেরেই শেয়ার বাজারের এই দ্রুত পতন বলে মনে করা হচ্ছে।

কিছুদিন আগেই ফেসবুকের বিরুদ্ধে গ্রাহকদের তথ্য সুরক্ষিত রাখতে না পারার অভিযোগ উঠেছিল। কেমব্রিজ অ্যানালিটিকা নামে সংস্থার মাধ্যমে ফেসবুকের তথ্য চুরি করে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের নির্বাচনী প্রচারে কাজে লাগানো হয়েছিল বলে অভিযোগ ওঠে। যার জেরে ইউরোপের প্রায় দশ লক্ষ ফেসবুক ব্যবহারকারী নিজেদের অ্যাকাউন্ট বন্ধ করার সিদ্ধান্ত নেন। শুধু তথ্য চুরি নয়, ভারত-সহ উপমহাদেশের বেশ কয়েকটি দেশে ‘ফেক নিউজ’-এর রমরমা রুখতেও ব্যর্থ হয়েছে ফেসবুক। এর জেরে প্রশাসনিকভাবেও সমস্যায় পড়তে হয়েছে সংস্থাটিকে। যদিও ফেসবুকের দাবি, ভুয়ো মেসেজ ছড়ানো রুখতে কড়া ব্যবস্থা নিচ্ছে কর্তৃপক্ষ। এমনকী কাটছাঁট করা হচ্ছে বিজ্ঞাপনেও। তথ্য চুরি রুখতেও নতুন প্রযুক্তির উপর জোর দেয়া হচ্ছে বলে সংস্থাটির দাবি। কিন্তু এতবড় লোকসানের ধাক্কা সামলে জুকারবার্গের সংস্থা কীভাবে ঘুরে দাঁড়াবে তা নিয়ে বেশ চিন্তিত বাণিজ্য বিশ্লেষকরা।


আরো সংবাদ