Naya Diganta

দুর্নীতির অভিযোগে ডাকসু ভিপিকে পদত্যাগের আহ্বান জিএসের

সম্প্রতি তিনটি গণমাধ্যমে ঢাকা বিশ^বিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের (ভিপি) নুরুল হক নুরের ফোন রেকর্ড নিয়ে সংবাদ প্রকাশিত হয়। যদিও সে ফোনালাপকে খণ্ডিত এবং উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে ভিপিকে হেয় করার জন্য এমনটা করা হয়েছে বলে অভিযোগ ডাকসু ভিপির। এ কল রেকর্ডের জেরে ভিপিকে অপকর্মের দায় নিয়ে পদত্যাগের আহ্বান জানিয়েছেন জিএস গোলাম রাব্বানী। চাঁদাবাজির অভিযোগে ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদকের পদ থেকে অপসারিত ডাকসুর এ নেতার সাথে ভিপি বিরোধী কর্মসূচিতে যোগ দিয়েছেন ডাকসুর ছাত্রলীগ প্যানেলের নেতারাও।
গতকাল রোববার দুপুরে ডাকসুর সভাকক্ষে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে নুরের প্রতি পদত্যাগের আহ্বান জানান তারা। ডাকসুর পক্ষ থেকে লিখিত বক্তব্য তুলে ধরেন সদস্য রাকিবুল হাসান রাকিব।
সংবাদ সম্মেলনে গোলাম রাব্বানী বলেন, আমরা ডাকসু পরিবার নুরের এই অপকর্মের দায়ভার নিতে রাজি নই। আমাদের আহবান থাকবে, নুর যেন তার ডাকসুর ভিপির পদ থেকে অবিলম্বে পদত্যাগ করেন। তিনি যদি পদত্যাগ না করেন তাহলে আমরা ডাকসুর সংখ্যাগরিষ্ঠ সদস্য ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের পক্ষ থেকে বিশ^বিদ্যালয়ের ভিসি এবং ডাকসুর সভাপতির প্রতি আহ্বান জানাব তিনি যেন নৈতিক স্খলনের দায়ে নুরকে বহিষ্কারের ব্যবস্থা করেন।
সম্প্রতি জাহাঙ্গীরনগর বিশ^বিদ্যালয়ের ভিসির সাথে রাব্বানীর ফোনালাপ নিয়ে এবং ছাত্রলীগের পদ থেকে অব্যাহতি প্রসঙ্গে সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে রাব্বানী বলেন, সেই ফোনালাপে আমার সংশ্লিষ্টতা যে ছিল না, সেটা কিন্তু ক্লিয়ার হয়েছে। যাই হোক যেহেতু ওই সময় একটা অভিযোগ উঠেছিল, আমি আমার সংগঠনের পক্ষ থেকে এবং আমার নৈতিক দায়বদ্ধতা থেকে আমি এবং আমার সভাপতি রেজোয়ানুল হক চৌধুরী শোভন সাথে সাথে অব্যাহতি নিয়েছি। এরপরে আমরা বারবার তদন্ত করতে বলেছি এই ঘটনার। এখন পর্যন্ত তদন্ত কমিটি কিন্তু গঠন হয়নি।
ছাত্রলীগের সদ্য সাবেক সাধারণ সম্পাদক রাব্বানী বলেন, আমি ডাকসুর জিএস পদ ব্যবহার করে কোনো কাজ করিনি। যদি আমার নামে ডাকসুর জিএস পদ ব্যবহার করে কোনো অনৈতিক কাজ করার অভিযোগ আসে অবশ্যই আমি আমার জিএস পদ থেকে অব্যাহতি নেবো বা দায়িত্ব থেকে পদত্যাগ করব। আর নুরের বিরুদ্ধে ভিপি পদ ব্যবহার করার কিন্তু কোনো শুধু অভিযোগ নয়, দালিলিক প্রমাণও রয়েছে, অডিও-ভিডিও।
সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন ডাকসুর এজিএস সাদ্দাম হোসেন, স্বাধীনতা সংগ্রাম ও মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক সম্পাদক সাদ বিন কাদের চৌধুরী, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক আরিফ ইবনে আলী, আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক শাহরিমা তানজিম অর্ণি, সাহিত্য সম্পাদক মাজহারুল কবির শয়ন, সাংস্কৃতিক সম্পাদক আসিফ তালুকদার, সদস্য রকিবুল ইসলাম ঐতিহ্য, তানভীর হাসান সৈকত, তিলোত্তমা শিকদার, নিপু ইসলাম তন্বী, রাইসা নাসের, সাবরিনা ইতি, মুহা. মাহমুদুল হাসান, সাইফুল ইসলাম রাসেল ও রফিকুল ইসলাম সবুজ।
এর আগে ৫ ডিসেম্বর নুর এই বিষয়ে একটি সংবাদ সম্মেলনে তদবিরের অভিযোগ নাকচ করে বলেছেন, তার ভাবমূর্তি ক্ষুণœ করার জন্য মোবাইল কথোপকথনের খণ্ডিতাংশের অডিও প্রচার করা হয়েছে।
রোববার সংবাদ সম্মেলনের পর ভিপি নুর তার প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন। এ সময় ছাত্রলীগ নেতৃবৃন্দের প্রতি চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিয়ে ভিপি বলেন, কেউ যদি প্রমাণ করতে পারে যে, ডাকসুর ভিপি বিন্দুমাত্র অনৈতিক লেনদেন করেছে, অবৈধ লেনদেন করেছে, দুর্নীতির সাথে জড়িত হয়েছে। তাদের প্রশ্ন তোলার আগেই প্রমাণটা গণমাধ্যমে উপস্থাপন করলেই ডাকসুর ভিপি পদত্যাগ করবে। তিনি বলেন, দুর্নীতির অভিযোগ প্রমাণিত হলে আমি পদত্যাগ করব কিন্তু ছাত্রলীগের কথায় ডাকসুর ভিপি পদত্যাগ করবে না কিংবা ছাত্রলীগের কথায় কর্ণপাত করবে না।