Naya Diganta

চীনকে ঋণ দেয়া বন্ধ করুন

চীনকে ঋণ দেয়া বন্ধ করতে বিশ্ব ব্যাংকের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। শুক্রবার টুইটারে দেয়া এক পোস্টে তিনি এ আহ্বান জানান।
এর আগে ওয়াশিংটনের আপত্তি উপেক্ষা করে বেইজিংয়ের জন্য স্বল্প সুদে একটি ঋণদান পরিকল্পনায় অনুমোদন দেয় বিশ্বব্যাংক। এর এক দিনের মাথায় গত শুক্রবার এ নিয়ে প্রকাশ্যে মন্তব্য করেন ট্রাম্প।
টুইটারে দেয়া পোস্টে ট্রাম্প প্রশ্ন তোলেন, ‘বড়লোক চীনকে কেন এখনো ঋণ দিচ্ছে বিশ্বব্যাংক? এটা কি সম্ভব? এটা কি চলতে পারে? নাকি চলতে দেয়া উচিত? চীনের প্রচুর অর্থ আছে। চীনের অর্থের অভাব নেই। হলেও ওরা নিজেরাই মিটিয়ে নিতে পারে। চীনকে ঋণ দেয়া বন্ধ করুক বিশ্বব্যাংক।’
ট্রাম্পের এ টুইটের ব্যাপারে তাৎক্ষণিকভাবে হোয়াইট হাউজ বা বিশ্বব্যাংকের কোনো মন্তব্য পাওয়া যায়নি।
চীনকে বিশ্বব্যাংকের ঋণ দেয়ার ব্যাপারে এটা যে শুধুই প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প মনে করেন, তা নয়। একই বক্তব্য তার রাজস্ব বিভাগের মন্ত্রী স্টিভেন নুচিনেরও। গত বৃহস্পতিবার ‘হাউজ অব রিপ্রেজেন্টেটিভসে’ একটি কমিটির বৈঠকে নুচিন বলেছেন, ‘এ ব্যাপারে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের আপত্তির কথা বিশ্বব্যাংককে জানানো হয়েছে।’
তিনি জানিয়েছেন, বছরের পর বছর ধরে চীনকে বিভিন্ন প্রকল্পে বিশ্বব্যাংক যে এখনো ধার দিয়ে চলেছে, আমেরিকার তরফে তার তীব্র বিরোধিতা করা হয়েছে।
সেই প্রক্রিয়া বৃহস্পতিবার থেকে শুরুও হয়ে গিয়েছে বলে বিশ্বব্যাংক সূত্রে জানা গেছে। চীনে এ বার কমতে চলেছে বিশ্বব্যাংকের ঋণের পরিমাণ। চীনের জন্য বিশ্বব্যাংকের কান্ট্রি ডিরেক্টর মার্টিন রেইজার বলেছেন, ‘আমরা যে কর্মসূচি নিয়েছি তাতে চীনের সাথে আমাদের সম্পর্কের পুনর্মূল্যায়ন করা হয়েছে। চীনে ঋণ দেয়ার জন্য প্রকল্প এবার আমরাই বেছে নেবো।’
বিশ্বব্যাংকের এই পদক্ষেপও কিন্তু মার্কিন প্রেসিডেন্টকে সন্তুষ্ট করতে পারেনি। তিনি ও তার প্রশাসন চাইছেন, চীনকে ঋণ দেয়া একেবারেই বন্ধ করুক বিশ্বব্যাংক। ট্রাম্প প্রশাসনের বক্তব্য, যে অর্থ ঋণ হিসেবে এখনো চীনকে দিয়ে চলেছে বিশ্বব্যাংক, সেই অর্থে অনেক গরিব দেশের অর্থনীতি ঘুরে দাঁড়াতে পারে।