Naya Diganta

এবার গরুই আমিষাশী

পেটের জ্বালা বড় জ্বালা। তখন যা পাওয়া যায় তাই খেয়ে নিতে হয়। মানুষের পাশাপাশি অন্যান্য পশুÑ বিশেষ করে গরুর ক্ষেত্রেও এ কথা সমভাবে প্রযোজ্য। ক্ষুধার তাড়নায় ভারতের বেওয়ারিশ গরুগুলো সামনে যা পেয়েছে খেয়ে বেড়িয়েছে। সে তালিকা থেকে বাদ যায়নি মাছ-মাংসও। তাই এবার এ ধরনের সমস্ত বেওয়ারিশ গরু-মোষ ধরে এনে ‘শুদ্ধিকরণ’ অভিযান শুরু করেছে গোয়ার বিজেপি সরকার। তার জন্য ডেকে আনা হয়েছে পশু চিকিৎসককেও। তার তত্ত্বাবধানেই ওই সমস্ত গরুদের নিরামিষাশী করে তোলার চিকিৎসা শুরু হয়েছে।
গোয়ার আরপোরা গ্রামে একটি অনুষ্ঠান চলাকালে এ কথা জানান রাজ্যের বর্জ্য ব্যবস্থাপনামন্ত্রী মাইকেল লোবো। তিনি জানান, কলঙ্গুট থেকে ৭৬ বেওয়ারিশ গরু উদ্ধার করে গোশালায় নিয়ে যাওয়া হয়েছে। সেখানে তাদের দেখভাল করা হচ্ছে। পশু বিশেষজ্ঞের তদারকিতে রয়েছে তারা। সবগুলোকে ওষুধ দেয়া হচ্ছে।
মাইকেল লোবোর দাবি, আগে নিরামিষাশী ছিল গরুগুলো। মাছ-মাংসের গন্ধ পেলেই সরে যেত। কিন্তু রেস্তোরাঁর উচ্ছিষ্ট মাংস ও পচা মাছ খেয়ে তারা এখন আমিষাশী হয়ে গিয়েছে। আর রাস্তায় ঘুরে বেড়ানো ওই গরুগুলোর জন্য দুর্ঘটনা ক্রমশ বেড়ে চলেছিল। সে খবর কানে পৌঁছতেই গরু ধরপাকড় শুরু হয়। গোশালায় তাদের চিকিৎসা চলছে বলে জানিয়েছেন লোবো। ইন্টারনেট।