Naya Diganta

আইয়ুব বাচ্চুর চলে যাওয়ার এক বছর

আইয়ুব বাচ্চুর চলে যাওয়ার এক বছর

আজ ১৮ অক্টোবর। জনপ্রিয় সঙ্গীত শিল্পী আইয়ুব বাচ্চুর চলে যাওয়ার এক বছর। দীর্ঘ কয়েক দশক ব্যান্ড সঙ্গীতের জগতকে মাতানোর পর ২০১৮ সালের এই দিনে তার চলে যাওয়ার খবরে স্তম্ভিত হয়ে ছিলো সারা দেশের সঙ্গীত প্রেমীরা। তিনি নিজেকে পরিচয় দিতে ভালোবাসতেন প্রথমত একজন গিটারিস্ট হিসেবে। তারপর গায়ক। তিনি নিজেই গান লিখতেন, সুর করতেন।

আইয়ুব বাচ্চু ১৯৬২ সালে চট্টগ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। গানের জগতে আসেন ব্যান্ড ফিলিংস-এর মাধ্যমে। এর আগে বন্ধুদের সাথে ছোটখাট অনুষ্ঠান করতেন। কিন্তু ১৯৭৮ সাল থেকে ফিলিংস-এর সাথে তিন বছর তিনি চট্টগ্রামের বিভিন্ন হোটেলে ইংরেজি গান করেছেন।

সত্তরের দশক থেকে বাংলাদেশে শ্রোতাদের কাছে ইংরেজি গান, হার্ড-রক, ব্লুজ, অল্টারনেটিভ রক, ব্যান্ড মিউজিক - এসব জগতের পরিচয় হতে থাকে তার গানের মধ্য দিয়ে।

১৯৮০ সালের দিকে তিনি সোলস ব্যান্ডের সাথে গান করতেন। এই দলের সাথে তিনি ১০ বছর যুক্ত ছিলেন। তারপর ১৯৯১ সালে গঠন করেন এলআরবি। তিনি একক অ্যালবাম করেছেন ১৬টি। আর ব্যান্ড অ্যালবাম করছেন ১২টি। এর মধ্যে ‘কষ্ট’ এবং ‘ফেরারি মন’এই দুটি অ্যালবামের গান দেশের বড় শহর ছাড়িয়ে ছোট ছোট শহরেও আইয়ুব বাচ্চুর নামকে পরিচিত করে তোলে।

তবে রুপালি গিটার খ্যাত এই মানুষটি সব সময়ই চেয়েছেন সুর দিয়ে দেশের সীমানা অতিক্রম করতে। বাংলাদেশের মানুষ, বিশেষ করে তরুণ প্রজন্ম এবং সারা বিশ্বে যারা বাংলা ভাষাভাষী মানুষ আছেন, তাদেরকে গানের মাধ্যমে জাগিয়ে রাখার জন্যই আইয়ুব বাচ্চুর সব রকমের প্রচেষ্টা ছিলো।

নব্বইয়ের দশকে আইয়ুব বাচ্চুর এসব হিট অ্যালবামের প্রভাব পরে বাংলাদেশ ও কলকাতার মিউজিক ইন্ডাস্ট্রিতেও। তার ধ্যান, জ্ঞান, চিন্তা এবং কঠোর সাধনা তাকে এই জায়গায় উন্নীত করেছিলেন। তিনি যে ধারাটা তৈরি করে গেছেন সেটা অপূরণীয় থেকে যাবে।

এ কারণেই প্রিয় শিল্পীর মাত্র ৫৬ বছর বয়সে চলে যাওয়া সহজে মেনে নিতে পারেনি ব্যান্ড প্রেমিক এবং তার ভক্তরা। কথায়, গানে, সামাজিক মাধ্যমে বারবার উঠে এসেছে ‘সেই তুমি’ বা ‘একদিন ঘুম ভাঙা শহরে’। জনপ্রিয় ব্যান্ডশিল্পীর স্মৃতি ধরে রাখতে চট্টগ্রাম মহানগরীর প্রবর্তক মোড়ে গড়ে তোলা হয়েছে ‘রুপালি গিটার’। ভাস্কর্যটির উদ্বোধন করা হয়েছে গত মাসে। যা স্রোতা ভক্তদের সব সময় মনে করিয়ে দেবে রুপালি গিটারের কথা, আইয়ুব বাচ্চুর কথা।