Naya Diganta

জাতিসংঘ শান্তিরক্ষী পুলিশ সদস্য ফারুকের শেষ বিদায়

সহকর্মীদের শ্রদ্ধা ও ভালবাসায় চির বিদায় নিলেন জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা বাহিনীর মিনুসমা মালি (MINUSMA, Mali) মিশনে কর্মরত অবস্থায় মৃত্যুবরণকারী পুলিশ কনস্টবল মোঃ উমর ফারুক। তার নামাজে জানাজা আজ বুধবার সকালে রাজারবাগ পুলিশ লাইন্সের শহীদ এসআই শিরু মিয়া মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত হয়।

বাংলাদেশ পুলিশের ইন্সপেক্টর জেনারেল (আইজিপি) ড. মোহাম্মদ জাবেদ পাটোয়ারী, বিপিএম (বার), ঢাকাস্থ পুলিশের বিভিন্ন ইউনিটের প্রধানগণ, ঊর্ধ্বতন পুলিশ কর্মকর্তাবৃন্দ, পুলিশ সদস্যগণ, মরহুমের আত্মীয়-স্বজন ও সহকর্মীরা জানাজায় অংশগ্রহণ করেন।

জানাজা শেষে আইজিপি বাংলাদেশ পুলিশ এবং জাতিসংঘের পতাকায় মোড়ানো মরহুমের কফিনে পুষ্পস্তবক অর্পণ করে তাঁর প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। এরপর ডিএমপি কমিশনার মোঃ আছাদুজ্জামান মিয়া এবং অতিরিক্ত আইজিপি (এইচআরএম) চৌধুরী আবদুল্লাহ আল-মামুন এর নেতৃত্বে মালি মিশনের স্বতন্ত্র পুলিশ অফিসার (আইপিও) চেখ মোহাম্মদ ফাদেল দিওপ
ও এআইজি (ইউএন অ্যাফেয়ার্স) নাসিয়ান ওয়াজেদ মরহুমের কফিনে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন। একটি চৌকস পুলিশ দল মরহুমকে সশস্ত্র সালাম প্রদান করে। এ সময় এক মিনিট নিরবতা পালন করা হয়। তখন বিউগলে করুণ সুর বেজে উঠে।

এদিকে, আজ বুধবার ভোরে কনস্টবল ফারুকের মরদেহ হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে এসে পৌঁছায়। পুলিশ হেডকোয়ার্টার্সের ইউএন অ্যাফেয়ার্সের কর্মকর্তাগণ এবং মরহুমের পরিবারের সদস্যরা মরদেহ গ্রহণ করেন। এ সময় তাঁর স্বজনরা কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন। তখন এক হৃদয় বিদারক দৃশ্যের অবতারণা হয়। বিমানবন্দর থেকে পুলিশ এসকর্টসহ শান্তিরক্ষী উমর ফারুকের মরদেহ রাজারবাগ পুলিশ লাইন্সের শহীদ এসআই শিরু মিয়া মিলনায়তনে আনা হয়। সেখানে জানাজা শেষে পুলিশ এসকর্টসহ মরদেহ ময়মনসিংহ জেলার ফুলবাড়িয়া উপজেলার গ্রামের বাড়িতে পাঠানো হয়েছে। সেখানে পারিবারিক কবরস্থানে মরদেহ দাফন করা হবে।

উল্লেখ্য, কনস্টবল মোঃ উমর ফারুক গত ৫ আগস্ট মালির স্থানীয় সময় ২০.২৩ ঘটিকায় লেভেল-২ হাসপাতালে মৃত্যুবরণ করেন। তাঁর বয়স হয়েছিল ৩৫ বছর। মৃত্যুকালে তিনি পিতা-মাতা, স্ত্রী, তিন পুত্র সন্তান এবং বহু আত্মীয়-স্বজন ও গুণগ্রাহী রেখে গেছেন।