Naya Diganta

খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জন শেখ হাসিনার সাফল্য : মতিয়া চৌধুরী

আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ও শেরপুর- ২ (নকলা-নালিতাবাড়ী) আসনের এমপি ও সাবেক কৃষিমন্ত্রী বেগম মতিয়া চৌধুরী বলেছেন, শেখ হাসিনার সাফল্য হলো ফসলে। তার হাতে জাদু আছে তাই দেশ এখন খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ। ১৯৯৬ সালে সরকার গঠন করে ১৯৯৮ সালে আমরা খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ হয়েছি। এই মাটি এই মানুষই ছিল। বরং মানুষ কম ছিল মাটি বেশি ছিল।

তিনি বলেন, ২০০১ সালে দেশে আবার খাদ্য ঘাটতি হয়। ২০০৯ সালে সরকার গঠন করে আমরা আবার খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ হয়েছি। কিছু চাল রফতানিও করছি। নেপালে ভুমিকম্পের সময় আমরা সাহায্য করেছি। বাংলাদেশ কোনদিন অন্য দেশকে খাদ্যে সাহায্য করবে এটা আমাদের পূর্ব পুরুষরাও ভাবেনি। আজকে জমি কম মানুষ বেশি তারপরও আমরা এই অসাধ্যকে সাধন করতে সক্ষম হয়েছি। শেখ হাসিনার যোগ্যতা দিয়েই তিনি এই জায়গায় দেশটাকে এগিয়ে নিয়ে গেছেন।

রোববার সকালে নিজ তহবিল থেকে শেরপুরের নালিতাবাড়ী উপজেলার যোগানিয়া ইউনিয়নের কাপাসিয়া শহিদ স্মৃতি নিম্ন মাধ্যমিক বিদ্যালয় মাঠে ছাত্রীদের মাঝে থ্রি পিস ও গরীব অসহায়দের মাঝে ঈদুল ফিতরের শাড়ি বিতরণকালে তার বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

এসময় মতিয়া চৌধুরী আরো বলেন, সারা পৃথিবীতে প্লেগ রোগ হয়, কলেরা হয়, গুটি বসন্ত হয়। ঠিক তেমনি জঙ্গিবাদ একটি রোগ। এই জঙ্গিবাদ আমাদের অনেক অগ্রগতিকে নষ্ট করে দিতে চায়।

তিনি বলেন, এই দেশে আইটি আসবে এটা কেউ ভাবে নাই। আমাদের নেত্রী প্রধানমন্ত্রী ও তার সুযোগ্য সন্তান সজিব ওয়াজেদ জয় আইটিকে আমাদের দুয়ারে নিয়ে এসেছেন।

বেগম মতিয়া চৌধুরী তার নিজস্ব তহবিল থেকে পৌরনভাসহ ১০টি ইউনিয়নের ৫১টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ৫৫১ জন শিক্ষার্থী ও ২২শ’ অসহায় নারীদের মাঝে ঈদুল ফিতরের শাড়ি ও থ্রী পিস বিতরণ করেন।

এসময় তার সাথে ছিলেন, জেলা আওয়ামী লীগের আইন বিষয়ক সম্পাদক গোলাম কিবরিয়া বুলু, সহকারী পুলিশ সুপার (নালিতাবাড়ী সার্কেল) জাহাঙ্গীর আলম, সহকারী কমিশনার ভুমি লুবনা শারমীন, ওসি আবুল খায়ের, আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি আব্দুস সবুর, ডাক্তার দলিল উদ্দিন, যুগ্ম সম্পাদক ওয়াজকুরুনী, সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুল লতিফ, ফারুক আহমেদ বকুল, অর্থ বিষয়ক সম্পাদক গোপাল চন্দ্র সরকার, সাংস্কৃতিক বিষয়ক সম্পাদক সারোয়ার জাহান স্বপন প্রমুখ।