Naya Diganta

ফ্যাশনে হাতা : রঙের ফিচার

কোনো পোশাককে ফ্যাশনেবল করে তুলতে যে কয়েকটি বিষয় গুরুত্বপূর্ণ তার মধ্যে একটি জামার হাতা। শুধু হাতার ডিজাইন পোশাককে করে তুলতে পারে আকর্ষণীয়। সাধারণত একেক সময় একটা ডিজাইনের হাতাই ফ্যাশন ট্রেন্ড হিসেবে ফ্যাশনে অবস্থান করে। কিন্তু চলমান সময়ে একই সাথে কয়েক ধরনের হাতার ডিজাইন দেখা যাচ্ছে ফ্যাশনের অংশ হিসেবে।
ফ্যাশন ডিজাইনার জাভেদ কামাল ফ্যাশনের ক্ষেত্রে হাতার ডিজাইন প্রসঙ্গে জানালেন, হাতা হচ্ছে পোশাকের সেই অংশ যা বাদ দেয়া যায় না। অবশ্য স্লিভলেস ড্রেস হলে বিষয়টা আলাদা। বর্তমানে পোশাকের হাতায় চলছে নানা ডিজাইন।
এ বছর হাতার খানিকটা অংশ কাটিং করে বাকিটা নরমাল রেখে করা ডিজাইনের হাতা বেশ চলছে। এ ধরনের কাটিং হাতা সব ধরনের জামার ক্ষেত্রেই দেখা যাচ্ছে। এ ছাড়া রয়েছে মাইক হাতা। হাতার কনুই পর্যন্ত সাধারণ ছাঁটে রেখে নিচের দিকে বড় ঝুল দেয়া থাকে এই ডিজাইনে। কখনো জামায় কয়েক ধাপে ঝুল রেখে লেয়ার করে দেয়া থাকে হাতায়। কোনো কোনো জামার কাঁধ থেকে লম্বা ঝুল থাকে। এ ধরনের হাতায় ওপরের দিকে চাপা রেখে নিচে ক্রমেই ছড়ানো থাকে। কোনো হাতায় কুচি দিয়ে গোল ডিজাইন করা হয় এগুলোকে বলা হয় ঘটি হাতা। ডিজাইন করা হয় লেন্থ দিয়েও। খুব ছোট, থ্রি কোয়ার্টার, ফুল বিভিন্ন লেন্থে জামার হাতার ডিজাইন করা হয়ে থাকে।
হাতার ডিজাইন করার সময় পোশাকের ধরন, বয়স এসব বিষয়ও মনে রাখা প্রয়োজন। টিনেজাররা সব ধরনের হাতা অনায়াশে ব্যবহার করতে পারে। যাদের বয়স বেশি তাদের ক্ষেত্রে কোনো ধরনের হাতা ডিজাইন করার আগে তাকে মানাচ্ছে কি না সেই বিষয়টি প্রত্যেকের মনে রাখা প্রয়োজন।
শুধু কামিজ নয়, টপস, ফতুয়া, কুর্তি বিভিন্ন পোশাকের হাতার ডিজাইন করার সময় পোশাক অনুযায়ী হাতার ডিজাইন নির্বাচন করা প্রয়োজন। টপসের হাতা কামিজের হাতার মতো হলে ভালো লাগবে না। টপসের হাতা ফেন্সি হলেই ভালো লাগবে। শুধু জামা নয়, ব্লাউজের হাতায়ও বিভিন্ন ফ্যাশনেবল ডিজাইন করা হয়। শাড়ির সাথে ম্যাচিং করে নির্বাচন করুন ব্লাউজের হাতা।