Naya Diganta

ফুলবাড়ীতে ভিজিএফের চাল আত্মসাতের ঘটনায় তদন্ত

কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ী উপজেলায় ভাঙ্গামোড় ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান কর্তৃক ভিজিএফের চাল আত্মসাতের অভিযোগের সরেজমিন তদন্ত কার্যক্রম গতকাল মঙ্গলবার সম্পন্ন হয়েছে। ফুলবাড়ী উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা সবুজ কুমার গুপ্ত ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে তদন্ত কার্যক্রম সম্পন্ন করেন।

অভিযোগে জানা গেছে, পবিত্র ঈদুল আযহা উপলক্ষে উপজেলার ছয়টি ইউনিয়নের ন্যায় ৫নং ভাঙ্গামোড় ইউনিয়নে হত দরিদ্র পরিবারের মাঝে বিতরনের জন্য ১০.৩২ মে. টন ভিজিএফের চাল বরাদ্দ হয়। সংশ্লিষ্ট ইউপি চেয়ারম্যান, চাউল উত্তোলন করে পরিবার প্রতি ২০ কেজি হারে বিতরণের জন্য ৫১৬০ টি স্লিপ তৈরি করেন। গত ১৪ আগস্ট/১৮ চাল বিতরণ হলে তালিকাভুক্ত অর্ধশতাধিক পরিবার ভিজিএফের চাল না পেয়ে খালি হাতে ফিরে যায়। চাল বঞ্চিত পরিবারের সদস্যরা পরিবর্তীতে ২৯ আগষ্ট/১৮ চাল আত্মসাতের অভিযোগ তুলে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের দপ্তরে লিখিত অভিযোগ দাখিল করে। এছাড়াও ভাঙ্গামোড় ইউপি চেয়ারম্যান লুৎফর রহমান বাবু’র বিরুদ্ধে ওই ইউনিয়নের আটিয়াবাড়ী মৌজায় একই ব্যক্তির নাম একাধিক তালিকায় অন্তভুর্ক্ত করে ভিজিএফের চাল আত্মসাতের লিখিত অভিযোগ করেন ভুক্তভুগিরা। অভিযোগের প্রেক্ষিতে উপজেলা নির্বাহী অফিসার উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তাকে তদন্তের নির্দেশ দিলে তদন্ত অনুষ্ঠিত হয়েছে।

এ প্রসঙ্গে ভাঙ্গামোড় ইউপি চেয়ারম্যান লুৎফর রহমান বাবুর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, চাল আত্মসাতের অভিযোগ সত্য নয়। এটা আমার বিরুদ্ধে একটা ষড়যন্ত্র ।

তদন্তকারী কর্মকর্তা সবুজ কুমার গুপ্ত জানান, সরেজমিন তদন্তে সংশ্লিষ্ট সকল পক্ষের বক্তব্য নেয়া হয়েছে। দু’এক দিনের মধ্যে রিপোর্ট উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের নিকট দাখিল করা হবে।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার দেবেন্দ্রনাথ উরাঁও জানান, বিষয়টি তদন্তের জন্য উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তাকে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। তদন্ত রিপোর্ট হাতে পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।