Naya Diganta

ডুবে যাবে ব্যাংকক, বিপদে পড়বে ১ কোটি ৪০ লাখ মানুষ

ডুবে যাবে ব্যাংকক, বিপদে পড়বে ১ কোটি ৪০ লাখ মানুষ

বৈশ্বিক উষ্ণতার প্রভাবে জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে ডুবে যাওয়ার আশঙ্কায় রয়েছে বিশ্বের বিভিন্ন শহর। তবে সবচেয়ে বিপজ্জনক অবস্থায় আছে থাইল্যান্ডের রাজধানী ব্যাংকক।

থাইল্যান্ডের সরকার ও বিভিন্ন সংস্থার হিসাব মতে আগামী এক দশকের মধ্যে ব্যাংককের প্রায় অর্ধেকটা পানির নিচে তলিয়ে যেতে পারে।

ব্যাঙ্কক সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে মাত্র পাঁচ ফুট উচ্চতায় অবস্থিত, যা প্রতি বছর দুই সেন্টিমিটার করে ডুবছে। গ্লোবাল পোস্টের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, এই অবস্থা চলতে থাকলে আর প্রায় ৮১ বছর পর পুরো থাইল্যান্ডই পানির নিচে ডুবে যাবে।

তবে কেবল ব্যাঙ্ককই নয় দক্ষিণ এশিয়ার আরও কয়েকটি শহর পানির নিচে তলিয়ে যাওয়ার বিপদের সামনে দাঁড়িয়ে রয়েছে। ওই তালিকায় রয়েছে ইন্দোনেশিয়ার রাজধানী জাকার্তা ও ফিলিপিন্সের রাজধানী ম্যানিলা।

গ্রিনপিসের তারা বুয়াকামশ্রী বলেছেন, বিশ্বব্যাংকের প্রতিবেদন অনুযায়ী ভারি বৃষ্টিপাত এবং আবহাওয়ার ধরন পাল্টানোয় ২০৩০ নাগাদ ব্যাংককের ৪০ ভাগ ডুবে যাবে। বর্তমানে ব্যাংকক প্রতি বছর এক থেকে দুই সেন্টিমিটার করে ডুবছে এবং সামনের দিনগুলোতে মারাত্মক বন্যার হুমকি রয়েছে।

আশঙ্কার আরো একটি বিষয় থাইল্যান্ডের উপসাগরের পানি প্রতি বছর চার মিলিমিটার করে বাড়ছে। তাই পর্যটকদের কাছে অত্যন্ত জনপ্রিয় ব্যাংকক ডুবে গেলে বিপদের মধ্যেই পড়বে সেখানকার ১ কোটি ৪০ লাখ মানুষ। পরিস্থিতি এতোটাই ভয়াবহ যে, কর্তৃপক্ষ থাইল্যান্ডের রাজধানী অন্যত্র সরিয়ে নেয়ার চিন্তা-ভাবনা করছে।

ব্যাংকক বিমানবন্দরে সাপ!

১১ জানুয়ারি ২০১৬

থাইল্যান্ডের রাজধানী ব্যাংকক বিমানবন্দরে সাপ। তা-ও আবার যে সে সাপ নয়। একেবারে বিষধর কোবরা। যদিও কোনো দুর্ঘটনা ঘটেনি। কেননা সাপটি ছিল ‘বেবি সাপ’। তবে বিষধর এই প্রাণী বিমানবন্দরের ভিতর চলে আসায় বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষও অপ্রস্তুতে পড়েছে। শুধু তাই নয়, যাত্রীদের কাছে ক্ষমাপ্রার্থীও হয়েছে ব্যাংকক বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষ।

ব্যাংককের সুবর্ণভূমি ওরফে সুয়ানাপুম আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের লাগেজ কার্টের মধ্যে ঢুকে পড়ে একটি ছোট সাপ। বিমানবন্দর থেকে বেরোনোর আগে লাগেজ কার্ট থেকে ব্যাগ নেয়ার সময় এক যাত্রী প্রথমে সাপটি দেখতে পান। তার ব্যাগের মধ্যে সাপটি জড়িয়ে ছিল। তিনি সঙ্গে সঙ্গে বিমানবন্দরের কর্মীদের বিষয়টি দেখান।

তারপর বিমানবন্দরের নিরাপত্তা রক্ষীরা সাপটিকে ধরে মেরে ফেলে। বিমানবন্দরের ভিতর সাপ ঢোকার খবর প্রকাশ পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে যাত্রী এবং বিমানবন্দরের কর্মীদের মধ্যে তীব্র চাঞ্চল্য দেখা দেয়। ঘটনার পর যাত্রীদের কাছে ক্ষমা চান ব্যাংকক বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষ। যদিও কীভাবে সাপটি বিমানবন্দরের ভিতর ঢুকল তা স্পষ্ট নয়।