Naya Diganta

তুরস্কে একে পার্টিতে ব্যাপক পরিবর্তন

তুরস্কে একে পার্টিতে ব্যাপক পরিবর্তন

তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়েব এরদোগান আবারো দেশটির ক্ষমতাসীন দল জাস্টিস অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট পার্টির (একে পার্টি) চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন। সেন্ট্রাল ডিসিশন এন্ড এক্সিকিউটিভ বোর্ড (এমকেওয়াইকে) এর ৫০ সদস্যের মধ্যে ২৯ জনই নতুন। দলের নেতৃত্বে নবীন ও প্রবীণের সমন্বয় ঘটানো হয়েছে।

সম্প্রতি তুরস্কের রাজধানী আঙ্কারায় অনুষ্ঠিত একে পার্টির ষষ্ঠ কংগ্রেসে সেন্ট্রাল এক্সিকিউটিভ বোর্ড (এমওয়াইকে)  এরদোগানকে চেয়ারম্যান নির্বাচিত করার ঘোষণা দেয়।  নির্বাচনে একমাত্র প্রার্থী এরদোগানকে দলের চেয়ারম্যান হিসেবে সর্বসম্মতিক্রমে নির্বাচিত করেন দলের ১ হাজার ৩ শ’ ৮০ জন প্রতিনিধি। 

এর আগে দলের গঠনতন্ত্রে কিছু পরিবর্তন আনা হয়। প্রেসিডেন্টকে নির্বাহী ক্ষমতা দেওয়া দেশটির ক্ষমতাসীন পার্টি সংবিধানের সাথে সামঞ্জস্য রেখে এ পরিবর্তন এনেছে। কংগ্রেসে মোট ১ হাজার ৪৫৭ ভোটের মধ্যে ৫০ জনকে সেন্ট্রাল এক্সিকিউটিভ অ্যান্ড ডিসিশন বোর্ডের সদস্য নির্বাচিত করা হয়। নতুন নির্বাচনে কমপক্ষে অর্ধেক সদস্য পরিবর্তন হয়ে যাবে।

একেপার্টির কংগ্রেসে বক্তব্য দেয়ার সময় এরদোগান বলেন, তুরস্ক কোনো দেশের কাছে আত্মসমর্পণ করবে না। কেউ কেউ আমাদের অর্থনীতি, অবরোধ, মুদ্রামূল্য পতনসহ নানা হুমকি দিচ্ছে। কিন্তু আমরা আপনার খেলা দেখেছি এবং আমরা এই খেলাকে চ্যালেঞ্জ করছি।

নতুন নিয়মন অনুযায়ী প্রেসিডেন্সিয়াল কেবিনেটের সদস্যরা দলের সেন্ট্রাল এক্সিকিউটিভ অ্যান্ড ডিসিশন বোর্ডের সদস্য হতে পারবেন। ২০০১ সালে এরদোগানের উদ্যোগে একে পার্টি প্রতিষ্ঠা করা হয়। ২০১৪ থেকে ২০১৭ সাল পর্যন্ত পার্টির চেয়ারম্যান ছিলেন আহমেদ দাভুতোগ্লু ও বানিলি ইলিদিরিম। তুরস্কের সে সময়ের আইন অনুযায়ী কোনো পার্টির চেয়ারম্যান দেশের প্রেসিডেন্ট হতে পারতেন না। ২০১৭ সালের এপ্রিলে গণভোটে সংবিধান সংশোধনীর পর পার্টির চেয়ারম্যানের দেশের প্রেসিডেন্ট হওয়ার পথে সব বাধা দূর হয়ে যায়।