১৬ ডিসেম্বর ২০১৯

এগুলো কী বরফের ‘ডিম’ নাকি ‘রসগোল্লা’!

কোনওটা ডিমের মতো, কোনওটা আবার অবিকল ফুটবল। আবার মনে হতে পারে রসগোল্লা ছড়িয়ে ছিটিয়ে আছে সমুদ্র তটে। সারি সারি গোলক এভাবেই পড়ে রয়েছে। সাদা ধবধবে, মসৃণ গোলক। ফিনল্যান্ড–সুইডেনের মাঝে হাইলউটো দ্বীপে এভাবেই শোভা বর্ধন করেছে এই বরফ ডিম বা আইস এগ। গবেষকদের কথায়, এ একেবারে বিরল এক প্রাকৃতিক ঘটনা।

হিমাঙ্কের নিচে পানি বরফ হয়, বরফ জমতে জমতে হিমবাহ। আবার উষ্ণতা বাড়লে তা গলতে থাকে। এ তো প্রাথমিক বিজ্ঞানের বিষয়। কিন্তু পানি হিম হয়ে এমন সুন্দর আকার নিতে পারে, তা তো ভাবাই যায় না।

মনে হয় যেন কেউ বহু যত্ন করে বরফখণ্ডকে এমন গোল করে সাজিয়ে রেখেছেন। কিন্তু তাতেও বোধহয় এই মসৃণতা আসে না। আর হাইলউটো দ্বীপে সমুদ্রের পাড়ে এই বরফডিমের সমাহার কোনও শিল্পীর কাজ নয়। বরং প্রকৃতি নিজেই বরফকে এমন ব্যতিক্রমী আকার দিয়েছে।

কীভাবে তৈরি হল এই ডিম্বাকৃতি বরফ? আবহাওয়াবিজ্ঞানীরা বলছেন, ঠাণ্ডার সঙ্গে হু হু করে হাওয়া – এই দুটোই বরফকে এমন আকার দিতে সাহায্য করে।

জর্জ গুডফেলো নামে এক বিজ্ঞানী কথায়, ‘একটা বিস্তীর্ণ অংশজুড়ে বরফের চাদরের উপর যখন সমুদ্রের শীতল পানি আর হিমেল হাওয়ার ঝাপটা দেয়, তখন ওই স্তর গুটিয়ে গোলাকৃতি হতে থাকে। তবে এমন নিটোল গোল হওয়ার জন্য উপযুক্ত প্রাকৃতিক পরিবেশ চাই, যা প্রায় কোথাও মেলে না।
সমুদ্রের পানিও জমতে জমতে হিম হয়ে গেলে, তা এই বরফগোলার উপর পুরু আস্তরণ ফেলে তাকে নিটোল করে তোলে। এবছর এই অঞ্চলে সেই অনুকূল পরিবেশ তৈরি হওয়ায় এমন ব্যতিক্রমী দৃশ্য উপভোগ করতে পারছেন সকলে।’

ফিনল্যান্ড ও সুইডেনের মধ্যবর্তী সৈকতে এই দৃশ্য প্রথম চোখে পড়ে রিস্তো মাতিলা নামে এক চিত্রগ্রাহকের। তিনি এদৃশ্য দেখে বিস্ময়াবিষ্ট হন। সঙ্গে ক্যামেরা থাকায় প্রাথমিক বিস্ময় কাটিয়ে ছবি তোলেন। তার দৌলতেই এমন বিরল দৃশ্য সকলের সামনে এসেছে।

পরে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে মাতিলা বলেন, ‘আমি প্রায় ২৫ বছর ধরে এই অঞ্চলে আছি। কোনোদিন এমন দেখিনি। সেইদিন স্ত্রী আর আমি এমনি সমুদ্রের ধারে ঘুরতে গিয়েছিলাম। সারি সারি গোলাকার বস্তু দেখে ভাবতেই পারিনি যে এগুলো বরফ। অপূর্ব দৃশ্য!’

এর আগে রাশিয়া এবং শিকাগোর লেক মিশিগানেও এই দৃশ্য দেখা গিয়েছিল। ২০১৬ সালে সাইবেরিয়ার বাসিন্দারা এমন বিশালাকার বরফের ডিম দেখতে পেয়েছিলেন প্রায় ১৮ কিমি দীর্ঘ সমুদ্রতট জুড়ে। তবে এবারের হাইলউটো দ্বীপের এমন প্রাকৃতিক সৌন্দর্য যেন ছাপিয়ে গিয়েছে সব কিছুকে। সংবাদপ্রতিদিন ডট ইন।


আরো সংবাদ




hacklink Paykwik Paykasa
Paykwik