১৫ ডিসেম্বর ২০১৯

আবরার হত্যায় গ্রেফতার জেমির পরিবার এড়িয়ে চলছেন সবাইকে

আবরার ফাহাদ - ছবি : সংগৃহীত

বুয়েটের মেধাবী ছাত্র আবরার ফাহাদ হত্যার ঘটনায় আটক হয়েছেন ময়মনসিংহের আরেক মেধাবী ছাত্র মুনতাসির আল জেমি। জেমির বাবা-মা ময়মনসিংহ শহরের বাউন্ডারি রোডে থাকেন। তার বাবা আব্দুল মজিদ সোনালী ব্যাংকের ডেপুটি জেনারেল ম্যানেজার পদে কর্মরত।

আবরার ফাহাদ হত্যার ঘটনায় জেমি আটকের খবরে হতবাক বাবা-মা। উভয়ই বিস্মিত এবং নির্বাক হয়ে বাসায় অবস্থান করছেন। তিনি আত্মীয় স্বজন ছাড়া কারো সাথে সাক্ষাত বা কথা বলছেন না। মঙ্গলবার বিকেলে জেমির বাবার সাথে কথা বলার চেষ্টা করলে তিনি সাংবাদিকদের এড়িয়ে চলছেন।

পরিচয় প্রকাশে অনিচ্ছুক জেমির আত্মীয়, কোচিং শিক্ষক ও পরিচিত স্বজনদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, জেমি ময়মনসিংহ জিলা স্কুলের ‘ফাস্ট বয়’ ছিল। সে আনন্দ মোহন সরকারি কলেজ থেকে কৃতিত্বের সাথে এইচএসসি পাস করে বুয়েটে ভর্তি হয়। জেমি ভদ্র স্বভাবের ছেলে। পড়ালেখা ও খেলাধুলা ছাড়া জেমিকে কোনো ধরণের আড্ডায় দেখা যায়নি। হত্যাকান্ডের পর জেমি গ্রেফতার হওয়ায় তারা বিস্মিত হয়েছেন।

তাদের মতে, জেমি পরিস্থিতির শিকার হতে পারে। জেমির বিষয়টি নিয়ে কথা বলতে গেলে পরিবারের সদস্যরা সাংবাদিকদের এড়িয়ে চলেন। কিছু বলতে রাজি হননি।

পারিবারের একজন বলেছেন, জেমির বাবা পুরো ঘটনা কি তা এখনও জানেন না। তবে যতটুকু শুনেছেন ছাত্রলীগের নেতারা জেমিকে ডেকে নিয়ে যায়।

তাই তারা মনে করছেন, জেমি অনেকটাই পরিস্থিতির শিকার। কিছুদিন আগে জেমি হলের বাইরে থাকার জন্য পরিবারের কাছে নিজের ইচ্ছার কথাও জানিয়ে ছিল বলে তিনি জানান।


আরো সংবাদ

দৃশ্যমান হচ্ছে বিশ্বের সর্ববৃহৎ ক্রিকেট স্টেডিয়ামের (২০৬৮৮)মাংস রান্নার গন্ধ পেয়ে বাঘের হানা, জঙ্গলে নিয়ে গিয়ে জ্যান্ত খেল নারীকে (১৭৯১২)ব্রিটেনের প্রথম হিজাব পরিহিতা এমপি বাংলাদেশী বংশোদ্ভূত আপসানা (১৪৪০২)চিকিৎসার নামে নারীর গোপনাঙ্গে হাত দিতেন ভারতীয় এই চিকিৎসক (১১৪৮১)ব্রিটেনে বাংলাদেশ-ভারত-পাকিস্তানের যারা নির্বাচিত হলেন (১১৪১৬)নির্দেশনার অপেক্ষায় বিএনপির তৃণমূল (৯৫০১)দৈনিক সংগ্রাম কার্যালয়ে হামলা, সম্পাদক পুলিশ হেফাজতে (৯৪৪১)আরো এস-৪০০ ক্ষেপণাস্ত্র কিনবে তুরস্ক; নয়া হুমকি যুক্তরাষ্ট্রের (৭৯৬১)ক্ষমা চাওয়ার প্রশ্নই আসে না : রাহুল (৭৮০৭)বিক্ষোভের আগুন আসামে এতটা স্বতঃস্ফূর্তভাবে ছড়াবে, ভাবেননি অমিত শাহেরা (৭০৫৬)



hacklink Paykwik Paykasa
Paykwik