১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯

কর্মস্থলে ফেরা মানুষদের দুর্ভোগ চরমে

ময়মনসিংহের গৌরীপুর রেলওয়ে জংশন হয়ে চট্টগ্রাম ও ঢাকার রেলপথে বানের পানির মতো ছুটছে মানুষ। প্রিয়জনদের সঙ্গে ঈদের আনন্দ ভাগাভাগি শেষে কর্মস্থলে ফিরতে এই মানুষগুলো চরম দুর্ভোগের শিকার হচ্ছেন।

ঈদের এক সপ্তাহ অতিবাহিত হলেও মোহনগঞ্জ-ঢাকাগামী ও ময়মনসিংহ-চট্রগ্রামগামী আন্তঃনগর ট্রেনগুলোতে ট্রেনের ভিতরে ও ছাদে যাত্রীদের উপচে পড়া ভিড়। কোথাও তিল ধারনের ঠাঁই নেই।

এদিকে ট্রেনের সিডিউল বিপর্যয়ের কারণে সকাল থেকে গভীর রাত পর্যন্ত ময়মনসিংহের গৌরীপুর রেলওয়ে জংশন স্টেশনে ট্রেন যাত্রীদের উপচেপড়া ভিড় লেগেই আছে।

রোববার সকাল ১০টার দিকে গৌরীপুর রেলওয়ে স্টেশনে গিয়ে দেখা যায়, ঢাকাগামী শতশত যাত্রী আন্তঃনগর হাওর এক্সপ্রেস ট্রেনের জন্য অপেক্ষা করছে। ওই ট্রেনটি সাঠিক সময় সকাল ১০টা ১০ মিনিটে গৌরীপুর স্টেশন ত্যাগ করা কথা। কিন্তু অবশেষে বেলা সাড়ে ১১টার দিকে গৌরীপুর স্টেশনে প্রবেশ করে।

এই বিলম্বের কারণ জানতে চাইলে রেলের দায়িত্বরত কর্মকর্তা (নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক) জানান, বারবার ট্রেনের ইঞ্জিন বিকল হচ্ছে তাই ট্রেনের ধীরগতি অন্যদিকে যাত্রীদের প্রচন্ড চাপ। ট্রেনের ইঞ্জিন সমস্যার কারণে গৌরীপুর স্টেশনে এসেও ট্রেনটি ২০ মিনিট বিলম্ব করে।

এসময় দেখা যায় ট্রেনের ভেতর, ছাদে সব জায়গায় মানুষের উপচেপড়া ভিড় ছিল। দেখা গেছে, একজন অপরজনকে টেনে তুলেছেন ট্রেনের ছাদে। স্টেশনে ভিড়ের মধ্যে ট্রেনে ভিতর ও ছাদে উঠতে না পেরে অনেকেই হতাশ হয়ে দাঁড়িয়ে থাকতে দেখা গেছে। আর যারা ভিড় ঠেলে ট্রেনে উঠতে পেরেছেন তারা স্বস্তির নিঃশ্বাস ছেড়েছেন। অনেকে নারী পুরুষ ট্রেনে ওঠার চেষ্টা করে সুযোগ না পেয়ে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ছাদে উঠছেন।

এদিকে হাওড় এক্সপ্রেস ট্রেনটি ময়মনসিংহ স্টেশনে প্রবেশের আগেই আউটার সিগনালের কাছে আসতেই পুনরায় ইঞ্জিন বিকল হয়ে যায়। এসময় প্রচন্ড রোদে ট্রেনের ভিতর ও ছাদের যাত্রীরা চরম দুর্ভোগে পড়েন। পরে ইঞ্জিন মেরামত করে বিলম্বে ট্রেনটি ঢাকার উদ্দ্যেশে ছেড়ে যায়।

রেলওয়ে সূত্রে জানা য়ায়, মোহনগঞ্জ-ঢাকা রেলপথে প্রতিদিন গৌরীপুর রেলওয়ে জংশন স্টেশন হয়ে হাওড় এক্সপ্রেস ও মোহনগঞ্জ এক্সপ্রেস নামে দুইটি আন্তঃনগর ট্রেন, মহুয়া কমিউটার ট্রেন এবং জারিয়া-ঢাকা রেলপথে বলাকা কমিউটার ট্রেন ও ময়মনসিংহ-চট্রগ্রাম রেলপথে বিজয় এক্সপ্রেস ট্রেনটি নিয়মিত যাতায়াত করছে। এছাড়াও ময়মনসিংহ-ভৈরব, মোহনগঞ্জ ও জারিয়া রেলপথে কয়েকটি লোকাল ট্রেন চলাচল করছে। প্রতিটি ট্রেনেই যাত্রীদের ভিড় লক্ষণীয়।

ওই ট্রেনগুলো গৌরীপুর রেলওয়ে জংশন স্টেশনে যাত্রা বিরতি দেয়ার কারণে দলে দলে মানুষ ট্রেনে উঠার প্রতিযোগিতা করতে দেখা যায়। ট্রেনে হুড়োহুড়ি করে উঠতে গিয়ে অনেক সময় যাত্রীদের মাঝে হাতাহাতি ও বাগবিতন্ডার ঘটনা ঘটছে।

গত শনিবার (১৭ আগস্ট/১৯) আন্তঃনগর হাওড় এক্সপ্রেস ট্রেনে যাত্রী উঠাকে কেন্দ্র করে মারামারির ঘটনা ঘটে। এ সময় কয়েকজন যাত্রী আহত হন।

অপরদিকে শনিবার রাতে ছেড়ে যাওয়া আন্তঃনগর মোহনগঞ্জ এক্সপ্রেস ট্রেনেও যাত্রী উঠাকে কেন্দ্র করে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। প্রতিবছরের ন্যায় এবারও টিকেট কালোবাজারীদের দখলে। দ্বিগুণ, তিনগুণ দিয়ে নিতে হচ্ছে ট্রেনের টিকেট। এক টিকেট কালোবাজারীকে আটক করে মুছলেখা দিয়ে ছেড়ে দিয়েছে পুলিশ।


আরো সংবাদ

পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে ৪ বছরে ১২ হাজার কোটি টাকার উন্নয়ন বাজেট, খরচে স্বচ্ছতা কতটা? সাভারে নদীতে নিখোঁজ জেলের লাশ উদ্ধার গৃহবধূর অশ্লীল ভিডিও ধারণ করে চাঁদা দাবি : যুবক গ্রেফতার সাপ-কুমির নিয়ে মোদিকে হুমকি পাকিস্তানি শিল্পীর মহাদেবপুরে বিএনপির আহ্বায়ক কমিটির পরিচিতি সভা অনুষ্ঠিত মেয়েকে নিয়ে ট্রেনের নিচে লাফ দিয়ে মায়ের আত্মহত্যা শীঘ্রই ছাড়া পাচ্ছেন না ফারুক আবদুল্লাহ ডেঙ্গু জ্বরে খুলনায় শিশুর মৃত্যু ৫০ লাখ টাকা আত্মসাতের দায়ে বান্দরবানে যুবলীগ নেতা গ্রেফতার ভাণ্ডারিয়ায় ইজিবাইক চাপায় স্কুলছাত্র নিহত মঙ্গলবার ১১টা পর্যন্ত ভিকারুননিসার নতুন অধ্যক্ষের যোগদান নয়

সকল