২২ জুলাই ২০১৯

ভালুকায় গ্লোরী স্পিনিং মিলে পায়ুপথে বাতাস ঢুকিয়ে শ্রমিক হত্যার অভিযোগ

-

ময়মনসিংহের ভালুকা শিল্পাঞ্চলে একটি স্পিনিং মিলে পায়ুপথে বাতাস ঢুকিয়ে পারভেজ (১৪) নামে এক শিশু শ্রমিক হত্যার অভিযোগ পাওয়া গেছে। পারভেজ ভালুকা উপজেলার মেদুয়ারি ইউনিয়নের জালাল উদ্দিনের ছেলে। সে উপজেলার ভরাডোবা এলাকার গ্লোরী স্পিনিং মিলের শ্রমিক হিসেবে নিয়োজিত ছিল।

ভালুকা মডেল থানার ওসি মাইনুদ্দিন সাংবাদিকদের জানান, ওই মিলে পারভেজের দুই বোন শ্রমিকের কাজ করেন। এ ব্যাপারে পারভেজের বোন রহিমা ভালুকা থানায় অপমৃত্যু মামলা করেছেন।

তিনি জানান, ১৪ জুন দুপুর দেড়টায় কাজ করতে গিয়ে শরীরে জড়ানো তুলা ব্লোয়ার মেশিন দিয়ে পরিস্কার করার সময় মুখ দিয়ে বাতাস ঢুকে অসুস্থ হয়ে পড়লে পারভেজকে বিকাল সাড়ে চারটায় ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। রাতেই চিকিৎসকরা অস্ত্রোপচার করেন এবং ১৫ জুন ভোর ছয়টা তার মৃত্যু হয়।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, শুক্রবার দুপরে বিরতির পর ফ্যাক্টরির শ্রমিকরা কাজের সময় শরীরে জড়ানো তুলা পরিষ্কার করার সময় কয়েকজনের সাথে প্রতিযোগিতা করে। এসময় খামখেয়ালিপনায় তার সহকর্মীরা জোর করে পারভেজকে কমপ্রেসার মেশিন দিয়ে খেলার ছলে বা কোনো আক্রোশের জেরে পেটে হাওয়া ঢুকিয়ে হত্যা করতে পারে। পারভেজের মৃত্যুর পর হয়তোবা কোনো লেনদেনের বিনিময়ে সমঝোতা করে ময়না তদন্ত ছাড়াই লাশটি দাফন করা হয়।

পারভেজের চাচা আব্দুল কুদ্দুস খবরের সত্যতা স্বীকার করে বলেন, এ ব্যাপারে কোম্পানির সাথে সমঝোতার পর লাশ দাফন করা হয়েছে।

প্রতিবেশি সাবেক ইউপি মেম্বার ওয়াইজ উদ্দিন জানান, পুলিশের সাথে আলোচনা করে সমঝোতার মাধ্যমে পরিবারের লোকজন লাশ নিয়ে গেছেন।

ইউপি চেয়ারম্যান মো. শাহ আলম তরফদার জানান, লোক মারফত তিনিও ঘটনাটি শুনেছেন। তবে কিভাবে এমন দুর্ঘটনাটি ঘটলো, তা খোঁজ নিবেন বলেও জানান তিনি।

ফ্যাক্টরির সিকিউরিটি ইনচার্জ মো: আনছার উদ্দিন জানান, ঘটনা কি তা বলাবলি করার নিষেধ রয়েছে। অ্যাডমিন ম্যানেজার আনোয়ার স্যারের সাথে কথা বলার পরামর্শ দেন তিনি।

ফ্যাক্টরির অ্যাডমিন ম্যানেজার আনোয়ার হোসেনের মোবাইলে একাধিকবার ফোন দিলে ব্যস্ত আছেন বলে ফোনের সংযোগ কেটে দেন।

এদিকে হাসপাতালের নথিতে ভর্তির সময় টিকেটে শারিরিক নির্যাতন ও পেটে বাতাস ঢুকানোর কথা উল্লেখ রয়েছে। মৃত্যুর সনদে (পারপরেশন ইন সিগময়েট কোলন) পায়ুপথে সিগময়েড কোলন ছিদ্র হয়ে মল ছড়িয়ে পড়ায় দ্রুত রক্তে ইকফেকশন (সেপটিসেমিয়া) ঘটে পারভেজের মৃত্যু হয়েছে বলে উল্লেখ করা হয়।

বিষয়টি পুলিশ কেস হওয়ায় নাম প্রকাশ না করার শর্তে একজন চিকিৎসক জানান, ১০০ সিসির অধিক বেগে বায়ুপথে বাতাশ ঢুকানোর ফলে কোলনে ছিদ্র হয়েছে। হাসপাতালের নথি পর্যালোচনা করে সেটাই ধারণা করছেন তিনি।

হাসপাতালের রেকর্ড সম্পর্কে মন্তব্য জানতে চাইলে ভালুকা থানার ওসি মাইনুদ্দিন বলেন, বিষয়টি তদন্তের পর্যায়ে রয়েছে। ময়না তদন্তের রিপোর্টে পাযুপথে বাতাস ঢুকানোর প্রমাণ পেলে জড়িতদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

এ বিষয়ে জানতে গ্লোরী স্পিনিং মিলের জিএম মোখলেছুর রহমানকে একাধিকবার ফোন করা হলেও তার মোবাইল ফোনটি বন্ধ পাওয়া যায়।

বাংলাদেশ ট্রেড ইউনিয়ন সংঘের ময়মনসিংহ শাখার সাধারণ সম্পাদক তোফাজ্জল হোসেনের দাবি, ভর্তির টিকেট ও মৃত্যুর সনদে পারভেজের পায়ুপথে বাতাস ঢোকানোর কথা স্পষ্ট উল্লেখ রয়েছে। পারভেজের মৃত্যুর বিষয়ে সুষ্ঠু তদন্ত করে দোষীদের বিচার দাবি করেন তিনি।


আরো সংবাদ




gebze evden eve nakliyat instagram takipçi hilesi