২৬ জুন ২০১৯

‘আর করবো না ধান চাষ-দেখি তোরা কি খাস !’

-

ইসলামী আন্দোলন কেন্দ্রীয় কমিটির শূরা সদস্য মাওলানা মুহা. মামুনুর রশীদ বলেছেন, একজন শিল্পপতি আধা লিটার পানির মূল্য দিয়ে থাকেন ১৫ টাকা। আর বর্তমানে কৃষকের এক কেজি ধানের মূল্য ১২ টাকা। কৃষকরা ধানের যথাযথ মূল্য পাচ্ছেন না। তাই আজ কৃষক সমাজ বলতে বাধ্য হচ্ছেন ‘আর করবো না ধান চাষ-দেখি তোরা কি খাস!’

তিনি বলেন, এ দেশের কৃষক-শ্রমিক ও মেহেনতি মানুষ দুর্নীতি, সন্ত্রাসী, চাঁদাবাজি ও টেন্ডারবাজি করে না। বর্তমানে ধানের মূল্য কম হওয়ায় কৃষকরা আহাজারি করছে। তাই কৃষকদের আহাজারি দূর করতে ধানের ন্যায্যমূল্য নিশ্চিত করতে হবে এবং ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের সরকারিভাবে ক্ষতিপূরণ দেয়ার ব্যবস্থা করতে হবে।

জামালপুর জেলা ইসলামী আন্দোলনের আয়োজনে শনিবার শহরের মিয়াপাড়া হুমায়রা কমিউনিটি সেন্টারে ইফতার মাহফিলের পূর্বে ‘রমজানের গুরুত্ব ও তাৎপর্য’ শীর্ষক আলোচনা সভায় প্রধান আলোচক হিসেবে বক্তব্য প্রদানকালে এসব কথা বলেন তিনি।

জেলা ইসলামী আন্দোলনের সভাপতি ডাক্তার সৈয়দ ইউনুছ আহমাদের সভাপতিত্বে এবং সেক্রেটারি মুফতি মোস্তফা কামালের সঞ্চালনায় বক্তব্য রাখেন জামালপুর বড় মসজিদের খতিব মুফতি মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ, জাতীয় শিক্ষক ফোরাম জামালপুর শাখার আহ্বায়ক মাওলানা মোফাজ্জল হোসেন, সদস্য সচিব আনোয়ার হোসাইন, জামিয়া ইন্আ’মিয়া ইসলামীয়া কওমী মাদ্রাসার সহকারী শিক্ষা সচিব মুফতি আবু সাঈদ, জেলা ইসলামী আন্দোলনের জয়েন্ট সেক্রেটারি হাফেজ মাওলানা সুলতান মাহমুদ সিরাজী, সাংগঠনিক সম্পাদক মাওলানা শফিকুল ইসলাম, জেলা ইসলামী শ্রমিক আন্দোলনের সভাপতি হাফেজ লিয়াকত হোসাইন, সাধারন সম্পাদক শাহ্ আলম, ইসলামী শাসনতন্ত্র ছাত্র আন্দোলনের অর্থ সম্পাদক হামিদুল ইসলাম প্রমুখ।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন জেলা দ্বীন কায়েক সংগঠনের সভাপতি আলহাজ¦ শামছুল হক, সহ-সভাপতি আলহাজ¦ মতিউর রহমান, সেক্রেটারি আলহাজ¦ তোজাম্মেল হকসহ বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ এবং জেলা ইসলামী আন্দোলন ও সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।

আলোচনা সভা শেষে দেশ, জাতি ও মুসলমানের মঙ্গল কামনায় বিশেষ দোয়া পরিচালনা করেন আল-জামিয়াতুল হাবীবিয়াহ কওমী মাদ্রাসার প্রিন্সিপাল মাওলানা হাসান আলী। পরে উপস্থিত সকলেই ইফতার করেছেন।


আরো সংবাদ