১৮ ডিসেম্বর ২০১৮

কবি নজরুল বিশ্ববিদ্যালয়ে আন্দোলনকারীদের হুমকির অভিযোগ

কবি নজরুল বিশ্ববিদ্যালয়ে আন্দোলনকারীদের হুমকির অভিযোগ - ছবি : সংগৃহীত

জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ের নাট্যকলা বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মুহাম্মদ রুহুল আমিনের দ্বারা যৌন নিপীড়নের স্বীকার হন ওই বিভাগের তিন নারী শিক্ষকসহ অনেক নারী শিক্ষার্থী। যৌন নিপীড়নের শিকার সহকর্মী তিন নারী শিক্ষক গত ১৭ জুলাই বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য বরাবর একটি লিখিত অভিযোগ করেন। গঠন করা হয় তদন্ত কমিটি। দুই মেয়াদের পর তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেয় কমিটি।
শনিবার সিন্ডিকেট সভায় তা খোলা হবে এবং সিদ্ধান্ত নেবে সিন্ডিকেট বোর্ড। ঘটনার পর থেকে ওই শিক্ষকের স্থায়ী বহিষ্কারের দাবিতে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিলে উত্তাল ছিল বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস। এরই মধ্যে অভিযুক্ত শিক্ষক অভিযোগকারী তিন নারী শিক্ষকসহ আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীদেরকে বিভিন্নভাবে হুমকি দিচ্ছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।


যৌন নিপীড়নের শিকার সহকর্মী তিন নারী শিক্ষক গত ১৭ জুলাই বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য বরাবর একটি লিখিত অভিযোগ করেন। অভিযোগের পর সহকারী অধ্যাপক মুহাম্মদ রুহুল আমিনকে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করেন বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। গঠন করা হয় তিন সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি। কমিটিকে ১৫ কার্যদিবসের মধ্যে প্রতিবেদন দাখিল করতে বলা হয়।
১৫ কার্যদিবসের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করতে ব্যর্থ হয়ে আরো ৮ কর্মদিবসের সময় চেয়ে নেয় কমিটি। দুই মেয়াদের পর বিশ^বিদ্যালয় প্রশাসনের কাছে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেয় কমিটি। পরে তা সিলগালা করে রাখা হয়। আগামীকাল শনিবার সিন্ডিকেট সভায় খুলে দেখা হবে প্রতিবেদন। সিন্ডিকেট বোর্ড সমস্ত বিষয় পর্যালোচনা করে সিদ্ধান্ত নেবেন বলে জানা গেছে।

এদিকে ওই ঘটনার পর থেকে শিক্ষক রুহুল আমিনের স্থায়ী বহিষ্কারের দাবিতে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিলে উত্তাল ছিল বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস। এরই মধ্যে অভিযুক্ত শিক্ষক রুহুল আমিন নিজে এবং বহিরাগতদের মাধ্যমে অভিযোগকারী তিন নারী শিক্ষকসহ আন্দোলনকারী বেশ কয়েকজন শিক্ষার্থীকে বিভিন্নভাবে হুমকি দিয়েছেন বলে অভিযোগ করেন।


অভিযোগকারী দুই নারী শিক্ষক জানান, বহিরাগত দুই মোটরসাইকেল আরোহী এসে শাসিয়েছে গেছে। বলেছে, যদি রুহুল আমিন স্যার স্থায়ী বহিষ্কার হয় তবে এর ফলাফল ভাল হবেনা।
হুমকির ব্যাপারে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েক শিক্ষার্থী বলেন, রুহুল আমিন স্যার বলেছেন আমি আবার ফিরে আসছি। এক নারী শিক্ষার্থীকে বলেন, আপনারা আন্দোলন করছেন ? আমিও দশ কোটি টাকা নিয়ে মাঠে নেমেছি আমি যদি মানুষের বাচ্চা হই এর শেষ কোথায় দেখে নিব। হুমকির পর ভোক্তভোগি শিক্ষার্থীরা নিজেদের নিরাপত্তার জন্য লিখিতভাবে প্রক্টরের সহয়তা চেয়েছেন।


তবে হুমকির ব্যাপারে অভিযুক্ত শিক্ষক রুহুল আমিন অভিযোগগুলোকে উদ্দেশ্য প্রনোদিতভাবে হচ্ছে জানিয়ে বলেন, আমি নিজেই বিপদে আছি, কি করে অন্যদেরকে হুমকি দেব। বহিরাগতরা যে আমার হয়ে হুমকি দিচ্ছে তার প্রমান কি। স্থানীয় এলাকাবাসি আমার পক্ষ হয়ে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ করেছে।

আরো পড়ুন :

প্রেমের প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায়  
হোসেনপুর (কিশোরগঞ্জ) সংবাদদাতা

প্রেমের প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় কিশোরগঞ্জের হোসেনপুরে ষষ্ঠ শ্রেণীর এক স্কুল ছাত্রীর চুল কেটে নিয়েছে রফিকুল(১৫) নামে এক বখাটে। বৃহস্পতিবার দুপুরে পৌর এলাকার গোলচত্বর এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। 
জানা গেছে, উপজেলার পূর্বদ্বিপেশর গ্রামের তারা মিয়ার ছেলে রফিকুল স্কুলে যাওয়া-আসার সময় প্রায়ই ওই ছাত্রীকে প্রেমের প্রস্তাব দেয়াসহ নানোভাবে উত্যক্ত করত।

কিন্তু ছাত্রীটি তার এসব প্রস্তাবে সাড়া দিত না। এরই ধারাবাহিকতায়. ওই দিন দুপুরে স্কুলে যাওয়ার সময় রফিকুল আবারো তাকে প্রেমের প্রস্তাব দিলে রাজি না হওয়ায় ক্ষিপ্ত হয়ে ধারালো কাচি দিয়ে তার চুলের নিম্নাংশ কেটে নেয় ওই বখাটে।

পুলিশ জানায়, এ ঘটনার পর স্থানীয় লোকজন রফিকুলকে আটক করে। পরে প্রভাবশালীরা এসে স্থানীয় লোকজনকে মারপিট করে রফিকুলকে জোড় করে ছাড়িয়ে নিয়ে যায়। খবর পেয়ে হোসেনপুর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. আরাফাতুল ইসলাম পুলিশসহ অভিযান চালিয়ে রফিকুলকে গ্রেফতার করে থানায় নিয়ে আসে।

এ ব্যাপারে হোসেনপুর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. আরাফাতুল ইসলাম বলেন, ঘটনার পর রফিকুলকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তার বিরুদ্ধে থানায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।


আরো সংবাদ