১৮ নভেম্বর ২০১৮

ময়মনসিংহ ও কুষ্টিয়ায় ‘বন্দুকযুদ্ধে’ দুইজন নিহত

-

দেশব্যাপী চলমান মাদকবিরোধী অভিযানের মাঝে গত রাতে ময়মনসিংহ ও কুষ্টিয়ায় পুলিশের সাথে কথিত বন্দুকযুদ্ধের ঘটনায় দুইজন নিহত হয়েছেন। পুলিশ বলছে তারা মাদক ব্যবসায়ী। আমাদের সংবাদদাতাদের পাঠানো প্রতিবেদন :

ময়মনসিংহ অফিস জানায়, ময়মনসিংহের শহরতলী শম্ভুগঞ্জের চৈতালী এলাকায় আজ সোমবার ভোর রাতে পুলিশের সাথে বন্দুকযুদ্ধে আহসান উল্লাহ খান নোমান (৪০) নামে এক মাদক ব্যবসায়ী নিহত হয়েছে। এসময় কোতোয়ালী থানার এসআই তানজিলসহ দুই পুলিশ সদস্য আহত হয়। পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে দুইটি চাপাতি, একটি চাকু, চার রাউন্ড গুলি ও চারশ’ ৫০ পিস ইয়াবা উদ্ধার করে।

নিহত মাদক ব্যবসায়ী আহসান উল্লাহ খান নোমানের বাড়ি শহরের সেনবাড়ি মসজিদ রোড এলাকায়। তার বিরুদ্ধে কোতোয়ালী মডেল থানায় ১৩টি মাদক ও পুলিশ ভ্যান থেকে হ্যান্ডকাপসহ পালিয়ে যাবার অভিযোগ রয়েছে।

কোতোয়ালী মডেল থানার ওসি মাহমুদুল ইসলাম জানান, আহসান উল্লাহ খান নোমান শহরের কুখ্যাত মাদক ব্যবসায়ী এবং তার বিরুদ্ধে ১৪টি মামলা ও ৪টি মামলায় গ্রেফতারি পরোয়ানা রয়েছে। তিনি গত ১২ মে গ্রেফতার হলে পুলিশকে আহত করে পুলিশের পিকআপ ভ্যান থেকে হ্যান্ডকাপসহ পালিয়ে যান।

তিনি আরো জানান, নোমান বেশ কয়েকদিন ধরে শহরতলী শম্ভুগঞ্জের চৈতালী এলাকায় পালিয়ে আছে এমন সংবাদের ভিত্তিতে পুলিশ রোববার দিবাগত রাত ৩টার দিকে সেখানে অভিযান চালায়। এসময় পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে মাদক ব্যবসায়ীরা পাল্টা গুলি ও ইট-পাটকেল নিক্ষেপ করে। পুলিশও পাল্টা গুলি ছুঁড়লে মাদক ব্যবসায়ীরা পালিয়ে যায়। এসময় ঘটনাস্থল থেকে নোমানকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় উদ্ধার করে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করে। পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে ২টি চাপাতি, একটি চাকু, চার রাউন্ড গুলি ও চারশ’ ৫০ পিস ইয়াবা উদ্ধার করে।

আহত দুই পুলিশ সদস্যকে পুলিশ লাইনস হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হয়েছে।

কুষ্টিয়া সংবাদদাতা জানান, কুষ্টিয়ায় কথিত বন্দুকযুদ্ধে শহর আলী (৩৮) নামের এক ব্যক্তি নিহত হয়েছেন। পুলিশের দাবি তিনি মাদক ব্যবসায়ী। এ ঘটনায় তাদের পাঁচ পুলিশ সদস্য আহত হয়েছেন। ঘটনাস্থল থেকে পুলিশ অস্ত্র, গুলি ও মাদকদ্রব্য উদ্ধার করেছে।

আজ সোমবার ভোরে শহরতলীর হরিপুর-কুষ্টিয়া সংযোগ সেতুর নিচে এ ঘটনা ঘটে। নিহত শহর আলী কুষ্টিয়া শহরের মজমপুর এলাকার মনোয়ার বক্সের ছেলে।

কুষ্টিয়া মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নাসির উদ্দিন জানান, মাদকদ্রব্য কেনাবেচার উদ্দেশ্যে একদল মাদক ব্যবসায়ী শহরের হরিপুর-কুষ্টিয়া সংযুক্ত রাসেল সেতুর নিচে অবস্থান করছে এমন গোপন সংবাদ পেয়ে কুষ্টিয়া মডেল থানার একটি টিম অভিযান চালায়। পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে মাদক ব্যবসায়ীরা পুলিশকে লক্ষ করে গুলি ছোড়ে। জবাবে পুলিশও পাল্টা গুলি চালায়। এক পর্যায়ে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় একজনকে পড়ে থাকতে দেখে পুলিশ তাকে উদ্ধার করে কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে নিলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। পরে পুলিশ জানতে পারে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত ব্যক্তি জেলার তালিকাভুক্ত শীর্ষ মাদক ব্যবসায়ী শহর আলী।

ওসি আরও জানান, শহরের বিরুদ্ধে জেলার বিভিন্ন থানায় ১২টি মাদক মামলা রয়েছে। পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে একটি দেশি ওয়ান শুটারগান, তিন রাউন্ড গুলি ও ছয় পিস ইয়াবা উদ্ধার করেছে। লাশ ময়নাতদন্তের জন্য কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে।


আরো সংবাদ