১৩ নভেম্বর ২০১৮

পরকীয়ায় জীবন গেল গৃহবধূর, প্রেমিক চিকিৎসাধীন

পরকীয়ায় জীবন গেল গৃহবধূর, প্রেমিক চিকিৎসাধীন - ছবি : সংগৃহীত

এক সন্তানের জননী গৃহবধূ সুমি আক্তার (২৪) প্রেমিক আব্দুল আলীমের সাথে অজানার উদ্দেশ্যে মটরসাইকেল যোগে পালিয়ে যাওয়ার সময় সড়ক দুর্ঘটনা-কবলিত হয়ে মারা গেছেন। পুলিশ আজ বৃহস্পতিবার সকালে গৃহবধূর লাশ ময়না তদন্তের জন্য জেলা মর্গে প্রেরণ করেছে।

পুলিশ সূত্রে জানাগেছে, পৌর এলাকার পুটিয়ারপাড় গ্রামের ইব্রাহিমের কন্যা সুমি আক্তারকে টাংগাইল জেলার গোপালগঞ্জের কড়িহাটা গ্রামের মহাম্মদ আলীর পুত্র রাসেলের কাছে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন। এ সময় তাদের দাম্পত্য জীবনে একটি কন্যা সন্তান আখিঁ (৩) জন্ম নেয়। সংসার জীবনে সুমি আক্তার স্বামীর অজান্তে টাংগাইল জেলার গোপালগঞ্জের বাধুরিয়ার চর গ্রামের মাদ্রাসার ছাত্র আব্দুল আলীমের সাথে পরিচয়ের একপর্যায়ে পরকিয়া প্রেমে আসক্ত হয়ে পড়েন। এর জের ধরে গত বুধবার বিকেলে আব্দুল আলীম একটি মটর সাইকেল যোগে গোপনে সরিষাবাড়ীর পুটিয়ারপাড় গ্রামে আসেন এবং কৌশলে প্রেমিকা সুমি আক্তারকে নিয়ে পালিয়ে যান।

পথিমধ্যে পোগলদিঘা ইউনিয়নের বগার পাড় বড় বিল্ডিংয়ের পার্শ্বে রাস্তায় মটর সাইকেলটি দূঘটনায় কবলিত হয়। এতে সুমি আক্তার ঘটনাস্থলেই মারা যান। চালক প্রেমিক আব্দুল আলীম মটর সাইকেল থেকে ছিটকে পড়ে গাছের সাথে ধাক্কা খেয়ে গুরুতর আহত হয়। এ ব্যাপারে সুমির পিতা সরিষাবাড়ী থানায় আব্দুল আলীমকে আসামি করে একটি মামলা করেছে।
মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই সাইফুল ইসলাম জানান, চালক প্রেমিক আব্দুল আলীমকে গ্রেফতার করে পুলিশি হেফাজতে সরিষাবাড়ী হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে।

সরিষাবাড়ীতে অজ্ঞাত নারীর লাশ উদ্ধার
সরিষাবাড়ীর তারাকান্দি যমুনা সারকারখানা-সংলগ্ন পাচঁতারা জেটি ঘাট এলাকা নদী থেকে পুলিশ আজ বৃহস্প্রতিবার এক অজ্ঞাত নারীর গলিত লাশ উদ্ধার করেছে এবং লাশের ময়না তদন্তের জন্য জেলা মর্মে প্রেরণ করেছে বলে পুলিশ সূত্র জানিয়েছেন।

আরো পড়ুন :
প্রেমিককে গাছে বেঁধে প্রেমিকাকে গণধর্ষণের অভিযোগ
নড়াইল সংবাদদাতা
নড়াইল সদরের হবখালী ইউনিয়নের সুবুদ্ধিডাঙ্গা গ্রামে প্রেমিককে গাছে বেঁধে প্রেমিকাকে গণধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় গতকাল দুপুরে তিনজনের নামে সদর থানায় মামলা হয়েছে। এর আগে মঙ্গলবার রাতে নড়াইল সদরের ডাঙ্গাসিঙ্গীয়া গ্রামের ভুক্তভোগী মেয়েটিকে প্রায় তিন ঘণ্টা ধরে গণধর্ষণ করে বলে মামলায় উল্লেখ করা হয়েছে। এ মামলার আসামিরা হলো : সুবুদ্ধিডাঙ্গা গ্রামের আজাদ মিনার ছেলে রফিকুল মিনা (৩০), হালিম মিনার ছেলে শাহজালাল মিনা (২৩) এবং আজগর মিনার ছেলে মাসুম মিনা (২৫)।

এ দিকে গতকাল দুপুরে নড়াইল সদর হাসপাতালে মেয়েটির ডাক্তারি পরীক্ষা সম্পন্ন হয়েছে। ঘটনার শিকার মেয়েটি নড়াইলের লোহাগড়া উপজেলার ব্রাহ্মণীনগর গ্রামে নানাবাড়িতে থেকে অষ্টম শ্রেণীতে পড়ালেখা করছে।
মামলার বিবরণে ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, গত মঙ্গলবার রাতে তার প্রেমিককে সাথে নিয়ে যশোর থেকে নড়াইলে আসছিল অষ্টম শ্রেণীর ওই শিক্ষার্থী। পথে নড়াইলের হবখালী আদর্শ কলেজ এলাকায় অটোবাইক থেকে নেমে পড়ে তারা। রাত ৯টায় মাসুমের দোকানের কাছে পৌঁছলে ৮-৯ জন লোক তাদের পথরোধ করে। স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানের কাছে নেয়ার কথা বলে তাদের হবখালী বাজারের দিকে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে এলাকার কয়েকজন যুবক।

একপর্যায়ে অভিযুক্ত রফিকুল মিনা, শাহজালাল মিনা ও মাসুম মিনা হবখালী কলেজ এলাকায় প্রেমিককে গাছে বেঁধে পাটক্ষেতে নিয়ে প্রেমিকাকে গণধর্ষণ করে এবং বুক, মুখ ও হাতের বিভিন্ন অংশ জখম করে। গণধর্ষণের পর আসামিরা হুমকি দেয়- বিষয়টি কাউকে জানালে তারা ইন্টারনেটে ছেড়ে দেবে। প্রায় তিন ঘণ্টা ধরে গণধর্ষণের পর মেয়েটি অসুস্থ হয়ে পড়লে অভিযুক্ত যুবকেরা তাকে ক্ষেতের মধ্যে ফেলে চলে যায়।

আরো পড়ুন :
৫ বছরের শিশুকে যৌন নির্যাতন
কিশোরগঞ্জ সংবাদদাতা
নীলফামারীর কিশোরগঞ্জ উপজেলার রনচণ্ডী ইউনিয়ের মাঝাপাড়া গ্রামে গতকাল সকাল ১০টায় পাঁচ বছর বয়সী শিশুকন্যকে ধর্ষণ করে মনির উদ্দিনের ছেলে আবদুল মজিদ (৪৮)। প্রচুর রক্তক্ষরণ হওয়ায় শিশুটিকে রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

এলাকাবাসী ও পুলিশ সূত্র জানায়, একই গ্রামের নাবিল আনোয়ারের পাঁচ বছরের কন্যা শিশু রাস্তায় খেলছিল। এ সময় আবদুল মজিদ শিশুটিকে কোলে নিয়ে মরিচ ক্ষেতে গিয়ে ধর্ষণ করে। ধর্ষণ করার সময় শিশুটির আর্তচিৎকারে জ্যাঠাতো ভাই আশিক মিয়া দৌড়ে গিয়ে শিশুটিকে মরিচ ক্ষেত থেকে উদ্ধার করে বাড়িতে নিয়ে আসে। এ সময় ধর্ষক পালিয়ে যায়। প্রচুর রক্তক্ষরণ হওয়ায় শিশুটিকে রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

ধর্ষিতার জ্যাঠা বাংলাবাজার উচ্চবিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সোনা মিয়া ঘটনার বিষয় স্বীকার করে বলেন শিশুটির প্রচুর রক্তক্ষরণ হওয়ায় শারীরিক অবস্থা ভালো নয়। ডাক্তার রক্ত দিতে বলেছে।

কিশোরগঞ্জ থানার ওসি (তদন্ত) মফিজুল হক বলেন, আমরা এলাকাবাসীর কাছ থেকে খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়েছিলাম। শিশুটির পরিবার থেকে অভিযোগ পেলে মামলা নেয়া হবে।

 


আরো সংবাদ

১০ বিশিষ্ট ব্যক্তিকে নির্বাচনে সম্পৃক্ত করতে চান ড. কামাল আস্থা রাখুন, হিন্দু সম্প্রদায়কে ফখরুল ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন আগের চেয়ে বেশি দমনমূলক : অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল আ’লীগের মনোনয়ন বোর্ডের সদস্য হলেন ফারুক খান ও আব্দুর রাজ্জাক সহকর্মীর আঘাতে প্লাস্টিক ফ্যাক্টরির কর্মচারী নিহত শিক্ষাক্ষেত্রে উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে হবে : শিক্ষামন্ত্রী সাংবাদিক শিমুল হত্যা মামলায় মেয়র মিরুর জামিন স্থগিত শিশুশ্রম নির্মূলের ল্যমাত্রা অর্জনে দেশ যথেষ্ট পিছিয়ে নির্বাচনী তফসিল পুনর্নির্ধারণ জাপা ইতিবাচকভাবেই দেখছে : জি এম কাদের ৩২ আসনে প্রার্থী চূড়ান্ত করেছে খেলাফত আন্দোলন অভিভাবক ঐক্য ফোরাম চেয়ারম্যানের মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবি

সকল