১৬ ডিসেম্বর ২০১৯
প্রকল্পটিসহ ৮টি ক্রয় প্রস্তাবের অনুমোদন

লেবুখালী সেতুতে ব্যয় ১১৭০ কোটি টাকা

-

‘বরিশাল-পটুয়াখালী মহাসড়কে পায়রা নদীর ওপর ১৪৭০ মিটার দৈর্ঘ্যরে পায়রা সেতু (লেবুখালী সেতু) নির্মাণ প্রকল্প’-এর অনুমোদন দিয়েছে সরকারি ক্রয়সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটি। প্রকল্পে মোট ব্যয় হবে ১১৭০ কোটি ৬ লাখ ৫৫ হাজার টাকা। গতকাল সচিবালয়ে অনুষ্ঠিত বৈঠক শেষে সন্ধ্যায় কৃষিমন্ত্রী ড. আব্দুর রাজ্জাক এ তথ্য জানান। বৈঠকে এ প্রকল্পটিসহ মোট আটটি ক্রয় প্রস্তাবের অনুমোদন দেয়া হয়েছে।
সচিবালয়ে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। বৈঠক চলাকালে অর্থমন্ত্রী জরুরি কাজে চলে যাওয়ার পর বৈঠক শেষে অনুমোদিত প্রকল্পগুলোর বিভিন্ন দিক তুলে ধরেন কৃষিমন্ত্রী ড. আব্দুর রাজ্জাক। বৈঠকে কমিটির সদস্য, মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সচিব সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের সচিব ও ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। বৈঠক শেষে অর্থমন্ত্রী অনুমোদিত ক্রয় প্রস্তাবগুলোর বিভিন্ন দিক তুলে ধরেন।
সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগ সূত্রে জানা যায়, গত ২০১২ সালের ৮ মে এবং দ্বিতীয় সংশোধিত ডিপিপি ২৭/০২/২০১৯ সালের ২৭ ফেব্রুয়ারি একনেক সভায় অনুমোদিত হয়। সেতুর নকশা পরিবর্তন হওয়ায় সংশোধিত নকশা অনুযায়ী অতিরিক্ত টেস্ট পাইল, টোল প্লাজা বরিশাল প্রান্তের পরিবর্তে পটুয়াখালী প্রান্তে, বরিশাল প্রান্তে ফেরিঘাট স্থানান্তরসহ কিছু অতিরিক্ত টেন্ডার/নন টেন্ডার আইটেম যুক্ত হওয়ায় ভেরিয়েশন অর্ডার বাবদ অতিরিক্ত ১৪৭ কোটি ৮৪ লাখ ১ হাজার ৭৭১ টাকা এবং সম্পাদিত চুক্তিমূল্য ১০২২ কোটি ২২ লাখ ৫৩ হাজার ৬৭৪ টাকা (ভ্যাট/আইটিসহ) সর্বমোট ১১৭০ কোটি ৬ লাখ ৫৫ হাজার ৪৪৫ টাকায় ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান লংজিয়ান রোড অ্যান্ড ব্রিজ কোম্পানি লিমিটেডের সাথে সংশোধিত চুক্তি সম্পাদনের প্রস্তাব সিসিজিপির অনুমোদনের জন্য উপস্থাপন করা হলে কমিটি তাতে অনুমোদন দিয়েছে।
কৃষিমন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে ‘নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজারে জাপানি অর্থনৈতিক অঞ্চলের জন্য অবকাঠামো উন্নয়ন প্রকল্প’ এর আওতায় পরামর্শক ফার্মের সাথে সম্পাদিত চুক্তি স্বাক্ষরের একটি প্রস্তাব অনুমোদনের জন্য বৈঠকে উপস্থাপিত হয়েছিল। কমিটি তাতে অনুমোদন দিয়েছে। প্রকল্পটিতে ব্যয় হবে ১৭২ কোটি ১৭ লাখ টাকা। জাপানের নিপ্পন কোই প্রকল্পের পরামর্শক হিসেবে নিয়োগ পেয়েছে।
মন্ত্রী বলেন, ২০১৯-২০২০ অর্থবছরের বাজেটে গম আমদানির নির্ধারিত লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে প্যাকেজ-২ এর আওতায় ৫০ হাজার টন গম আমদানির লক্ষ্যে খাদ্য অধিদফতর কর্তৃক আন্তর্জাতিক কোটেশন আহ্বান করলে সাতটি কোটেশন বিক্রি হলেও চারটি কোটেশন জমা পড়ে। দরপত্র মূল্যায়ন কমিটি কর্তৃক পর্যালোচনাপূর্বক চারটি গ্রহণযোগ্য দরদাতা প্রতিষ্ঠান থেকে সুপারিশকৃত সর্বনি¤œ কোটেশনার সিঙ্গাপুর ভিত্তিক মেসার্স সুইস সিঙ্গাপুর ওভারসিস প্রাইভেট লিমিটেডের কাছ থেকে ৫০ হাজার টন গম সংগ্রহ করবে। প্রতি টন ২৬৮ দশমিক ১৪ মার্কিন ডলার হিসেবে বাংলাদেশী মুদ্রায় ১১৩ কোটি ৬২ লাখ ৪৩ হাজার টাকা ব্যয় হবে। কমিটি প্রস্তাবটি অনুমোদন দিয়েছে।
বৈঠকে চলতি বছরের নভেম্বর-ডিসেম্বর সময়ে অতিরিক্ত চাহিদা পূরণের জন্য জিটুজি ভিত্তিতে আমদানি মোগ্যাসের প্রিমিয়াম ও মূল্য (রেফারেন্স প্রাইস অনুযায়ী) অনুমোদনের প্রস্তাব অনুমোদন দেয়া হয় বলে কৃষিমন্ত্রী জানান।
বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম করপোরেশন (বিপিসি) ২০১৯ সালে দেশে পরিশোধিত জ্বালানি তেলের চাহিদা পূরণের লক্ষ্যে ১৯/০৯/২০১৮ তারিখের সিসিইএর অনুমোদক্রমে ৬০ হাজার টন +১০% মোগ্যাস (অকটেন ৯৫ আরোএন) ৫০ শতাংশ জিটুজি প্রক্রিয়ায় এবং ৫০ শতাংশ টেন্ডার প্রক্রিয়ায় আমদানি করে। স্থানীয়ভাবে পেট্রোলের চাহিদা বৃদ্ধি এবং জুলাই, ২০১৯ থেকে সিএনজির মূল্য বৃিদ্ধর পরিপ্রেক্ষিতে অকটেনের চাহিদা বৃদ্ধি পাওয়ায় জরুরি প্রয়োজনে চলতি বছরের নভেম্বর-ডিসেম্বর সময়ে ৩০ হাজার টন (+১০%) মোগ্যাস আমদানির লক্ষ্যে সাতটি জিটুজি সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে কোটেশন আহ্বান করা হলে তিনটি প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে মতামত পাওয়া যায়। তাদের মধ্য থেকে বিদ্যমান প্রিমিয়ামে সম্মত একমাত্র সরবরাহকরী প্রতিষ্ঠান ইন্দোনেশিয়ার পিটি.ভবুমি সিয়াক পুসাকো জাপিন (বিএসপি)-এর কাছ থেকে জিটুজি ভিত্তিতে চলতি বছরের নভেম্বর-ডিসেম্বর সময়ে ৩০ হাজার টন (+১০%) মোগ্যাস আমদানি করবে। এ জন্য ব্যয় হবে ১৫৯ কোটি ৯২ লাখ টাকা।
বৈঠকে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগ কর্তৃক বাস্তবায়নাধীন ‘লার্নিং অ্যান্ড আর্নিং ডেভেলপমেন্ট (২য় সংশোধিত)’ শীর্ষক প্রকল্পের আওতায় প্রফেশনাল আউটসোর্সিং ট্রেনিং অ্যান্ড এমপ্লয়মেন্ট সার্ভিসেস ফর আইটি/আটিইএস ইন্ডাস্ট্রি সংক্রান্ত সেবা ক্রয়ের বিভিন্ন প্যাকেজের আওতায় ১৫টি লটে ১৫টি প্রতিষ্ঠানের সাথে ১০৯ কোটি ৯৫ লাখ ৫১ হাজার টাকার চুক্তি স্বাক্ষরের প্রস্তাব অনুমোদন দেয়া হয়। এজন্য ব্যয় হবে ১০৯ কোটি ৯৫ লাখ ৫১ হাজার টাকা।
এ ছাড়া ‘চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলায় মহানন্দা নদী ড্রেজিং ও রাবার ড্যাম (প্রথম সংশোধিত) শীর্ষক প্রকল্পের একটি প্যাকেজের দরপত্রের ক্রয়প্রস্তাব অনুমোদন দেয়া হয়েছে। প্রকল্পে ব্যয় হবে ১৪৬ কোটি ১০ লাখ ৩০ হাজার টাকা। একটি দরপত্র বাতিল করে পুনঃদরপত্র আহ্বানের প্রস্তাবে অনুমোদন দিয়েছে কমিটি। যে ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান সর্বনি¤œ দরদাতা হয়েছিল তাদের এ ধরনের কাজে কারিগরি দক্ষতা না থাকায় দরপত্রটি বাতিল করা হয় বলে পানিসম্পদ মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে।
এ ছাড়াও বৈঠকে ‘চট্টগ্রাম-রাঙ্গামাটির জাতীয় মহাসড়কের (এন-১০৬) হাটহাজারি থেকে রাউজান পর্যন্ত সড়কাংশ চার লেনে উন্নীতকরণ’ প্রকল্পের বিভিন্ন কাজের ক্রয় প্রস্তাব অনুমোদন দিয়েছে কমিটি। এতে ব্যয় হবে ২১৪ কোটি ৭৬ লাখ ৩৫ হাজার টাকা।
‘ফেনী-নোয়াখালী জাতীয় মহাসড়কের (এন-১০৪) দুই লেন অংশ (মহীপাল থেকে চৌমুহনী পূর্ব বাজার পর্যন্ত) চার লেনে উন্নীতকরণ’ শীর্ষক অনুমোদিত প্রকল্পের বিভিন্ন কাজের ক্রয়প্রস্তাব অনুমোদন দেয়া হয়েছে। এতে ব্যয় হবে ৩০৮ কোটি টাকা।

 


আরো সংবাদ

মুক্তিযোদ্ধাদের চূড়ান্ত তালিকা ২৬ মার্চ যেকোনো মূল্যে ব্যাংকের আত্মসাৎকৃত টাকা আদায় করতে হবে : হাইকোর্ট টিকিট নিয়ে অনিয়মের অভিযোগে স্টেশন মাস্টারসহ ৪ জন বরখাস্ত আটাবে সম্মিলিত ফোরাম পূর্ণ প্যানেলে বিজয়ী সংগ্রাম সম্পাদক ও সাংবাদিক নেতাদের মামলা প্রত্যাহারে ৪৮ ঘণ্টার আলটিমেটাম গ্রাম পুলিশকে জাতীয় বেতন স্কেলে অন্তর্ভুক্তির নির্দেশ হাইকোর্টের ট্রাইব্যুনালে মানবপাচার মামলা নিয়ে হাইকোর্টের রুল ছেলের বাইকে বাসের ধাক্কা : মায়ের মর্মান্তিক মৃত্যু মির্জা ফখরুলসহ বিএনপির ২৩ নেতার আগাম জামিন বিজয় দিবস উপলক্ষে সাহিত্য সংস্কৃতি কেন্দ্রের প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণ স্টেট ইউনিভার্সিটির ফার্মা ক্যারিয়ার ফেয়ার

সকল




hacklink Paykwik Paykasa
Paykwik