১৬ অক্টোবর ২০১৯
ইসরাইল নির্বাচন

একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা হারালেন নেতানিয়াহু

-

ইসরাইলের জাতীয় নির্বাচনে হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ের পর সরকার গঠনের জন্য পর্যাপ্ত সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জনে ব্যর্থ হয়েছেন বর্তমান প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু। সাবেক সেনাপ্রধান বেনি গান্তজের দল নেতানিয়াহুর দলের চেয়ে একটি আসন বেশি পেয়ে এগিয়ে রয়েছেন বলে সর্বশেষ বেসরকারি ফলাফলে দেখা গেছে। এর ফলে কার্যত নেতানিয়াহুর ক্ষমতাসীন লিকুদ পার্টির পরাজয় হয়েছে বলে মনে করা হচ্ছে। তবে এখনো বোঝা যাচ্ছে না কে সরকার গঠন করতে যাচ্ছেন। দুই নেতাকেই এখন সরকার গঠনে অপর দলের আশ্রয় নিতে হবে। সিএনএন, বিবিসি ও হারেটজ।
হারেটজ সর্বশেষ খবরে জানায়, ৯১ শতাংশ ভোট গণনা শেষে বেসরকারি ফলাফলে প্রধানমন্ত্রী নেতানিয়াহুর লিকুদ পার্টিকে পেছনে ফেলে এগিয়ে রয়েছেন সাবেক সেনাপ্রধান বেনি গান্তজের দল ব্লু অ্যান্ড হোয়াইট। এর ফলে নেসেটে কোনো দলই সংখ্যাগরিষ্ঠতা পাচ্ছে না। ব্লু অ্যান্ড হোয়াইট নেসেটে ৩২ আসনে জয়ী হয়েছে। আর লিকুদ পার্টি জয়ী হয়েছে ৩১ আসনে। ফলে সরকার গঠনে অনিশ্চয়তা রয়েই গেল। বেনি গান্তজের জোটের রয়েছে ৫৬ আসন আর নেতা নিয়াহুর জোটের আছে ৫৫ আসন। তৃতীয় অবস্থানে রয়েছে আরব প্রার্থীরা। যৌথভাবে পেয়েছেন ১৩টি আসন। এই জয়ে তারা উল্লোসিত। কেননা দুর্নীতির দায়ে অভিযুক্ত নেতানিয়াহুকে তারা পেছনে ফেলতে সক্ষম হয়েছেন। অন্য দিকে ইসরাইল বেইতিনু পার্টির নেতা লিবারম্যান কার্যত এখন কিং মেকার হতে চলেছেন। তার দল পেয়েছ ৯টি আসন। তিনি সব দলের সমন্বয়ে একটি লিভারেল সরকার গঠনের ব্যাপারে তার সমর্থন ব্যক্ত করেছেন।
এ দিকে এই নির্বাচনী ফলাফলের প্রেক্ষাপটে প্রধানমন্ত্রী নেতানিয়াহু আগামী সপ্তাহে জাতিসঙ্ঘ সাধারণ পরিষদে ভাষণ দিতে যাচ্ছেন না। তার পরিবর্তে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ইসরাইল কাটজ ভাষণ দেবেন। এটাও নেতানিয়াহুর পরাজয়েই ইঙ্গিত।
গতকাল ব্লু অ্যান্ড হোয়াইট পার্টির নেতা গান্তজ বলেছেন, নির্বাচনে নেতানিয়াহু জয়লাভে ব্যর্থ হয়েছেন, আমরা জয়ী হয়েছি। ঐক্য সরকার গঠনে আমরা আলোচনাও শুরু করেছি।
অন্য দিকে প্রধানমন্ত্রী নেতানিয়াহু বলেন, হয় আমার নেতৃত্বে সরকার হবে। নাহলে ইহুদিবিরোধী আরব সমর্থনে এক বিপজ্জনক সরকার গঠন করতে হবে।
ইসরাইলে বিগত নির্বাচনে কোন দল সরকার গঠনে ব্যর্থ হওয়ায় স্বল্পব্যবধানে গত মঙ্গলবার দ্বিতীয় দফা সাধারণ নির্বাচন অনুিষ্ঠত হয়। চূড়ান্ত ফলাফলের পর ইসরাইলি প্রেসিডেন্ট রুভেন রিভলিন জয়ী দলের নেতাদের সাথে কথা বলবেন এবং ৪২ দিনের মধ্যে সরকার গঠনের সময়সীমা বেঁধে দেবেন।
নেতানিয়াহুর বিরুদ্ধে তিনটি দুর্নীতির মামলা রয়েছে। তবে নির্বাচনের মাঠে দুর্নীতির অভিযোগ আড়াল করে আক্রমণাত্মক বক্তব্য-বিবৃতি দিয়ে সরব থেকেছেন নেতানিয়াহু। তার প্রচেষ্ট কার্যত ফল দেয়নি।
১৭ সেপ্টেম্বর অনুষ্ঠিত এ নির্বাচনকে ইসরাইলের ইতিহাসে সবচেয়ে বেশি সময় ধরে ক্ষমতায় থাকা নেতানিয়াহুর জন্য একটি কঠিন পরীক্ষা হিসেবে দেখা হচ্ছিল। এবারের নির্বাচনের জয়লাভের মাধ্যমে টানা পঞ্চমবারের মতো ইসরাইলের প্রধানমন্ত্রী হতে চেয়েছিলেন নেতানিয়াহু। তবে ভোটের মাঠে তাকে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী বেনি গান্তজের শক্ত চ্যালেঞ্জের মুখে পড়তে হয়।


আরো সংবাদ




astropay bozdurmak istiyorum