১৫ অক্টোবর ২০১৯

নবম ওয়েজবোর্ডে রোয়েদাদ সুবিধা সঙ্কুচিত করার প্রতিবাদ এমইউজে খুলনার

-

সংবাদকর্মীদের স্বার্থ জলাঞ্জলি দিয়ে মালিক পক্ষের আবদার রক্ষা করে প্রকাশিত নবম ওয়েজবোর্ডের গেজেট প্রত্যাখ্যান করেছেন মেট্রোপলিটন সাংবাদিক ইউনিয়ন (এমইউজে) খুলনার নেতৃবৃন্দ। তারা অবিলম্বে এ গেজেট বাতিল করে সংশোধিত গেজেট প্রকাশের দাবি জানিয়েছেন। তা না হলে সাংবাদিক সমাজকে সাথে নিয়ে সারা দেশে তীব্র আন্দোলন গড়ে তোলা হবে বলে উল্লেখ করেন তারা।
এমইউজে খুলনার সভাপতি মো: আনিসুজ্জামান, সহসভাপতি এহতেশামুল হক শাওন, সাধারণ সম্পাদক (ভারপ্রাপ্ত) আবুল হাসান হিমালয়, কোষাধ্যক্ষ আব্দুর রাজ্জাক রানা, বিএফইউজের সাবেক সহসভাপতি ড. মো: জাকির হোসেন, সাবেক নির্বাহী সদস্য শেখ দিদারুল আলম এক বিবৃতিতে সাংবাদিক ও সংবাদমাধ্যমে কর্মরত কর্মীদের যুগ যুগ ধরে প্রাপ্ত সুযোগ-সুবিধা কমিয়ে নবম ওয়েজবোর্ড প্রকাশ করার তীব্র সমালোচনা করেন। তারা বলেন, সাংবাদিক সমাজ দীর্ঘ দিন নবম ওয়েজবোর্ডের মাধ্যমে বেতনভাতা বৃদ্ধির জন্য আন্দোলন-সংগ্রাম করে আসছে। সরকার ও মালিক পক্ষের টালবাহানা ও আইনি জটিলতা সৃষ্টির অপচেষ্টা ব্যর্থ হওয়ার পর গেজেটের মাধ্যমে নতুন ওয়েজবোর্ড বাস্তবায়ন করা হলে স্বাগত জানানোর কথা; কিন্তু আমরা গভীর পরিতাপ ও বিস্ময়ের সাথে লক্ষ করলাম গত শনিবার (১৪ সেপ্টেম্বর) প্রকাশিত গেজেটে সাংবাদিকেরা বিগত চার দশকেরও বেশি সময় ধরে যেসব সুযোগ-সুবিধা পেয়ে আসছেন তার কয়েকটি কেড়ে নেয়া হয়েছে।
বিবৃতিতে নেতৃবৃন্দ বলেন, ইতঃপূর্বের সব কয়টি ওয়েজবোর্ড রোয়েদাদে সাংবাদিকদের অবসর, চাকরিচ্যুতি অথবা চাকরি ছেড়ে দেয়ার ক্ষেত্রে দু’টি করে গ্রাচ্যুইটির বিধান রাখা হয়েছিল। এবারো নবম ওয়েজবোর্ড অনুরূপ সুপারিশ করেছে। তা ছাড়া সংবাদপত্র ও সংবাদ সংস্থার কর্মীদের আয়কর প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে দেয়া হচ্ছিল। মালিক পক্ষ প্রতিটি ওয়েজবোর্ড রোয়েদাদের সময়েই এ দু’টি বিষয়ে সংশোধন দাবি করলেও তা গ্রাহ্য হয়নি; কিন্তু নবম ওয়েজবোর্ড রোয়েদাদের গেজেটে সাংবাদিকদের গ্রাচ্যুইটি দু’টি থেকে কমিয়ে একটিতে নামিয়ে আনা হয়েছে। আয়কর পরিশোধের বিষয়টি এই প্রথম সাংবাদিকদের ঘাড়ে তুলে দেয়া হয়েছে। এটা করা হয়েছে সরকার গঠিত ওয়েজবোর্ডের সুপারিশ পাশ কাটিয়ে মন্ত্রিসভা কমিটির সুপারিশে, যা অগ্রহণযোগ্য ও অনভিপ্রেত। চতুর্থ ওয়েজবোর্ড কার্যকরের সময় আয়কর মালিক পক্ষ থেকে দেয়ার বিধান চ্যালেঞ্জ করা হলে তা হাইকোর্ট ও আপিল বিভাগ কর্তৃক প্রত্যাখ্যাত হয়ে সাংবাদিকদের পক্ষে রায় হয়। এখনো মালিক পক্ষের একটি রিটের কারণে বিষয়টি আদালতের বিবেচনাধীন। এমতাবস্থায় এ বিধান পরিবর্তন করা বেআইনি। বিজ্ঞপ্তি।


আরো সংবাদ




astropay bozdurmak istiyorum