১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯

মাউশিতে টেন্ডার নিয়ে অনিয়মের অভিযোগ

-

মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা অধিদফতরে (মাউশি) টেন্ডার নিয়ে অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। অধিদফতরের এক দরপত্র সর্বনিম্ন দরদাতাকে না দিয়ে দ্বিতীয় সর্বনিম্ন দরদাতাকে দেয়ার ফলে প্রায় অর্ধকোটি টাকা তি হচ্ছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।
জানা গেছে, প্রমিক্সকো লিমিটেড নামে একটি প্রতিষ্ঠান সম্প্রতি মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিা অধিদফতরে (মাউশি) দরপত্র জমা দেয়। এতে প্রমিক্সকো কোম্পানি সর্বনিম্ন দরদাতা হিসেবে গণ্য হয়। তবে মাউশি সর্বনিম্ন দরদাতাকে বাদ দিয়ে দ্বিতীয় সর্বনিম্ন দরতাকে কার্যাদেশ দেয়। এ বিষয়ে গত ৬ আগস্ট প্রমিক্সকো কোম্পানির প থেকে মাউশি ফিন্যান্স অ্যান্ড প্রকিউরমেন্ট উইংয়ে অভিযোগ করা হয়। কিন্তু সে অভিযোগও কাজে আসেনি।
অভিযোগে জানা যায়, নিয়ম মেনে প্রমিক্সকো কোম্পানি দরপত্র জমা দেয়। তারা সর্বনিম্ন দরদাতা হন। দ্বিতীয় সর্বনিম্ন দরদাতার সাথে প্রমিক্সকো কোম্পানির ব্যবধান ৪৭ লাখ ৯৪ হাজার ৩৬৫ টাকা। অথচ ব্যাংকের কাগজের অজুহাত দেখিয়ে প্রমিক্সকো কোম্পানিকে কার্যাদেশ না দিয়ে দ্বিতীয় সর্বনিম্ন দরদাতাকে কার্যাদেশ দেয় মাউশি।
প্রমিক্সকো কোম্পানির অভিযোগ, তারা যথাযথ নিয় মেনে আবেদন করে। অথচ সর্বনিম্ন করদাতা হয়েও কোনো অসাধু চক্রের স্বার্থ হাসিলের জন্য তাদের কোম্পানিকে কার্যাদেশ দেয়া হয়নি। এতে সরকার মোটা অঙ্কের রাজস্ব হারাবে বলে তারা জানায়।
এ ব্যাপারে মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিা অধিদফতরের ডেপুটি ডাইরেক্টর আনিছুর রহমানের সাথে ফোনে যোগাযোগ করলে তিনি জানান, বিষয়টি নিয়ম মেনেই হয়েছে। তবে এ ব্যাপারে তিনি বিস্তারিত বলতে অপারগতা প্রকাশ করেন।


আরো সংবাদ