২১ আগস্ট ২০১৯

বন্ড সংক্রান্ত ভুল বোঝাবুঝি দূর করতে যৌথ কমিটির দাবি বিজিএমইএর

-

বন্ড সংক্রান্ত বিষয়ে দেশের তৈরী পোশাক শিল্পখাতের উদ্যোক্তাদের সাথে কাস্টমস কর্তৃপক্ষের ভুল বোঝাবুঝি ও আস্থার সঙ্কট রয়েছে জানিয়ে সঙ্কট নিরসনে একটি যৌথ কমিটি গঠনের দাবি জানিয়েছেন বিজিএমইএ সভাপতি ড. রুবানা হক। পাশাপাশি বার্ষিক অডিট কার্যক্রমকে সহজীকরণের লক্ষ্যে অনলাইনের মাধ্যমে স্বল্পতম দলিলাদির ভিত্তিতে অডিট কার্যক্রম সম্পন্ন করার লক্ষ্যে বন্ড ব্যবস্থাপনা স্বয়ংক্রিয়করণ প্রকল্পের কাজে গতি আনার দাবি জানান তিনি।
গতকাল বৃহস্পতিবার কাস্টমস বন্ড কমিশনারেট ও কাস্টমস হাউজ ঢাকা ও বেনাপোল প্রতিনিধিদের সাথে কাস্টমস-সংক্রান্ত সমস্যাবলি নিয়ে বিজিএমইএ কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় এসব কথা বলেন তিনি। ঢাকা কাস্টমস বন্ড কমিশনারেটের কমিশনার এস এম হুমায়ুন কবীর, চট্টগ্রাম কাস্টমস বন্ড কমিশনারেটের কমিশনার মো: আজিজুর রহমান কমিশনার, অতিরিক্ত কমিশনার ও যুগ্ম কমিশনাররা এবং বিজিএমইএ নেতৃবৃন্দ বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন।
বিজিএমইএ সভাপতি বলেন, কাস্টমস বন্ড সংক্রান্ত বিষয়ে পারস্পরিক আস্থার জায়গায় কিছুটা ভুল বোঝাবুঝি ও আস্থার ঘাটতি রয়েছে। ইউডিতে সব ব্যাক-টু-ব্যাক ঋণপত্রের বিবরণ সংযোজন না থাকলে অথবা রফতানির পরে বা রফতানির আগে সংযোজন করা হলে শিল্প প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে কারণ দর্শানোর নোটিশ জারি হচ্ছে। এতে উদ্যোক্তারা হয়রানির শিকার হচ্ছেন। এ সমস্যার সমস্যাকল্পে একটি সংশোধনী/প্রত্যয়নপত্র জারির সিদ্ধান্ত হলেও এখন পর্যন্ত তার ফরম্যাট তৈরি হয়নি মর্মে সভাপতি বিজিএমইএর পক্ষ থেকে একটি খসড়া ফরম্যাট অনুমোদনের জন্য উপস্থাপন করেন। এ ব্যাপারে তিনি আরো প্রস্তাবনা দিয়ে বলেন যে, সম্পূর্ণভাবে মীমাংসিত না হওয়া পর্যন্ত রফতানিমুখী তৈরী পোশাক শিল্পের অডিট কার্যক্রম যেন চলমান রাখা হয়।
বন্ডে লাইসেন্সে প্রাপ্যতা নিয়ে অনেক সমস্যা হচ্ছে জানিয়ে তিনি বলেন, বন্ড লাইসেন্সে প্রাপ্যতা আছে, অথচ অনলাইনে প্রাপ্যতা না থাকায় সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানের পণ্য ছাড়করণ হয় না। এ ধরনের পদক্ষেপ গ্রহণের আগে সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানের রফতানি প্রোফাইল বিবেচনায় নেয়ার জন্য তিনি অনুরোধ করেন। বিজিএমইএ সভাপতি তার উপস্থাপনে কাস্টমস ও বন্ড সংক্রান্ত কার্যাবলি সহজীকরণের লক্ষ্যে আরো বেশ কয়েকটি সুপারিশ করেন। এগুলোর মধ্যে রয়েছেÑ নতুন কাঁচামাল ও আনুষঙ্গিক দ্রব্যাদির নাম এইচএস কোডসহ বন্ড লাইসেন্সে দ্রুততার সাথে সংযোজন এবং জরুরি ক্ষেত্রে প্রয়োজনে বিজিএমইএ থেকে অঙ্গীকারনামা গ্রহণ করে পণ্য ছাড়করণের জন্য অনুমতি প্রদান। চার অঙ্কের সংখ্যায় এইচএস কোড অনুমোদন। ইপিজেড প্রতিষ্ঠানের সাথে ইন্টার বন্ড ট্রান্সফার দ্রুতকরণের জন্য ইন্টার বন্ড ট্রান্সফার সর্বোচ্চ তিন কার্যদিবসের মধ্যে সম্পন্নকরণ। পোশাক শিল্পের আমদানিকৃত চালানে বন্ড কমিশনারেট হতে কাটিং তদারকির জন্য দ্রুত প্রতিনিধি প্রেরণ ও প্রতিবেদন দাখিল নিশ্চিতকরণ প্রভৃতি।
সভায় কাস্টমস বন্ড কমিশনারেট ও কাস্টমস হাউজ ঢাকার পক্ষ থেকে কাস্টমস ও বন্ড সংক্রান্ত কার্যাবলি সহজীকরণের জন্য অডিটের মেয়াদকাল ও ইউডি অ্যামেন্টমেন্টের সংখ্যা সুনির্দিষ্টকরণের বিষয়ে বিজিএমইএ-এর সহযোগিতা কামনা করা হয়। এস এম হুমায়ুন কবীর বলেন, বন্ড কমিশনারেটের সবচেয়ে বড় স্টেকহোল্ডার বিজিএমইএ। বিজিএমইএর সদস্যরা ভালো কাজে উৎসাহিত করলে তারা উৎসাহিত হবেন।
মো: আজিজুর রহমান বলেন, স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতে রফতানি ৫০ বিলিয়ন ডলার করার জন্য যা করণীয় তারা তাই করবেন। কাস্টমস বন্ড সংক্রান্তÍ সমস্যাবলি সমাধানের জন্য এরই মধ্যে কাস্টমস বন্ড কমিশনারেট চট্টগ্রামে একটি যৌথ কমিটি গঠন করা হয়েছে বলেও জানান তিনি। বলেন, বন্ডের অপব্যবহার রোধে বিজিএমইএ এবং কাস্টমস বন্ড কমিশনারেট একসাথে কাজ করবে।


আরো সংবাদ




mp3 indir bedava internet