২০ জানুয়ারি ২০২০

খুলনা শিরোমণি বিএনএসবি চক্ষু হাসপাতালের ডাক্তার কর্মচারীরা আবারো আন্দোলনে

-

খুলনা শিরোমণি বিএনএসবি চক্ষু হাসপাতালের ডাক্তার ও কর্মচারীরা গতকাল বৃহস্পতিবার থেকে নতুন আন্দোলন শুরু করেছেন। হাসপাতালের স্বাভাবিক কার্যক্রম চালু রাখতে এবং আন্দোলন পরিচালনার জন্য তিন সদস্যের কমিটি গঠন করা হয়েছে। অপর দিকে চলমান আন্দোলন বানচালে ম্যানেজিং কমিটির এক সদস্যের চেষ্টার অভিযোগ করে সংশ্লিষ্টরা ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন।
বিএনএসবি চক্ষু হাসপাতালের ডাক্তার ও স্টাফদের দুই দফা দাবি পূরণে কর্তৃপক্ষকে কয়েক দফা সময় দেয়ার পরও দাবি আদায় না হওয়ায় গতকাল সকাল ৮টা থেকে ৯টা পর্যন্ত হাসপাতালের ডাক্তার-কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা পরিচালক ডা: আব্দুল হান্নানের অফিস কক্ষের সামনে অবস্থান ধর্মঘট পালন করেন। এ সময় বক্তৃতা করেন ডা: মিজানুর রহমান নাছিম, ডা: নজরুল ইসলাম, ডা: সাইফুর রহমান, ডা: জুবায়ের রিয়াল, ডা: শিমুল চক্রবর্তী, মীর মিজানুর রহমান, গিয়াস জমাদ্দার, মো: খায়রুল ইসলাম এবং আফরোজা ইয়াসমিন। এরপর দুপুর ১২টা থেকে সাড়ে ১২ পর্যন্ত কর্মবিরতি এবং বেলা ২টা থেকে পরিচালকের কক্ষে তালা দিয়ে অবরুদ্ধকরণ কর্মসূচি পালন করা হয়।
হাসপাতালের ডা: সাইফুর রহমান জানান, হাসপাতালের সেবা কার্যক্রম স্বাভাবিক রাখতে এবং আন্দোলন পরিচালনার জন্য সিনিয়র কনসালটেন্ট ডা: মিজানুর রহমান নাসিম, ডা: নজরুল ইসলাম এবং ডা: বি এম সাইফুর রহমানের সমন্বয়ে তিন সদস্যের কমিটি গঠন করা হয়েছে। আন্দোলনকারীরা জানিয়েছেন, মাদকসেবী ও নারী কেলেঙ্কারিসহ বিভিন্ন অনিয়ম ও দুর্নীতির সাথে জড়িত প্রশাসক মাহমুদুল হাসানকে রক্ষা এবং চলমান আন্দোলনকে বানচালে ম্যানেজিং কমিটির এক সদস্য বুধবার দুপুরে কিছু লোক নিয়ে হাসপাতালের পরিচালকের কক্ষে রুদ্ধদ্বার বৈঠক করেন। পরে ডাক্তার সাইফুর রহমানকে পরিচালকের কক্ষে ডেকে তিনি নিজেকে পুলিশের একজন ডিআইজির আত্মীয় পরিচয় দিয়ে অবিলম্বে আন্দোলন বন্ধ করা না হলে পুলিশ প্রশাসন দিয়ে ব্যবস্থা নেয়ার হুমকি দেন। এ খবর হাসপাতালে ছড়িয়ে পড়লে সবার মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়।

উল্লেখ্য, প্রতিষ্ঠানের অ্যাডমিনিস্ট্রেটর মাহামুদুল হাসান তারিফ গত ১০ জ্নু ফেনসিডিলসহ ধরা পড়ার পর তার বিরুদ্ধে বিভিন্ন অনিয়ম-দুর্নীতি এবং নারী কেলেঙ্কারির খবর বেরিয়ে এলে প্রতিষ্ঠানের সবাই তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করতে গত চার দিন ধরে দাবি জানিয়ে আসছেন। কিন্তু কর্তৃপক্ষ তার বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নিতে অপরাগতা প্রকাশ করছে।

 


আরো সংবাদ




krunker gebze evden eve nakliyat