১৫ অক্টোবর ২০১৯

আশুলিয়ায় ছাদ থেকে ঝাপ দিয়ে আত্মহত্যা

-

আশুলিয়ায় ছয়তলা ভবনের ছাদ থেকে ঝাপ দিয়ে ছেলে আত্মহত্যা করেছে। নিহতের নাম লাবিব খন্দকার (৩০)।
মঙ্গলবার বেলা ১১টায় আশুলিয়া জিরানী বাজার এলাকার টেঙ্গুরি পুকুরপাড় মিজানুর রহমানের ছয়তলা ভবনের চতুর্থ তলার আবাসিক বাসিন্দা লাবিব বাসায় অফিস থেকে আসার পর এ ঘটনা ঘটেছে।
নিহত লাবিব গাইবান্ধা জেলার পলাশবাড়ি থানাধীন ফকিরহাট এলাকার মৃত মোয়াজ্জেম হোসেন ও লিপি আক্তারের ছেলে। সে আশুলিয়ার জিরানী টেংগুড়ি পুকুরপাড় এলাকার মিজানুর রহমানের ষষ্ঠতলা ভবনের চতুর্থ তলায় ভাড়া থেকে ওই এলাকার স্পিনিং ট্রেড লিমিটেড নামে পোশাক কারখানায় মার্চেন্ডাইজার হিসেবে কর্মরত ছিল।
নিহতের স্ত্রী নাজমা বেগম জানান, বেলা পৌনে ১১টায় গার্মেন্ট থেকে ছুটি নিয়ে বাসায় আসেন। প্রতি দিনের মতো তার স্বামী লাবিব তার মায়ের সাথে মোবাইলে কথা বলতে ছিল। সে কিছুদিন ধরে মাথার প্রচণ্ড ব্যথায় আক্রান্ত ছিল। তার অসংলগ্ন কথা শুনতে পেয়ে তাকে দ্রুত চিকিৎসকের কাছে নিয়ে যেতে তিনি তৈরি হতে থাকেন। এমন মুহূর্তে বাইরে লোকজনের আর্তচিৎকার শুনতে পাই। পেছনে ফিরে স্বামী লাবিব কে না দেখে নিচে নেমে এসে দেখি রক্তাক্ত অবস্থায় মাটিতে লুটিয়ে রয়েছে। দ্রুত নিকটবর্তী শেখ ফজিলাতুন নেছা মেডিক্যাল হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসকেরা তাকে মৃত ঘোষণা করেন।
এ ব্যাপারে নিহত লাবিবের মামা বকুল মণ্ডল জানান, লাবিব তার মায়ের সিদ্ধান্তের বাইরে গিয়ে ভালোবেসে ছয় মাস আগে একই কারখানায় কর্মরত চাঁপাইনবাবগঞ্জ এলাকার মেয়ে দুই সন্তানের জননী নাজমা আক্তারকে (৪০) বিয়ে করে। এ নিয়ে লাবিব ও তার মা লিপির সাথে মনোমালিন্য ঘটে। একপর্যায়ে নিহতের মা লিপি ছেলেকে সব সম্পত্তি থেকে ত্যাজ্য করে। সম্পত্তি তার একমাত্র মেয়েকে দান করেন। এতে লাবিব ভারসাম্যহীন হয়ে পড়েন। ধারণা করা হয় এ ঘটনায় সে ছাদ থেকে পড়ে আত্মহত্যার পথ বেছে নেয়।


আরো সংবাদ




astropay bozdurmak istiyorum