২২ আগস্ট ২০১৯

চট্টগ্রামে পুলিশের জালে হত্যাকারী কিশোর গ্যাং

-

চট্টগ্রাম মহানগরীর ডবলমুরিং হাজীপাড়া এলাকার রিকশাচালক মো: রাজু হত্যাকাণ্ডের রহস্য উদঘাটনের দাবি করেছে পুলিশ। পুলিশের দাবি, এক মাদক কারবারির কারাগারে যাওয়ার ঘটনাকে কেন্দ্র করে এই খুনের ঘটনা ঘটে। একটি মাদকাসক্ত কিশোর গ্যাং এই খুনের সাথে জড়িত উল্লেখ করে পুলিশ জানিয়েছে, মাদক কারবারে বাধা মনে করে মফিজ নামের এক ব্যক্তিকে খুনের পরিকল্পনা করলেও ভুলবশত মফিজ মনে করে রাজুকে খুন করা হয়েছে। পুলিশ ইতোমধ্যে রাজু খুনে জড়িত কিশোর গ্যাংটিকে পাকড়াও করতে সক্ষম হয়েছে বলে জানান সিএমপির অতিরিক্ত কমিশনার (অপরাধ ও অভিযান) আমেনা বেগম। সিএমপির পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, গত ১৪ মে ভোরে ডবলমুরিং থানার হাজীপাড়া এলাকায় রিকশাচালক মো: রাজুকে বাসায় ঘুমন্ত অবস্থায় কুপিয়ে জখম করা হয়। পরে চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রাজু মারা যায়। ঘটনার ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে হত্যার রহস্য উদঘাটন ও হত্যাকাণ্ডে জড়িত আসামি গ্রেফতার ও হত্যায় ব্যবহৃত ধারালো অস্ত্র উদ্ধার করেছে ডবলমুরিং থানা পুলিশ।
গ্রেফতারকৃতরা হলেন শিমুল দাশ (২০), তানভীর হোসেন প্রকাশ সিফাত (১৮), মো: সুজন প্রকাশ মধু (১৮), মো: রাকিব হোসেন প্রকাশ শাহ রাকিব (১৮), মো: নুর নবী (১৮), মেহেদী হাসান রুবেল (১৮), ওসমান হায়দার কিরন (১৮), ও সেলিনা আক্তার সেলি (৩০)। পুলিশ হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত ২টি ছোরা, ১টি কিরিচ ও ১টি চাইনিজ কুড়াল উদ্ধার করেছে।
সিএমপি জানিয়েছে, একাধিক মাদক ও অস্ত্র মামলার আসামি ছাগির হোসেন গত ২৭ এপ্রিল ইয়াবা ও অস্ত্রসহ পুলিশের হাতে গ্রেফতার হন। ছাগির হোসেন হাজীপাড়া এলাকায় মাদক কারবার পরিচালনা করত এবং মাদকসেবী কিশোর গ্যাংয়ের সদস্যদের মাধ্যমে এলাকায় প্রভাব বিস্তার করত। ছাগির হোসেন তার নিয়োজিত মফিজের মাধ্যমে আসামিদের কাছে ইয়াবা বিক্রয় করত। ছাগির হোসেনের গ্রেফতারের বিষয়ে তথ্য দাতা হিসেবে তারা মফিজকে সন্দেহ করে। জেলহাজতে থাকাবস্থায় ছাগির হোসেনের ডাক পেয়ে আসামি শিমুল, শুক্কুর, তানভীর হোসেন সিফাত, রাকিবরা জেলখানায় কারাবন্দীদের দেখা করার নিয়মানুযায়ী জেলখানায় অবস্থিত ছাগির হোসেনের সাথে দেখা করে। সেই সময় ছাগির হোসেন তাদেরকে নির্দেশ দেয় মফিজকে চিরতরে মেরে ফেলার জন্য। সর্বশেষ ঘটনার আগের দিন ১৩ মে আবার জেল গেটে ছাগির হোসেনের স্ত্রী সেলিনা আক্তার সেলীসহ (৩০) আসামি শিমুল, শুক্কুর, রাকিব দেখা করে দু-এক দিনের মধ্যেই মফিজকে মেরে ফেলার নির্দেশনা প্রদান করে। নির্দেশনা অনুযায়ী ওই দিন সন্ধ্যায় ছাগিরের বাসার সামনে খালি জায়গায় ছাগিরের স্ত্রী সেলিনা, ছেলে ওসমান হায়দার কিরণসহ আসামি শুক্কুর, শিমুল, রাকিব, সিফাত উপস্থিত হয়। সেখানে ছাগিরের স্ত্রী সেলিনা আক্তার সেলী মফিজকে মেরে ফেলার খরচ বাবদ শুক্কুরকে এক হাজার টাকা প্রদান করে এবং ছেলে কিরণ একটি কিরিচ শুক্কুরকে প্রদান করে। সেখান থেকে সবাই কিভাবে মফিজকে হত্যা করবে সেই পরিকল্পনা করে।
সেখানে ছাগিরের ছেলে আসামি কিরণ রাকিবকে চাইনিজ কুড়াল ও সিফাতকে ছোরা দেয়। পরিকল্পনা অনুযায়ী আসামিরা সেখানে অবস্থান করে ফজরের নামাজের পরে মফিজের ভাড়া ঘরে ঢোকে। সেই সময় বাসার বাইরে কেউ আসে কি না পাহারা দেয়ার জন্য নুর নবী ও রুবেলকে বসানো হয়। পরিকল্পনা অনুযায়ী ভোর সাড়ে ৪টার দিকে হাজীপাড়া আল-আমিন হোটেলের সামনে আসামিরা অবস্থান নেয়। শিমুল, শুক্কুর, সাকিব, সিফাত, সুজন পূর্বপরিকল্পনা মোতাবেক মফিজকে হত্যার উদ্দেশ্যে বিভিন্ন ধরনের ধারালো অস্ত্র (চাইনিজ কুড়াল, কিরিচ, ছোরা, টিপ ছোরা) ঘটনাস্থল ভাড়া কক্ষে প্রবেশ করে। নুর নবী ও রুবেল বাইরে অবস্থান করে। আসামিরা ঘটনাস্থল ভাড়া কক্ষে মফিজের রুম টার্গেট করলেও ভুলবশত পাশে রাজু আহম্মদের রুমে প্রবেশ করে অন্ধকারের মধ্যে মফিজ মনে করে রাজু আহম্মদকে এলোপাতাড়ি আঘাত করে রক্তাক্ত অবস্থায় রুমে ফেলে চলে যায়। আসামিরা ঘটনাস্থলে প্রবেশ করার সাথে সাথে রাজু আহম্মদের রুম ছাড়া অন্যান্য রুমের দরজা বাইরে থেকে বন্ধ করে দেয়। সে সময় রাজু আহম্মদের পাশে কক্ষে মফিজ ঘটনার সময় অবস্থান করার কথাও পুলিশ জানায়।


আরো সংবাদ

বিদ্যুতের খুটিতে ঝুলছে লাইনম্যানের লাশ (৫৭৭৯৫)সীমান্তে পাকিস্তানি সেনাদের গুলিতে ৬ ভারতীয় সেনা নিহত (৪০৭২৫)জঙ্গলে আলিঙ্গনরত পরকীয়া জুটির বজ্রপাতে মৃত্যু (৩৯৮৭৫)ভারতীয় গোয়েন্দা রিপোর্ট : বারুদের স্তূপে কাশ্মির, যেকোনো সময় বিস্ফোরণ (২৬৬৫০)কাশ্মির নিয়ে যা বলছে যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, ফ্রান্স (১৯১২২)বক্তব্যকে ভুলভাবে নেয়া : যা বললেন জাকির নায়েক (১৬০৫৩)মিয়ানমারে ভয়াবহ সংঘর্ষে ৩০ সেনা নিহত (১৫৮৪১)যেকোনো সময় গ্রেফতার হতে পারেন ভারতের সাবেক অর্থমন্ত্রী চিদম্বরম (১৫৪৭৯)কাশ্মির নিয়ে আবার মধ্যস্ততার প্রস্তাব ট্রাম্পের (১৩৩৯১)১২৮ বছর বয়সের বৃদ্ধের আকুতি : ‘বাবা আমাকে বাঁচাও, ওরা আমারে খেতে দেয় না’ (১২৮২৬)



mp3 indir bedava internet