২৪ মে ২০১৯

ভূমধ্যসাগরে নৌকাডুবি নোয়াখালীর তিন ভাই পাচারকারী

-

অবৈধভাবে ইতালি যাওয়ার পথে ভূমধ্যসাগরে নৌকাডুবির শিকার হয়ে নিখোঁজ ৩৯ জন বাংলাদেশীর মধ্যে ২২ জনের বাড়িই সিলেট বিভাগে। আর নোয়াখালীর তিন ভাই পাচারকারী চক্রের হোতা। এ ঘটনায় শরীয়তপুরের নড়িয়ার উত্তম কুমার নামে একজন বাংলাদেশীর লাশ উদ্ধার করা গেছে।
গতকাল নিজ কার্যালয়ে সাংবাদিকদের সাথে আলাপকালে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. আব্দুল মোমেন এসব কথা জানান। তিনি নিখোঁজ ৩৯ জনের একটি তালিকা প্রকাশ করেন।
পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ১৪ বাংলাদেশীকে জীবিত উদ্ধার করা হয়েছে। এর মধ্যে চারজনের অবস্থা গুরুতর। তারা তিউনিসিয়ার জার্জিস হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। বাকি ১০ জন তিউনিসিয়ার রেড ক্রিসেন্ট ক্যাম্পে রয়েছেন।
তিনি বলেন, গত ৯ মে দু’টি নৌকায় করে ১৩০ জনের মতো বাংলাদেশী লিবিয়া থেকে ইতালির উদ্দেশে রওনা দেন। প্রথম নৌকাটি ইতালিতে পৌঁছেছে বলে আমরা জানতে পেরেছি। অন্য নৌকাটিতে ৭০-৮০ জনের মতো যাত্রী ছিল। সেই নৌকাটি ডুবে যায়।
ড. মোমেন বলেন, বাংলাদেশীরা যে মানবপাচার চক্রের খপ্পরে পড়েছিলেন, তার হোতাসহ পাঁচজনের বিষয়ে তথ্য পেয়েছে সরকার। নোয়াখালীর তিন ভাইয়ের একটি চক্র এর হোতা। সাথে রয়েছে সিলেটের প্রতারক ট্র্যাভেল এজেন্সিগুলো। এসব পাচারকারীর বিরুদ্ধে আমরা এবার একটি শক্ত ব্যবস্থা নেয়ার চেষ্টা করব। তিনি বলেন, ভূমধ্যসাগরে নৌকাডুবির ঘটনায় বেঁচে ফেরা বাংলাদেশী ও নিহতদের লাশ ফেরত আনতে সরকার সহায়তা দেবে।
পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, উদ্ধার হওয়া বাংলাদেশীদের কাছ থেকে জানা গেছে, তারা চার থেকে ছয় মাস আগে দুবাই ও মিসরের আলেকজান্দ্রিয়া হয়ে লিবিয়া আসেন। উদ্দেশ্য ইতালি যাওয়া। লিবিয়ায় তাদের ওপর নিয়মিত নির্যাতন চালাত মানবপাচারকারীরা।
নৌকাডুবির ঘটনা ঘটেছে তিউনিসিয়া উপকূলের কাছে। তিউনিসিয়ায় বাংলাদেশের দূতাবাস না থাকায় ঘটনার পর প্রতিবেশী দেশ লিবিয়া থেকে বাংলাদেশ দূতাবাসের একজন কর্মকর্তাকে তিউনিসিয়ায় পাঠানো হয়। এ এস এম আশরাফুল ইসলাম নামে কর্মকর্তাটি জানান, যেসব বাংলাদেশী এখনো নিখোঁজ, তাদের লাশ উদ্ধারের সম্ভাবনা খুবই কম। উদ্ধার হওয়া লাশের মধ্যে শরীয়তপুরের নড়িয়ার উত্তম কুমার নামে একজনকে শনাক্ত করা হয়েছে।
ভূমধ্যসাগর পাড়ি দিয়ে অবৈধ পথে ইতালি যাওয়ার পথে এর আগেও নৌকাডুবিতে বহু বাংলাদেশী প্রাণ হারিয়েছেন। ঝুঁকি নিয়ে ইতালি পৌঁছাতে পারলে অনেক বাংলাদেশী উন্নততর জীবনের সন্ধানে ইউরোপের বিভিন্ন দেশে ছড়িয়ে পড়েন। বাংলাদেশ থেকে অবৈধ অভিবাসীদের এ প্রবণতায় ইউরোপীয় কমিশন বেশ ক্ষুব্ধ হয়েছে। এই প্রবণতা ঠেকাতে না পারলে বাংলাদেশীদের জন্য ইউরোপের ভিসা কঠিন করে দেয়া হবে বলে হুমকি দিয়েছেন ইউরোপীয় কমিশনের প্রেসিডেন্ট।
নিখোঁজ বাংলাদেশীদের তালিকা : আব্দুল আজিজ, ফেঞ্চুগঞ্জ, সিলেট, আহমদ, ফেঞ্চুগঞ্জ, সিলেট, লিটন আহমেদ, ফেঞ্চুগঞ্জ, সিলেট, খোকন, বিশ্বনাথ, সিলেট, আফজাল হোসেন, গোলাপগঞ্জ, সিলেট, মমিন আহমেদ, বিশ্বনাথ, সিলেট, দিলাল আহমেদ, বিশ্বনাথ, সিলেট, কাশেম, গোলাপগঞ্জ, সিলেট, মৌলানা মাহবুবুর রহমান, সুনামগঞ্জ, সিলেট, জিল্লুর রহমান, বাংলাবাজার, সিলেট, কামরান আহমেদ মারুফ, সিলেট, রুকন আহমেদ, বিশ্বনাথ, সিলেট, হাফিজ শামিম আহমেদ, মৌলভীবাজার, সিলেট, আয়াজ আহমেদ, ফেঞ্চুগঞ্জ, সিলেট, ফাহাদ আহমেদ, মৌলভীবাজার, সিলেট, সুজন আহমেদ, বিয়ানীবাজার, সিলেট, ইন্দ্রজিত, সিলেট; জুয়েল, বড়লেখা, সিলেট, মুক্তাদির, হবিগঞ্জ, সিলেট, শোয়েব, বিয়ানিবাজার, সিলেট, সাজু, সিলেট, সাব্বির, ভৈরব, কিশোরগঞ্জ, আলি আকবর, শিবচর, মাদারীপুর, জাকির হাওলাদার, শিবচর, মাদারীপুর, মনির, শরীয়তপুর, শাহেদ, রাজৈর, মাদারীপুর, নাইম, রাজৈর, মাদারীপুর, রাজিব, শরীয়তপুর, জালালউদ্দিন, কিশোরগঞ্জ, পারভেজ, শরীয়তপুর, স্বপন, মাদারীপুর, সজল, ভৈরব, কিশোরগঞ্জ, জাহিদ, নরসিংদী, আব্দুর রহিম, নোয়াখালী, নাজির আহমেদ, সুনামগঞ্জ, নাদিম, মাদারীপুর, নাসির আহমেদ, চাটখালি, নোয়াখালী ও সজিব, মাদারীপুর।

 


আরো সংবাদ

Instagram Web Viewer
agario agario - agario